সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ১৮ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ কার্তিক ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

‘জীবন তো যোদ্ধাদের জন্যই, কিছুই আমাকে দুর্বল করতে পারে না’

স্পোর্টস ডেস্ক:: ইনজুরিপ্রবণ হিসেবে এরই মধ্যে বেশ পরিচিতি পেয়ে গিয়েছেন ব্রাজিলিয়ান তারকা ফুটবলার নেইমার জুনিয়র। মাঠের খেলায় যতোটা প্রশংসিত হন তিনি, ঠিক ততোটাই যেন খবরে পরিণত হন নিত্য নতুন ইনজুরি ও ফাউলের শিকার হয়ে।

গত মাসে ফরাসি কাপের এক ম্যাচে স্ট্রাসবুর্গের মিডফিল্ডার মোয়াতাজ জেমজেমির ক্ড়া ফাউলের শিকার হয়ে মেটাটারসালের ইনজুরিতে পড়েন নেইমার। যে কারণে এখন তার জীবন চলছে ক্রাচে ভর করে। তবে খুব দ্রুতই সেরে উঠছেন নেইমার।

নিজের সেরে ওঠার আভাসস্বরুপ দুই পায়ের ক্রাচ হাতে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি ছবি আপলোড করেছেন এ ব্রাজিলিয়ান তারকা। যেখানে তিনি জানিয়েছেন যতো যাই হোক কিছুতেই দুর্বল হন না তিনি। ছবিটির ক্যাপশনে নেইমার লিখেছেন, ‘জীবন তো যোদ্ধাদের জন্যই। কোনো কিছুই আমাকে দুর্বল করতে পারে না।’

এদিকে ইনজুরির কারণে এরই মধ্যে প্যারিস সেইন্ট জার্মেইর বেশ কিছু ম্যাচ মিস করেছেন নেইমার। খেলতে পারবেন না সবমিলিয়ে অন্তত ১২টি ম্যাচে। তবে তার রিহ্যাভ প্রক্রিয়াটা খুব দ্রুত হচ্ছেই বলে জানিয়েছেন নেইমার।

সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে নেইমার নিজের ইনজুরি সম্পর্কে বলেন, ‘ইনজুরিটা আস্তে আস্তে সেরে যাচ্ছে। এরই মধ্যে আমরা বেশ কিছু ট্রিটমেন্ট করিয়েছি। আরও কিছু চিকিৎসা চলছে। আমি চাচ্ছি যতদ্রুত সম্ভব হয় পুরোপুরি সুস্থ হওয়া যায়। যেভাবে ব্যাপারটা এগুচ্ছে তাতে আমরা বেশ সন্তুষ্ট।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি আর অপেক্ষা করতে পারছি না। নিজের সবচেয়ে পছন্দের কাজ অর্থাৎ ফুটবল খেলে থাকতে পারছি না আর। মাঠে ফিরতে অবশ্য ৮ থেকে ১০ সপ্তাহের প্রয়োজন। এটাই আশা করছি আমরা। আমি মনে করি সর্বোচ্চ ১০ সপ্তাহ লাগবে। প্রক্রিয়াটা আরও ত্বরান্বিত করার সব চেষ্টাই করা হচ্ছে।’




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: