সর্বশেষ আপডেট : ৫৩ মিনিট ২৬ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

এসডিসি-সমষ্টি প্রকল্পের উদ্যোগে ল্যাট্রিন প্রস্তুতকারীদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত

এসডিসি-সমষ্টি প্রকল্প (আইডিয়া)-এর উদ্যোগে, কেয়ার বাংলাদেশ-এর সহযোগিতায় এবং এসডিসি-এর অর্থায়নে দোয়ারাবাজার উপজেলায় স্থানীয় ল্যাট্রিন উৎপাদনকারীদের জন্য স্বল্পমূল্যের ল্যাট্রিন ও ল্যাট্রিন-এর সাথে সংশ্লিষ্ট উপকরণ উৎপাদন বিষয়ক এক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত প্রশিক্ষনে উপস্থিত ছিলেন দোয়ারাবাজার উপজেলার উপ-সহকারী প্রকৌশল অফিসার মিজানুর রহমান।
দিনব্যাপি প্রশিক্ষণটি পরিচলনা করেন আইডিই এর অফিস বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসার নীলমনি সরকার। প্রকল্পের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য উপস্থাপন করতে গিয়ে প্রজেক্ট অফিসার জাহিদুল ইসলাম ভূঁইয়া বলেন, প্রতিটি কমিউনিটিতে সমষ্টি প্রকল্পের দুইজন করে সামাজ সেবক (এসসিএ) রয়েছে যারা মূলত কমিউনিটিতে প্রাথমিক স্বাস্থ্য, স্যানিটেশন ও কমিউনিটি ভিত্তিক সঞ্চয়ের প্রয়োজনীয়তা ও গুরুত্বের উপর সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকেন।
তিনি জানান, কমিউনিটি ভিত্তিক সমাজ সেবক, স্থানীয় পর্যায়ে ল্যাট্রিন উৎপাদনকারী, ডিপিএইচই ও স্যানিটেশন নিয়ে কাজ করে এমন স্টেইকহোল্ডারদের যৌথ উদ্যোগে সচেতনতামূলক কার্যক্রমের মাধ্যমে কমিউনিটি পর্যায়ে শতভাগ স্যানিটেশন নিশ্চিতকরণে কাজ করা হবে।

উপ-সহকারী প্রকৌশল অফিসার মিজানুর রহমান বলেন, সমষ্টি প্রকল্পের কমউনিটিতে উপকারভোগীদের একটি তালিকা প্রদান করা দরকার যেখানে কাদের স্বাস্থ্য সম্মত পায়খানা ক্রয়ের সামর্থ্য আছে, কারা কিস্তিতে ক্রয় করতে পারবে এবং কাদের একেবারেই ক্রয় ক্ষমতা নেই এই তিনটি ভাগে ভাগ করা হবে এবং পরবর্তীতে এই তালিকাকে সামনে রেখে সচেতনতামূলক কার্যক্রম বাস্তাবায়ন করা হবে। তিনি আরো বলেন, এখানে প্রধান ভ‚মিকা পালন করবে সমষ্টি প্রকল্পের সমাজ সেবক (এসসিএ) এবং স্থানীয় পর্যায়ে ল্যাট্রিন উৎপাদনকারী।

আইডিই এর অফিস বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসার নীলমনি সরকার বলেন, কমিউনিটি ভিত্তিক শতভাগ স্যানিটেশন নিশ্চিত করতে হলে স্বল্পমূল্যে স্বাস্থ্যসম্মত ল্যাট্রিন তৈরি করার পাশাপাশি কমিউনিটির চাহিদার ভিত্তিতে কমিউনিটিতে উপকরণ নিয়ে গিয়ে সেখানেই তৈরি করে দিতে হবে এতে উপকারভোগীদের যাতায়ত খরচ কম হবে।
তিনি আরও বলেন, যদি সম্ভব হয় স্থানীয় ল্যাট্রিন উৎপাদনকারীরা সাব-সেন্টার তৈরি করে সেখান থেকে উপকরণ সরবারহ করতে পারে এর ফলে উপকারভোগীদের ক্রয়ের আগ্রহ বৃদ্ধি পাবে। স্থানীয় ল্যাট্রিন উৎপাদনকারী তাজুল ইসলাম বলেন, সমষ্টি প্রকল্প, ডিপিএইচই, সমাজসেবক, আইডিই ও স্থানীয় ল্যাট্রিন উৎপাদনকারীদের নিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে আলোচনা সাপেক্ষে যৌথভাবে কার্যক্রমটি বাস্তাবায়ন করলে ভালো ফলাফল আসবে।

প্রশিক্ষণে আরও উপস্থিত ছিলেন, প্রনতি রানী দাস, ইদ্রিস আলী, খোরশেদ আলম ও সুজিত কুমার দাস প্রমূখ। বিজ্ঞপ্তি




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: