সর্বশেষ আপডেট : ১৯ মিনিট ২৩ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আজ খালেদা-এরশাদের ‘ভাগ্য’ নির্ধারণ

নিউজ ডেস্ক:: একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া অংশ নিতে পারবেন কিনা তা নির্ধারণ করবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। আপিলে খালেদা জিয়ার আবেদন মঞ্জুর হলে তিনি সংসদ নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করতে পারবেন। কারাগারে থাকায় আপিল আবেদনের শুনানিতে অংশ নিতে পারবেন না সাবেক প্রধানমন্ত্রী। তবে তার আইনজীবীরা শুনানিতে অংশ নেবেন। আইনজীবীরা আশা করেন, নির্বাচন কমিশন স্বচ্ছ মনোভাব দেখালে প্রার্থিতা ফিরে পাবেন খালেদা জিয়া। তবে, ইসির আপিলে আবেদন নামঞ্জুর হলেও তিনি উচ্চ আদালতে পুনরায় আপিলের সুযোগ পাবেন।

শনিবার সকাল ১০টায় রাজধানীর আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাতিলের বিরুদ্ধে আপিল শুনানি শুরু হবে।খালেদা জিয়া ছাড়াও শুনানিতে অংশ নেবেন হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, সাবেক মন্ত্রী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা, বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী ও মির্জা আব্বাস। শনিবার নির্বাচন কমিশনে (ইসি) শুনানির পর তারা নির্বাচন করতে পারবে কিনা তা জানা যাবে।

৫৪৩টি আপিল আবেদনের মধ্যে বৃহস্পতি ও শুক্রবার মোট ৩১০টির শুনানি হয়েছে। শনিবার ২৩৩ আবেদনের শুনানি করবে হবে। এক্ষেত্রে ফেনী-১, বগুড়া-৬ ও ৭ আসনের বিএনপির প্রার্থী দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, টাঙ্গাইল-৪ ও ৮ আসনের প্রার্থী কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, রংপুর-৩ আসনের প্রার্থী জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ, ঢাকা-৮ আসনের প্রার্থী বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, ঢাকা-১৭ আসনের প্রার্থী ব্যারিস্টার নাজমুল হুদাকে নিয়ে শুনানি করবে ইসি।

এদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপাসন খালেদা জিয়া, ও বিএনপির সাবেক ভাইস-চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার নাজমুল হুদা, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকী প্রার্থিতা ফিরে পেতে আপিল আবেদন করেছেন। অন্যদিকে মির্জা আব্বাসের মনোনয়নপত্র বাতিলের জন্য আবেদন করেছে সমাজকল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। আর জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের মনোনয়নপত্র বাতিলের আবেদন করেছেন সাব্বির আহম্মেদ নামে প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক দলের এক প্রার্থী।

গত দুই ডিসেম্বর খালেদা জিয়ার মনোনয়নপত্র মামলায় দুই বছরের অধিক সাজাপ্রাপ্ত হওয়ার কারণ দেখিয়ে এবং কাদের সিদ্দিকীকে ঋণ খেলাপের কারণ দেখিয়ে মনোনয়নপত্র বাতিল করেন রিটার্নিং কর্মকর্তারা। আর স্বতন্ত্র বা দলীয় প্রার্থী কোনো কিছুই উল্লেখ না করার কারণ দেখিয়ে ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার মনোনয়নপত্র বাতিল করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

২ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে ২ হাজার ২৭৯টি মনোনয়নপত্র বৈধ ও ৭৮৬টি অবৈধ বলে ঘোষণা করেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তারা। এগুলোর মধ্যে বিএনপির ১৪১টি, আওয়ামী লীগের ৩টি এবং জাতীয় পার্টির ৩৮টি মনোনয়নপত্র বাতিল হয়। স্বতন্ত্র প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে ৩৮৪টি। ৩৯টি দল ও স্বতন্ত্র প্রার্থী মিলে এবার ৩০৬৫টি মনোনয়নপত্র জমা পড়েছিল। এর মধ্যে দলীয় মনোনয়নপত্র জমা পড়ে মোট ২ হাজার ৫৬৭টি ও স্বতন্ত্র ৪৯৮টি।

দু’দিনে ৩১০টি আপিল আবেদনের শুনানিতে মোট ১৫৮ প্রার্থী তাদের প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন। এর মধ্যে বিএনপির ৫৯ জন ও আওয়ামী লীগের দু’জন প্রার্থী প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন। ৯ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষদিন। ১০ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ। আর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ৩০ ডিসেম্বর। প্রথম দিন বুধবার ১৬০ জনের শুনানিতে ৮০ জন প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন। এরমধ্যে বিএনপির ৩৮ জন। ৭৬ জনের আবেদন নামঞ্জুর হয়েছে। ৪ জনের আবেদন স্থগিত রয়েছে। শনিবার শুনানি শেষ হবে।




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: