সর্বশেষ আপডেট : ১৬ মিনিট ৫৫ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ ফাল্গুন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

মায়ের মরদেহ সাইকেলে করে পোড়াতে গেলো ছেলে

নিউজ ডেস্ক:: প্রতিবেশীরা সাহায্যে এগিয়ে এলো না কেউই। তাই বাধ্য হয়ে মৃত মাকে দাহ করার জন্য নিজেই বের হয়ে পড়লো কিশোর ছেলে।সাইকেলে করে মায়ের মরদেহ বাড়ি থেকে চার পাঁচ কিলোমিটার দুরের জঙ্গলে একাই নিয়ে গিয়ে সৎকার করলো ছেলে। মর্মান্তিক এই ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের উড়িষ্যা রাজ্যের সন্দরগড় এলাকায়।

জানা গিয়েছে মা জানকী সিংহানিয়ার সঙ্গে থাকতেন একমাত্র ছেলে বছর পনেরোর সরোজ সিংহানিয়া। ছোটবেলায় বাবাকে হারানোর পর মাকে ঘিরেই গড়ে ওঠে সরোজের পৃথিবী। মা জানকী সিংহানিয়া বহু বছর ধরে সংসার চালাতেন। ছেলেকে একা হাতেই মানুষ করছিলেন তিনি। সরোজ ও জানকী, মা ছেলের ছোট্ট সংসার।

বৃহস্পতিবার সকালে কুয়োয় জল তুলতে গিয়ে আচমকা অজ্ঞান হয়ে যান জানকীদেবী। ঘটনাস্থলেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় তার।মায়ের মৃত্যুতে প্রথমে দিশেহারা হয়ে যায় সরোজ। কিন্তু দেহ তো ফেলে রাখা যাবে না। ধর্মীয় অনুশাসন মেনে সৎকার করতে হবে। কিন্তু চাষবাস করে দিন গুজরান করা সরোজের হাতে মায়ের সত্কারের টাকাটুকুও ছিল না। তাই হাত পেতেছিলেন প্রতিবেশীদের কাছে। কিন্ত ‘ছোট জাত’ বলে কেউ তাকে সাহায্য করেনি। একজন প্রতিবেশীও সরোজের দুঃসময়ে এগিয়ে আসেনি।

তখন সাইকেলের সিটের ঠিক পিছনে দু’পাশে লম্বালম্বি দু’টো বাঁশ বেঁধে মাচা তৈরি করে নেয় সে। মাকে সেখানে শুইয়ে দেয়। এরপর চোখের জল মুছে সাইকেলে ঠেলতে শুরু করে। রোদের মধ্যে এভাবে সাইকেল ঠেলে প্রায় চার-পাঁচ কিলোমিটার দূরের জঙ্গলে আসে সে। এরপর সেখানকার শশ্মানে মাকে দাহ করে শূন্য ঘরে ফিরে আসে ছেলেটি।

এই ঘটনা ভারতের বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর আলোড়ন তৈরি হয়েছে। সরোজের সাইকেলে করে মায়ের মরদেহ বয়ে নেয়ার ছবিটি ভাইরাল হয়েছে সামাজিক মাধ্যমেও।




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: