সর্বশেষ আপডেট : ৫০ মিনিট ৪৬ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

৩ দিনে ৭ বার যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন পাকিস্তানের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: গুলি বিনিময়ের কারণে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে কাশ্মির উপত্যকা। ফের ভারতীয় জওয়ানদের লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছে পাক সেনারা। এ নিয়ে তিন দিনে সাতবার যুদ্ধবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করেছে তারা। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে জম্মু ও কাশ্মিরের পুঞ্চ সেক্টরে ভারতীয় সেনাদের উপর গুলি চালানো শুরু হয়। পাল্টা জবাব দিতে শুরু করেন জওয়ানরাও।

বুধবার নিয়ন্ত্রণরেখার ওপার থেকে ভারতের দিকে মর্টার শেল ছোঁড়ে পাকিস্তান। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে এই খবর জানানো হয়েছে। পুঞ্চের গুলপুর ও খাদি কারমরা সেনা ছাউনিকে লক্ষ্য করে গুলি চালাতে শুরু করে পাকিস্তানি সেনারা।

বুধবার সকাল নয়টা থেকে টানা গুলি চালাতে শুরু করে তারা। ছোট ও বড় অস্ত্র নিয়ে তারা হামলা চালায়। পাণ্টা জবাব দেয় ভারতও। লড়াই তারপর থেকে ক্রমাগত চলছে। মাঝেমধ্যে থামলেও পাকিস্তানের দিক থেকে ধেয়ে আসছে বুলেট।

গত এক সপ্তাহ ধরে কাশ্মিরের মানকোট, খাদি কারমরা ও গুলপুর এলাকায় সেনা ছাউনি লক্ষ্য করে গুলি চালাচ্ছে পাকিস্তান। নদার্ন কম্যান্ড চিফ লেফট্যানেন্ট রণবীর সিং সোমবার জানান, জম্মু ও কাশ্মিরের একাধিক এলাকায় সেনা ছাউনি লক্ষ্য করে গুলি চালাচ্ছে পাকিস্তান। তাই বিভিন্ন এলাকায় নজরদারি চলছে। নিরাপত্তার বজায় রাখতে মাঝামধ্যেই সীমান্ত সংলগ্ন এলাকায় টহল দিচ্ছে সেনাবাহিনী। নজর রাখা হচ্ছে জম্মু ও রাজৌরি জেলার উপর।

২০০৩ সালে ভারতের সঙ্গে সংঘর্ষবিরতি চুক্তি সই করে পাকিস্তান। কিন্তু তারপর বহুবার পাকিস্তান সেই চুক্তি ভেঙেছে। এ বছরই প্রায় ২ হাজার ৯৩৬ বার সেই চুক্তি ভেঙে ভারতীয় সেনার উপর গুলি চালায় পাকিস্তান। গত ১৫ বছরে এ বছরই সবচেয়ে বেশি যুদ্ধবিরতি চুক্তি লঙ্ঘন হয়েছে।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: