সর্বশেষ আপডেট : ১৩ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

খাসোগি হত্যাকাণ্ড: বিন সালমানকে সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে?

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের ভাই প্রিন্স অহমেদ বিন আবদুল আজিজ যুক্তরাজ্যে স্বেচ্ছা-নির্বাসন কাটিয়ে সম্প্রতি সৌদি আরবে ফিরেছেন বলে শোনা যাচ্ছে। বিশ্লেষকদের ধারণা, তার প্রত্যাবর্তন গুরুত্বপূর্ণ। কারণ অনেকে মনে করেন তিনি যুবরাজ বিন সালমানের জায়গা নিতে পারেন।

সৌদি আরবের সাংবাদিক জামাল খাসোগি ইস্তাম্বুলের সৌদি দূতাবাসের ভেতরে খুন হওয়ার পর চাপের মুখে রয়েছেন যুবরাজ বিন সালমান। অনেকেই মনে করছেন ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের স্থলাভিষিক্ত করতেই প্রিন্স আবদুল আজিজকে যুক্তরাজ্য থেকে সৌদি আরবে ফিরিয়ে নেওয়া হয়েছে। বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সৌদি আরবে তার প্রত্যাবর্তন সম্পর্কে সৌদি কর্তৃপক্ষ সরকারিভাবে কিছু নিশ্চিত করেনি। এরকম কোনো নিশ্চয়তা নাও আসতে পারে। কী কারণে তিনি ফিরেছন তাও স্পষ্ট নয়। তবে মনে করা হচ্ছে, তার নিরাপত্তার বিষয়টি নিশ্চত হয়েই তিনি দেশে ফিরেছেন।

ফ্রাংক গার্ডনার নামে বিবিসির এক সংবাদদাতা বলছেন,সৌদি রাজ পরিবারের সূত্র থেকেই এ খবরটি সংবাদমাধ্যমে জানানো হয়েছে।এর থেকে আভাস পাওয়া যায়, বিন সালমানের ভবিষ্যৎ নিয়ে ব্যক্তিগত স্তরে ব্যাপক বিতর্ক চলছে। এর কারণ সৌদি আরবের রাজতন্ত্রের সমালোচক সাংবাদিক জামাল খাসোগি ইস্তাম্বুলের সৌদি দূতাবাসের ভেতরে খুন হওয়ার ঘটনা।

এদিকে ২৩ অক্টোবর সৌদি সাংবাদিক জামাল খাসোগি হত্যাকাণ্ডকে পূর্ব পরিকল্পিত ও বর্বরোচিত হিসেবে উল্লেখ করেছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান। যদিও বক্তব্যে খাসোগি হত্যা নিয়ে নানা কথা বললেও এ হত্যাকাণ্ডের জন্য সৌদি রাজপরিবারের কাউকে সরাসরি দোষারোপ করেননি এরদোয়ান।

সম্প্রতি খাসোগি হত্যা তদন্তে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে গেছেন সৌদি আরবের প্রধান কৌঁসুলি শেখ সৌদ আল-মোজেব। তুরস্ক সফরে যাওয়ার আগে সৌদির প্রধান কৌঁসুলি স্বীকার করেন, পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী খাসোগিকে সৌদি কনস্যুলেটের ভেতরে হত্যা করা হয়েছে। এ হত্যাকাণ্ডের তদন্তে তুরস্ককে সহযোগিতা করতেই তার এই সফর।

২ অক্টোবর সাংবাদিক জামাল খাসোগি সৌদি দূতাবাসে প্রবেশের পর থেকে নিখোঁজ হন। এর আগে ২৮ সেপ্টেম্বর দূতাবাসে গেলে তাকে আবারও দূতাবাসে আসতে বলা হয়।খাসোগি নিখোঁজ হওয়ার বিষয়টি সর্বপ্রথম তুরস্ক সরকারকে জানান তার তুর্কি বাগদত্তা হেতিসে চেঙ্গিজ। তুরস্ক সরকারের এক জন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা সঙ্গে সঙ্গে দূতাবাসের কনসাল জেনারেলকে ফোন করেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই কর্মকর্তা পরে সংবাদমাধ্যমকে জানান, কনসাল জেনারেলকে খাসোগির বিষয়ে জিজ্ঞাসা করায় তিনি বেশ হতবাক হয়েছেন বলে মনে হয়েছে তার। তবে তিনি খাসোগির বিষয়ে কিছু জানেন না বলে সে সময় দাবি করেছিলেন।

সৌদি আরব প্রথম থেকেই খাসোগির নিখোঁজের বিষয়ে নিজেদের সংশ্লিষ্টতার কথা অস্বীকার করে। তবে প্রায় তিন সপ্তাহ ধরে পশ্চিমা দেশগুলোর উত্তরোত্তর চাপ বৃদ্ধির পর সৌদি আরব অবশেষে স্বীকার করেছে যে খাসোগিকে দূতাবাসের ভেতরে হত্যা করা হয়েছে।সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী খাসোগি হত্যাকাণ্ডকে ‘সৌদি আরবের মারাত্মক ভুল’ হিসেবে সরাসরি স্বীকার করেন।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: