সর্বশেষ আপডেট : ৩৫ মিনিট ১২ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

দক্ষিণ সুনামগঞ্জে খেতাশার উরুস ও মেলা: মদ-জুয়ার আসর ,প্রকাশ্যে চাঁদাবাজি

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি :: রবিবার শুরু হচ্ছে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলার পূর্ব বীরগাঁও ইউনিয়নে খেতাশার উরুস ও মেলার আসর। মেলার পূর্বে মদ ও জুয়ার আসর বসানোর নামে চলছে প্রকাশ্যে চাঁদাবাজি। বিশাল মাঠ জুড়ে জুয়ার আসর বসানোর জন্য ছোট ছোট খুপড়ি ঘর তৈরী করা হয়েছে এবং জুড়য়ারীতের আপ্যায়নের জন্য দোকানীদের প্যান্ডেল বসানো হয়েছে।একাধিক স্থানে টানানো হয়েছে গানের আসরের ছামিয়ানা। নির্বাচনকালীন সময়ে বৃহৎ জনসমাগমের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখাচ্ছেন উরুস ও মেলার আয়োজকরা। প্রশাসনে কোন অনুমতি ছাড়াই চলছে উরুস ও মেলার মহরা। প্রশাসনিক অনুমতি ছাড়া উরুস ও মেলা প্রাঙ্গনে বৃহত জমায়েত হলে আইনশৃংখলার অবস্থার অবনতি হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন স্থানীয় এলাকাবাসী।

স্থানীয়রা জানান,উরুসকে কেন্দ্র করে মেলার আশেপাশে বসে কয়েক শতাধিক মাদকসেবীদের আস্তানা। তারা সেখানে প্রকাশ্যেই মাদকদ্রব্য গ্রহণ করে থাকেন। স্থানীয় মাদক ব্যবসায়িরা এই দিন বাহির থেকে আমদানী করেন মদ গাঁজা সহ বিভিন্ন প্রকারের মাদক দ্রব্য। উঠতি বয়সি তরুণ ও মাদকসেবীরা উন্মুক্তভাবে গ্রহণ করেন এসব মাদক দ্রব্য। উরুসকে কেন্দ্র করে যে মেলা বসে সেখানে চলে সিন্ডিকেটকারীদের অর্থ বাণিজ্য। মেলার মাঠ (জুয়ার তলা) উচ্চ মূল্যে বিক্রি করা হয় দোকানীদের কাছে। প্রতিটি ছোট ছোট খুপড়ি ঘর জায়গা বিক্রি হয় পাঁচ শত টাকা থেকে শুরু করে হাজার টাকায়। মেলা থেকে অর্জিত লক্ষ লক্ষ টাকা মাজার উন্নয়নে ব্যয় না হয়ে একদল মাজারপুজারী সিন্ডিকেটকারীদের পকেটস্থ হয় বলে জানান নাম প্রকাশে অনিচ্ছক স্থানীয় লোকজন।

ৱজানা যায়, মেলা প্রাঙ্গনে বিভিন্ন স্থান থেকে জমায়েত হন হাজার হাজার ভক্ত নারী পুরুষ। প্রতি বৎসরই বখাটেরা মেলায় আগত নারীদের উক্তত্য করতে দেখা যায়। এলাকার উশৃংখল দাঙ্গাবাজ লোকেরা পূর্ব বিরোধের প্রতিশোধ নিতে মেলার স্থলকে বেচে নেন। প্রতিবছর মেলা প্রাঙ্গনে ছোটবড় অনেক দূর্ঘটনা ঘটতে দেখা যায় বলে জানান স্থানীয়রা। যার রেশ আদালত পর্যন্ত গিয়ে টেকে। তাছাড়া মেলা প্রাঙ্গনে রিং,কড়ি,তাশসহ বিভিন্ন জোয়ার আসর বসে। যেখানে এলাকার যুবক ও জোয়ারিরা টাকা দিয়ে খেলে থাকেন।
এদিকে উরুসের নামে এমন কর্মকান্ডকে মেনে নিকে পারছেন না এলাকার ধর্মপ্রান সচেতন মহল। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে এনিয়ে বিভিন্ন প্রুতিক্রিয়া দেখাতে দেখা যায় অনেককেই। তবে যারা উরুসে বিরোধিতা করে তাদের বিভিন্ন ভাবে হুমকিধুমকি দিয়ে ধমিয়ে রাখার চেষ্ঠা করে উরুস আয়োজন কমিটি ও একটি প্রভাবশালী সিন্ডিকেট মহল।
উরুসের নামে এমন অসামাজিক কাজ বন্ধে প্রশাসনকে উদ্যোগী ভূমিকা রাখতে অনুরোধ জানিয়েছেন এলাকার ধর্মপ্রাণ সতেনমল।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শর্তে একাধিক ব্যক্তি অভিযোগ করে বলেন, উরুসে নামে প্রতিবছর বার্ণিজ্য করে থাকেন একটি মহল। মেলা প্রাঙ্গনে মানুষের কাছ থেকে জুলুম করে টাকা আদায় করা হয়। মাজারের আশে পাশে মাদকসেবীদের মহরা চলে। এতে এলাকার যুব সমাজ নষ্ট হচ্ছে। তাছাড়া প্রতিবছর মেলায় মারামারি হয়ে থাকে। যার জন্য এলাকার শান্তি শৃংখলা নষ্ট হয়।

মেলা আয়োজক কমিটির সদস্য টিপু সুলতান বলেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে অনুমতির আবেদন করেছি। তিনি মৌখিক অনুমতি দিয়েছেন।
এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ থানার ওসি ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, উরুস ও মেলার ব্যবপারে আমি কিছু জানি না। আমাদের কোন অনুমতি নেয়া হয়নি। অনুমতি ছাড়া কোন উরুস ও মেলা হলে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এ ব্যাপারে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সফি উল্লাহ বলেন, উরুস’র ব্যাপারে মাজারের লোকজন আমার কাছে মূখিক ভাবে জানিয়েছেন। কিন্তু আমি তাদেরকে ডিসি স্যারের কাছ থেকে অনুমোতি নিয়ে উরুস করার জন্য বলেছি।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: