সর্বশেষ আপডেট : ২৬ মিনিট ১২ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩০ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বড়লেখায় হুইপের আশ্বাসে মঙ্গলবার ক্লাসে ফিরছে শিক্ষার্থীরা

বড়লেখা প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের বড়লেখায় জাতীয় সংসদের হুইপ শাহাব উদ্দিন এমপির আশ্বাসে মঙ্গলবার থেকে ক্লাসে ফিরছে বর্ণি এম মন্তাজিম আলী কলেজের শিক্ষার্থীরা। সহপাঠী প্রান্ত দাসের মৃত্যুর প্রকৃত রহস্য উদঘাটনের দাবীতে গত ৫ দিন ধরে তারা ক্লাস বর্জন করে আসছিল।

জানা গেছে, বড়লেখায় মেধাবী কলেজ ছাত্র প্রান্ত দাসকে (১৯) পরিকল্পিত হত্যার অভিযোগ এনে বর্ণি এম মুন্তাজিম আলী কলেজের শিক্ষর্থিীরা বৃহস্পতিবার থেকে ক্লাস বর্জন করে বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন ও সমাবেশ করে আসছিল। সোমবার সকালে বর্ণি এম মুন্তাজিম আলী কলেজের শিক্ষার্থীরা প্রান্ত চন্দ্র দাস হত্যার প্রকৃত রহস্য উদঘাটনের দাবী নিয়ে জাতীয় সংসদের হুইপ ও স্থানীয় সংসদ সদস্য শাহাব উদ্দিনের সাথে দেখা করেন পৌর শহরের পাখিয়ালাস্থ বাসভবনে। এসময় এম মন্তাজিম আলী কলেজের শিক্ষার্থী জাবের আহমদ, নাহিদ আহমদ ও সাবিনা বেগম তাদের বক্তব্যে প্রান্ত দাস হত্যার প্রকৃত রহস্য উদঘাটন করে দোষীদের আইনের আওতায় এনে বিচার দাবী জানান্।

হুইপ শাহাব উদ্দিন এমপি বলেছেন, প্রান্ত চন্দ্র দাসের পোষ্টমর্টেম রিপোর্টে হত্যার প্রমাণ পাওয়া গেলে অপরাধীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ আশ্বাসে শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জনের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে সোমবার থেকে ক্লাসে যোগদানে সম্মত হয়েছে। এসময় প্রান্তের বড়ভাই শুভ দাস ছাড়া ও বর্নী ইউপি চেয়ারম্যান এনাম উদ্দিন, উপজেলা আ’লীগের সহ-সভাপতি উপাধ্যক্ষ একেএম হেলাল, জেহিন সিদ্দিকী, জুবের আহমদ, আব্দুর নুর, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি তানিমুল ইসলাম, সাধারন সম্পাদক ফরহাদ আহমদ উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, ৩১ অক্টোবর সকালে বর্ণি ইউনিয়নের মিহারী নয়াগ্রামে পিসির (ফুফু) পরিত্যক্ত বাড়ির রান্নœাঘরের জানালার গ্রিলের সাথে মুখ বাঁধা ও দন্ডায়মান অবস্থায় প্রান্তের লাশ পাওয়া যায়। পিসির বাড়ির লোকজনের দাবি গত সোমবার (২৯ অক্টোবর) রাত থেকে থাকে পাওয়া যাচ্ছিল না। হঠাৎ সে নিখোঁজ হয়ে যায়। প্রান্তের বড়ভাই শুভ দাস তার ভাইকে ফুফাতো ভাইয়েরা পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে আত্মহত্যার নাটক সাজানোর দাবী করেন। প্রান্তের পিসিতো ভাই সুমন দাস বলেন, তারা এ ঘটনার সাথে জড়িত নয়। প্রান্তের বাড়ি উপজেলার সুজানগর ইউনিয়নের বাঘমারা গ্রামে হলেও সপ্তম শ্রেণী থেকে পিসির (ফুফু) বাড়িতে থেকে সে লেখাপড়া করত।

বড়লেখা থানার ওসি মো. ইয়াছিনুল হক জানান, ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পাওয়া গেলে পরবর্তী আইনগত পদক্ষেপ নেয়া হবে। প্রাথমিক পর্যায়ে এ ব্যাপারে অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: