সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ১৬ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছাতকে বোরো আবাদে মাঠে চাষিরা

জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, ছাতক:: ছাতকে আমন ধান তোলা ইতি মধ্য‌ে শেষ হয়েছে। এখানে আমনের ধান তোলা শেষ হতে না হতে আবারো বোরো আবাদে মাঠে নেমেছেন চাষিরা। বিগত বোরো ও আমন মৌসমে ধানের বাম্পার ফলন ঘরে তোলায় এবার বেশ ফুরফুরে মেজাজ নিয়ে বোরো আবাদে মাঠে ব্যস্ত সময় পার করছেন স্থানীয় কৃষকরা। তবে বেশ কয়েকটি হাওরে সেচ ও পানি সংকটের কারনে বোরো আবাধ নিয়ে এখনো অনিশ্চয়তার মধ্য‌ে রয়েছেন বলে জানিয়েছেন একাধিক কৃষক।

কৃষি অফিস সুত্র জানায়, উপজেলা ১৩টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত এ উপজেলায় চলতি মৌসুমে ১৪ হাজার ৭শ’৫০ হেক্টর জমিতে বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এবং বোরো বীজতলা করা হয়েছে ৭শ’৫৬ হেক্টর জমিতে।

সরজমিনে উপজেলার বিভিন্ন হাওর-বিল ঘুরে দেখা যায়, কনকনে শীত উপেক্ষা করে কাকডাকা ভোরে কৃষি সরঞ্জাম হাতে নিয়ে মাঠে বেরিয়ে পড়ছেন কৃষকরা। ছুটে চলছেন নিজ নিজ জমিতে। এর পর কাদায় মাখানো ছিপ ছিপ পানি ভেজানো মাটি থেকে আলতোভাবে টেনে জমি থেকে চারা তোলা, পাওয়ার টিলার ও বলদের সাহায্যে হালচাষ, দল বেঁধে ধানের চারা রোপন, রাসায়নিক সার প্রয়োগসহ জমিতে সোনালী ফসল ফলাতে কৃষকরা নানা কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

কৃষকরা জানিয়েছেন, এবার বর্ষা মৌসুমে বৃষ্টিপাত কম হওয়ায় অধিকাংশ হাওর ও বিলে পানি ধরে রাখা যায়নি। ফলে চাষাবাদের জন্য রয়েছে ব্যাপক পানি সংকট। পানি সমস্যা সমাধানে অধিকাংশ এলাকায় এখন পর্যন্ত সেচের ব্যবস্থাও হয়ে উঠেনি বলে জানান চাষিরা।

সিংচাপইড় ইউনিয়নের কৃষক সোলেমান আহমদ জানান, বিগত বোরো ও আমন মৌসুমে ধানের বাম্পার ফলন হওয়ায় এবার তিনি ১৫ থেকে ১৬ কেয়ার (বিঘা) জমিতে ধান আবাদ করছেন। তারই লক্ষে তিনি আমন মৌসুমে তোলা ধান বিক্রি ও ধারকর্জ করে পয়সা জমিয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, বিগত কয়েক মৌসুমে নানা ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারনে এখানকার কৃষকরা বোরো আবাদে কিছুটা পিছিয়ে পড়েছিলেন। তবে গত বোরো মৌসুমে বাম্পার ফলন হওয়ায় এখানকার কৃষকরা আবারও বোরো আবাদে মাঠে কোমরবেঁধে নেমেছেন।

সোনারতাল হাওরসহ বিভিন্ন হাওরে পানি ও সেচ সমস্যার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, বর্তমান কৃষিবান্ধব সরকার কৃষি ও কৃষকের উন্নয়নে বিভিন্ন সময়ে নানা ধরনের উদ্যোগ গ্রহন করেছে। অন্যান্য সময়ের মতো এবারও এখানকার পানি সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসলে এবার বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে তিনি দাবী করেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কেএম বদরুল হক জানান, এখানকার কৃষকরা গত বছর ফসলের ভাল ফলন ও দাম পেয়েছেন। তাই চলতি মৌসুমে অনেকটা আগেভাগেই বোরো চাষে পুরো প্রস্ততি নিয়ে মাঠে নেমেছেন। ইতোমধ্যে লক্ষ্যমাত্রার প্রায় ৩০ শতাংশ জমিতে ধানের চারা লাগানো শেষ হয়েছে। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: