সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ চৈত্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কোথায় হারিয়ে গেল দুই বোন দোলা আর বৃষ্টি!

নিউজ ডেস্ক:: ‘একা থাকার এই ভালো লাগায় হারিয়ে গিয়েছি, নিঃসঙ্গতা আমাকে আর পাবে না…’ গত ৩ জানুয়ারি ফেসবুকে এমন একটি লেখা পোস্ট করেছিলেন রেহেনুমা তারান্নুম দোলা।অথচ তার প্রায় দেড় মাস পর বোন ফাতেমা-তুজ জোহরা বৃষ্টিকে নিয়ে সত্যিই হারিয়ে গেছেন দোলা।

দুই বোনের চালচলনে ছিল অদ্ভূত কিছু মিল। এর মধ্যে শাড়ি ছিল তাদের দু’জনের ভীষণ প্রিয়। উৎসব, উপলক্ষ কিংবা যেকোনো আয়োজনে শাড়ি থাকতো তাদের পছন্দের তালিকায়। দোলা আর বৃষ্টির ফেসবুক টাইমলাইনজুড়ে থাকা বেশিরভাগ শাড়ি পরা ছবি তারই প্রমাণ দেয়। দু’জনেই চশমা পরতেন, তাও প্রায় একই রকম ফ্রেমের। শিল্প-সাহিত্যেও আগ্রহ ছিল বেশ। আবৃত্তিতে ঝোঁক কিছুটা বেশি।

দু’বোন মিলে ভর্তিও হয়েছিলেন প্রজন্মকণ্ঠ নামে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির একটি আবৃত্তি সংগঠনে। শিল্প-সাহিত্যের প্রতি দারুণ ঝোঁক থাকায় পরিবারও দু’জনকে বেশ উৎসাহ দিতো।গত বুধবার রাতে চকবাজারের চুড়িহাট্টার আগুনের ঘটনার পর থেকে দোলা আর বৃষ্টিকে হন্যে হয়ে খুঁজছে তাদের পরিবার।

দলিলুর রহমান দুলাল ও সুফিয়া কামালের কন্যা রেহনুমা তারান্নুম দোলা থাকতেন ১৩৮/৯ লালবাগ রোড এলাকায়। এর ঠিক পাশেই ৪১/১ হাজী রহিম বক্স লেনে থাকতো জসিম উদ্দিন ও শামসুন্নাহারের মেয়ে ফাতেমাতুজ জোহরা বৃষ্টি।

বৃষ্টি পড়তেন গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের তৃতীয় বর্ষে। আর দোলা আইন নিয়ে পড়তেন মিরপুরের বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসে।চকবাজারের অগ্নিকাণ্ডের দিন বিকালে সেগুনবাগিচার শিল্পকলা একাডেমিতে নিজেদের আবৃত্তি সংগঠন প্রজন্ম কণ্ঠের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে একসঙ্গে বাসা থেকে বের হয় দোলা ও বৃষ্টি। সেদিনও দু’জনে শাড়ি পরাই ছিলেন। খোঁপায় ছিল ফুলও।

দুপুরের পর বাসা থেকে চলে যান শিল্পকলা একাডেমির অনুষ্ঠানে। দ্রুত অনুষ্ঠান শেষ করে বাসায় ফিরে আসবে বলেও জানায় দু’জনে। অনুষ্ঠান শেষ করে রাতে রিকশায় করে বাসায় ফিরছিলেন দুই বোন। কেবি রুদ্র রোড এলাকায় পৌঁছালে মুঠোফোনে কথা হয় ভাই সাজিদুল ইসলাম সাজিদের সঙ্গে। ১০টার কিছুক্ষণ পরেই তাদের সঙ্গে কথা হয় বলে জানান সাজিদ। তিনি বলেন, আমাকে ফোনে বলেছিল আর মিনিট দশেকের মধ্যে তারা বাসায় চলে আসবে। অথচ দু’দিন হয়ে গেল এখনো আমার বোনদের খুঁজে পেলাম না।

প্রজন্মকণ্ঠ আবৃত্তি সংগঠনের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক সুমন জামান জানান, বুধবার শিল্পকলায় একুশের প্রথম প্রহর উদযাপনের অনুষ্ঠান ছিল। অনুষ্ঠান শেষ করে বাসার ফিরে যাবার সময় রাত সাড়ে ১০টার দিকে লালবাগ শাহী মসজিদ এলাকা থেকে নিখোঁজ হয় দু’জনে। মাঝে আমার সঙ্গে কথা হয়। ওরা শিল্পকলা একাডেমি থেকে রিকশায় করে যাচ্ছিল। দোয়েল চত্বর দিয়ে ঢুকতে না পেরে চানখারপুল, হোসেনি দালান ও লালবাগ মসজিদ হয়ে বাসার দিকে যাচ্ছিল তারা। দোলা ও বৃষ্টি দু’জনের মুঠোফোনের সবশেষ লোকেশন লালবাগ শাহী মসজিদ এলাকাতেই দেখাচ্ছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজের মর্গের সামনে অশ্রুসজল নয়নে বোনদের ফেরার অপেক্ষায় ভাই সাজিদ। কথা বলতে গিয়েই ঢুকরে কেঁদে উঠেন। জানান পড়াশোনা নিয়ে তেমন খুনসুটি ছিল না দু’জনের। তবে, কবিতা ও আবৃত্তি নিয়ে দোলা ও বৃষ্টি বেশ প্রতিযোগিতা করতো। অনেক সময় বাসাতেই নিজেরা অনুশীলন করতো। কোনোখানে ভুল করলে একজন আরেকজনকে বেশ ক্ষেপাতো। আর টিভিতে কারো আবৃত্তি দেখলে এক বোনকে আরেক বোনকে বলতো, একদিন দেখিস আমিও এরকম হবো…

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: