সর্বশেষ আপডেট : ৩২ মিনিট ২৩ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ট্রাম্পের আকস্মিক সফরকে ঘিরে ইরাকে নিন্দার ঝড়

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বুধবার আকস্মিক ইরাক সফরে গিয়েছিলেন।সঙ্গে ছিলেন তার স্ত্রী মেলানিয়াও।প্রেসিডেন্ট হিসেবে ইরাকের combat zone এ এটিই তার প্রথম সফর।এ সফরে তিনি ইরাকের কোনো রাজনৈতিক বা সামরিক নেতার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেননি।এমনকি আনুষ্ঠানিভাবে তাদের এ সফরের বিষয়টি জানানোরও প্রয়োজন বোধ করেননি।ফলে তার এ সফরকে ঘিরে নিন্দায় মুখর হয়েছেন ইরাকি নেতারা। তারা ট্রাম্পের এ সফরকে ইরাকের সার্বভৌমত্বের লঙ্ঘণ হিসেবে দেখছেন।

বুধবার স্থানীয় সময় সন্ধ্যা সোয়া সাতটার দিকে পশ্চিম ইরাকের আইন আল আসাদ বিমানঘাঁটিতে অবতরণ করে ট্রাম্প ও মেলানিয়াকে বহনকারী বিমানটি।সেখানে ট্রাম্প মার্কিন বিশেষ বাহিনীর সেনা সদস্য সাক্ষাৎ করেন এবং সন্ত্রাস বিরোধী লড়াইয়ে ভূমিকা রাখার জন্য তাদের ধন্যবাদ জানান।এছাড়া তিনি সামরিক নেতাদের সঙ্গে আলাদা করে কথা বলেন।ওই ঘাঁটিতে কয়েক ঘণ্টা কাটানোর পর তিনি দেশে ফিরে আসেন।

এর আগে ইরাকের প্রধানমন্ত্রী আল আবদেল মাহদির সঙ্গে তার নির্ধারিত বৈঠকটি বাতিল করা হয়।এ সম্পর্কে ইরাকি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে জানানো হয়েছে, ট্রাম্প বৈঠকের ভেন্যু পরিবর্তন করে এটি আইন আল আসাদ ঘাঁটিতে করার কথা বলেছিলেন। কিন্তু তার প্রস্তাবে রাজি হননি প্রধানমন্ত্রী আদেল আবদুল মাহদি। ফলে বৈঠকটি বাতিল হয়ে যায়।

তবে হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র সারা স্যান্ডার্স বলেন, combat zone থেকে ইরাকি প্রধানমন্ত্রী মাহাদির সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন ট্রাম্প। তিনি তাকে ওয়াশিংটন সফরের আমন্ত্রণ জানালে ইরাকি প্রধানমন্ত্রী এ আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন।

তবে ট্রাম্পের এ সফরকে ইরাকের সার্বভৌমত্বের ওপর হস্তক্ষেপ বলে বর্ণনা করেছেন পার্লামেন্টের বিরোধী দলীয় নেতা সাবাহ আল সাদি। তিনি বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের এ ধরনের আগ্রাসী তৎপরতা বন্ধ করা উচিত। আর নিজের সীমা সম্পর্কে ধারণা থাকা উচিত ট্রাম্পের। কেননা ইরাকে মার্কিন দখলদারিত্ব শেষ হয়েছে।’

এ নিয়ে আলোচনা করার জন্য তিনি পার্লামেন্টের জরুরি বৈঠক ডেকেছেন।সাবেক সামরিক বাহিনী নেতা ও রাজনীতিবিদ ফালহ খাজালি বলেন, ‘আমেরিকার নেতারা ইরাকে একবার পরাজিত হয়েছে। এখন তারা ফের এখানে আসতে চাইছে। কিন্তু আমরা কখনও এটা হতে দেব না।’

পার্লামেন্টের ইরান ব্লকের নেতা হাদি আল আমিরি বলেন, ‘ট্রামের এ সফর কূটনৈতিক শিষ্টাচারের সুস্পষ্ট ও স্পষ্ট লঙ্ঘন এবং ইরাকি সরকারের সাথে তার আচরণ শত্রতামূলক।’

ইরানপন্থী নেতা কাজী আল খাজালি টুইটারে ট্রাম্পেকে লক্ষ্য করে বলেন, ‘আমরা মার্কিন সেনাদের বিতাড়িত করার মাধ্যমে ট্রাম্পের এই অপমানের জবার দেব। তারা যেতে না চাইলে, তাদের কীভাবে তাড়াতে হয় সেটি আমাদের জানা আছে।’এদিকে ট্রাম্পের এই সফর নিয়ে সাধারণ ইরাকিদের মধ্যে উদ্বেগ ছড়েয় পড়েছে।

সূত্র: রয়টার্স, আর জাজিরা




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: