সর্বশেষ আপডেট : ১০ মিনিট ২ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

১৯৭৩ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত সিলেট-১ আসনে কর্নধার ছিলেন যারা

আ.ফ.ম. সাঈদ ::
বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের আজ একাদশ নির্বাচন। এর আগে ১০টি সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সিলেট অঞ্চলে তথা বর্তমান সিলেট বিভাগে ১৯৭৩ সাল পর্যন্ত ২১টি সংসদীয় আসন ছিল। ১৯৭৯ সালে সিলেট অঞ্চলে নির্বাচনি আসন ছিল ২০টি এবং ১৯৮৬ সালে ১৯টি আসন করা হয়। পাকিস্তান আমলে ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনেও সিলেট অঞ্চলে ২১টি নির্বাচনি আসন ছিল।

বর্তমান সিলেট-১ আসন ১৯৭৩ সালে প্রথম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় ছিল সিলেট-৮। এলাকা ছিল সিলেট সদর ও সদর উত্তর (বর্তমান কোম্পানীগঞ্জ)। ১৯৭৩ সালের ৩ মার্চ অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী দেওয়ান ফরিদ গাজী ৩৩ হাজার ৫৩৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী ডা. আব্দুল মালিক পেয়েছিলেন ১৮ হাজার ৬৮২ ভোট এবং ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ)-এর প্রার্থী পীর হবিবুর রহমান পান ৮ হাজার ১৬৯ ভোট।

১৯৭৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও সিলেট-১ আসন ছিল সিলেট-৮। নির্বাচনি এলাকা ছিল ১৯৭৩ সালের অনুরূপ। এই নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী খন্দকার আব্দুল মালিক ৩১ হাজার ৮১২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের প্রার্থী সাবেক পৌর চেয়ারম্যান বাবরুল হোসেন বাবুল নৌকা প্রতীক নিয়ে ২১ হাজার ৪১৩ ভোট পান। আওয়ামী লীগ (মিজান)-এর প্রার্থী দেওয়ান ফরিদ গাজী মই প্রতীকে ৫ হাজার ৬৫৩ ভোট পান।

১৯৮৬ সালের ৭ মে অনুষ্ঠিত তৃতীয় জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পূর্বে সিলেট সদর উত্তর ও তৎকালে নবগঠিত কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নিয়ে গঠন করা হয় সিলেট-১ নির্বাচনি এলাকা। এই নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী ৩৯ হাজার ৭৯৩ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। স্বতন্ত্র প্রার্থী বাবরুল হোসেন বাবুল ১৯ হাজার ১২৯ ভোট এবং আওয়ামী লীগের আব্দুস সামাদ আজাদ ১৭ হাজার ৯৪১ ভোট পেয়েছিলেন।

চতুর্থ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ১৯৮৮ সালের ৩ মার্চ অনুষ্ঠিত হয়। আওয়ামী লীগ ও বিএনপিসহ পরিচিত রাজনৈতিক দলগুলো এই নির্বাচন বর্জন করে। এই নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী সিলেট-১ আসনে পুনরায় এমপি নির্বাচিত হন।

জাতীয় সংসদের পঞ্চম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৯১ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি। এই নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী খন্দকার আব্দুল মালিক সিলেট-১ আসনে ৩৭ হাজার ৭৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মুক্তিযোদ্ধা ইফতেখার হোসেন শামীম পান ৩৫ হাজার ৪৬২ ভোট এবং জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থী ডা. শফিকুর রহমান ১৭ হাজার ৫০৮ ভোট পান।

১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হয় ষষ্ঠ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এই নির্বাচন আওয়ামী লীগ, জাতীয় পার্টি ও জামায়াতে ইসলামীসহ পরিচিত রাজনৈতিক দলগুলো বর্জন করে। নির্বাচনে সিলেট-১ আসনে বিএনপির প্রার্থী খন্দকার আব্দুল মালিক এমপি নির্বাচিত হন।

সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ১৯৯৬ সালের ১২ জুন। এই নির্বাচনে সিলেট-১ আসনে বিজয়ী হন আওয়ামী লীগ প্রার্থী হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী। তিনি ৫৯ হাজার ৭১০ ভোট পান এবং তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী এম. সাইফুর রহমান পান ৫৮ হাজার ৯৯০ ভোট। জাতীয় পার্টির বাবরুল হোসেন বাবুল ৪০ হাজার ১৭৫ এবং জামায়াতে ইসলামীর প্রার্থী ডা. শফিকুর রহমান ১৮ হাজার ২৯ ভোট পেয়েছিলেন।

২০০১ সালের পয়লা অক্টোবর অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেবার সিলেট-১ আসনে বিএনপির প্রার্থী এম. সাইফুর রহমান ১ লাখ ৩৩ হাজার ৮২৭ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের আবুল মাল আবদুল মুহিত ৯৫ হাজার ৮৯ ভোট পেয়েছিলেন। জাতীয় পার্টির প্রার্থী আব্দুল মুকিত খান পেয়েছিলেন ১৭ হাজার ৯০ ভোট।

২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই নির্বাচনের পূর্বে সিলেট-১ আসন থেকে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলাকে বাদ দিয়ে সংযুক্ত করা হয় সিলেট-৪ আসনে। সিলেট সিটি কর্পোরেশন ও সিলেট সদর উপজেলা নিয়ে গঠিত সিলেট-১ আসনে এই নির্বাচনে ১ লাখ ৭৮ হাজার ৬৩৬ ভোট পেয়ে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আবুল মাল আবদুল মুহিত বিজয়ী হন এবং তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির প্রার্থী এম. সাইফুর রহমান পান ১ লাখ ৪০ হাজার ৩৬৭ ভোট। অপর দুই প্রার্থী খেলাফত আন্দোলনের মাওলানা নাসির উদ্দিন ৮২২ ভোট এবং বাসদের প্রার্থী উজ্জল রায় ৬৬০ ভোট পেয়েছিলেন।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এই নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আবুল মাল আবদুল মুহিত সিলেট-১ আসনে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন।

আজ অনুষ্ঠতব্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-১ আসনের নির্বাচনি এলাকা অপরিবর্তিত রয়েছে। তবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নতুন মুখকে প্রার্থী করেছে। জামায়াতে ইসলামী কোনো প্রার্থী দেয়নি। ২০০৮ সালে সিলেট-১ আসনে জাতীয় পার্টির কোনো প্রার্থী ছিল না। তবে এবার জাতীয় পার্টির হয়ে ভোটের মাঠে লড়ছেন মাহবুবুর রহমান চৌধুরী। খেলাফত আন্দোলন ও বাসদের এবারের দুই প্রার্থী ২০০৮ সালের নির্বাচনেও প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন।




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: