সর্বশেষ আপডেট : ২৯ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ১৭ জানুয়ারী ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ: জাল তালাকনামার মাধ্যমে সংসার ভাঙার ষড়যন্ত্র করছে একটি মহল

জাল তালাকনামা সম্পাদনের মাধ্যমে সংসার ভাঙার ষড়যন্ত্রে একটি মহল লিপ্ত রয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বালাগঞ্জ থানার দেওয়ানবাজার ইউনিয়নের সুলতানপুর গ্রামের মৃত চান মিয়ার ছেলে ছালেহ আহমদ। তার অভিযোগ, ‘সমাজে অসংখ্য দুষ্টুচক্র আছে যারা বন্ধুবেশে আশেপাশে ঘুরে বেড়ায়। আবার সুযোগ পেলে ক্ষতিসাধন করে। এরকম এক ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছেন তিনি।’

বৃহস্পতিবার সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা তুলে ধরেন তিনি। লিখিত বক্তব্যে ছালেহ আহমদ বলেন, ‘২০১৭ সালের ২৫ জুলাই ছাতক উপজেলার নয়ারাজারগাঁও গ্রামের মিয়াজান আলীর কন্যা যুক্তরাজ্যে স্থায়ীভাবে বসবসারত ফাতেমা বেগম রুনির সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বিবাহের পর থেকেই তাদের সংসার ভালোই চলছিল। কিন্তু তাদের পরিচিত শাহ লোকমান আলী ও আব্দুল মুকিত চৌধুরী রাজা নামের দুই ব্যক্তির বিশ্বাসঘাতকের কারণে সংসার তছনছ হয়ে গেছে।’
সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘সম্প্রতি লোকমানসহ কয়েকজন তাকে অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে স্ত্রীকে তালাক দিতে চাপ দেয়। আমি রাজি না হলে আমাকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে তারা চলে যায়। সবশেষ গত ১৬ অক্টোবর ডাক মারফতে আমি একটি খাম পাই। এই খামটি খুলে তিনি হতভম্ব হয়ে পড়ি। তাতে রুনি কর্তৃক আমাকে একটি তালাকনামার নোটিশ ফরম এবং লোকমান ও রুনির মধ্যে সম্পাদিত একটি নিকাহনামার কপি পাই।’

তিনি বলেন, পরবর্তীতে আমি এর সত্যতা জানতে গিয়ে সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে যোগাযোগ করি। তাতে জানতে পারি সিলেট নগরীর ১২ নম্বর ওয়ার্ডের নিকাহ রেজিস্ট্রার মাজেদ খান হেলালীর অফিসে গত ১০ অক্টোবর তালাকনামা ও ১২ অক্টোবর নিকাহনামা সম্পাদিত হয়। অথচ উল্লেখিত তারিখগুলোতে আমার স্ত্রী আমার বসতবাড়িতেই ছিলেন। ফলে সমুদয় কাগজপত্র আমার কাছে জাল এবং পরষ্পর যোগসাজশে তৈরি বলে মনে হয়েছে এবং এটি আমার সংসার ভাঙ্গার অন্যতম ষড়যন্ত্র বলে মনে হচ্ছে। এ ব্যাপারে জালিয়াত চক্রের বিরুদ্ধে সিলেটের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ৫ম আদালতে গত ২৫ নভেম্বর একটি মামলা দায়ের করেছি। যা বর্তমানে তদন্তাধীন ও বিচারাধীন আছে। মামলায় শাহ লোকমান আলী ছাড়াও ফাতেমা বেগম রুনি, সৈয়দ ছানী আহমদ, মামুন হোসেন, আব্দুল মুকিত চৌধুরী রাজা, আব্দুল মনাফ, সেলিম মিয়া ও মাজেদ খান হেলালী উরফে এমকে হেলালীকে আসামি করেছি।’

তিনি সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থার কাছে ভলিয়ম নম্বর ০১ (ঘ/১৭ সিরিয়াল নম্বর ৫৮ পৃষ্ঠা নম্বর ৫৮, তারিখ ১২/১০/২০১৮) এই নিকাহনামাটির তদন্তপূর্বক জালিয়াত চক্রের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ গ্রহণের দাবি জানান।  – বিজ্ঞপ্তি




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: