সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ৪৪ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কদমতলীতে ‘মুক্তিযোদ্ধা চত্বর পাবলিক টয়লেট’!

ডেস্ক রিপোর্ট:: সিলেট নগরীর দক্ষিণ সুরমা এলাকার কদমতলীতে আধুনিক সুযোগ সুবিধা সম্বলিত পাবলিক টয়লেট স্থাপন করেছে সিলেট সিটি করপোরেশন। বৃহস্পতিবার সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী এ পাবলিক টয়লেট উদ্বোধন করেন।

কিন্তু এ পাবলিক টয়লেটের নাম নিয়ে ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে সমালোচনা। পাবলিক টয়লেটটির নামফলকে দেখা যায় ‘মুক্তিযোদ্ধা চত্বর পাবলিক টয়লেট’ লিখে নামকরণ করা হয়েছে। এতে অনেকেই মুক্তিযোদ্ধাদের অবমাননা করা হচ্ছে বলে সমালোচনা করছেন।

এ ব্যাপারে সংস্কৃতি কর্মী দেবজ্যোতি দেবু বলেন, মুক্তিযুদ্ধ বাংলাদেশের জন্ম ইতিহাস। মুক্তিযোদ্ধারা বাংলাদেশের জন্মের নায়ক। তাদের সম্মানের সাথে বাংলাদেশের সম্মান জড়িত। তাদের নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনার নামকরণ হওয়া আর একটা পাবলিক টয়লেটের নামকরণ হওয়া সম্পূর্ণ ভিন্ন বিষয়।

তিনি বলেন, পাবলিক টয়লেট যে জায়গায় তৈরি করা হয়েছে সেই জায়গার একটা নির্দিষ্ট নাম আছে। সেই নাম বাদ দিয়ে মুক্তিযোদ্ধা চত্বরের নাম স্মৃতিফলকে উল্লেখ করার কারণ আমার বোধগম্য হয়নি। কর্তৃপক্ষের কাছে মুক্তিযোদ্ধা শব্দটার গুরুত্ব কতখানি সেটা নিয়ে এই মুহূর্তে আমি দ্বিধান্বিত।

একইভাবে অসন্তোষ প্রকাশ করলেন নাট্যকর্মী অরূপ বাউল। তিনি বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধা চত্বর পাবলিক টয়লেট’ নাম, আসলে ব্যাপারটা একটু দৃষ্টিকটু লাগছে। পাবলিক টয়লেটের নামের আগে ‘মুক্তিযোদ্ধা’ জুড়ে দেয়ার বিষয়টি আসলেই প্রশ্নবিদ্ধ। এটা বুঝে ভুল, না হেঁয়ালিতে ভুল তা খুঁজে দেখার বিষয়। পাবলিক টয়লেটের আগে মুক্তিযোদ্ধা চত্বর না লিখে কদমতলী পাবলিক টয়লেট লেখা যেত। তিনি এ ব্যপারে নগর কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

এ ব্যপারে পরিবেশকর্মী আব্দুল করিম কিম বলেন, পাবলিক টয়লেটের নামের সাথে ‘মুক্তিযোদ্ধা চত্বর’ লাগানোর মানে কি! এটা অবশ্যই উচিৎ হয়নি। এটা অবিবেচনা প্রসূত সিদ্ধান্ত এবং ধৃষ্টতাপূর্ণ।

একইভাবে ক্ষোভ প্রকাশ করেন সচেতন নাগরিক কমিটি সিলেট’র সভাপতি জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক আজিজ আহমদ সেলিম। আলাপকালে তিনি বলেন, আমি এখনো দেখিনি, তবে ‘মুক্তিযোদ্ধা চত্বর পাবলিক টয়লেট’ লেখা হলে অবশ্যই আমার আপত্তি আছে।

তিনি বলেন, পাবলিক টয়লেটের প্রয়োজন আছে কিন্তু ‘মুক্তিযোদ্ধা চত্বর পাবলিক টয়লেট’ লেখা হবে কেন? এলাকাটি ‘কদমতলি’ নামেই পরিচিত, তাই কদমতলি পাবলিক টয়লেট নাম দিলেই তো সমাধান হয়ে যায়। এ বিষয়ে সিটি মেয়র অবশ্যই নজর দেবেন বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এ বিষয়ে জানতে সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হকের মুঠোফোনে শুক্রবার রাত সোয়া ৮ টা থেকে পৌনে ৯ টা পর্যন্ত একাধিকবার কল দেয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: