সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কমলগঞ্জে লেবু বাগানে রাতের আঁধারে ফলনসহ ১১টি গাছ কর্তন

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারে কমলগঞ্জ উপজেলার পতনঊষার ইউনিয়নের রাঙ্গাটিলা গ্রামে ফলন আসা লেবু বাগানের ১১টি গাছ কর্তন করেছে দুবৃত্তরা। পাঁচ একর জমিতে গড়ে উঠা লেবু বাগানে গত তিন বছর ধরে লেবু চাষাবাদ চলছে। দুবৃত্তরা তিন বছর পূর্বেও এভাবে ৩০টি লেবু গাছ কর্তন করে। বৃহস্পতিবার (২৫ অক্টোবর) দিবাগত রাতে বাগানের পশ্চিম পাশের ১১টি গাছ কেটে ফেলা হয়।
লেবু বাগান মালিকের অভিযোগ পেয়ে সরেজমিনে দেখা যায়, শমশেরনগর দেওছড়া চা বাগান সংলগ্ন রাঙ্গাটিলার উচুঁ টিলায় সারিবদ্ধভাবে লেবু ও আনারসের বিশাল বাগান গড়ে উঠেছে। শমশেরনগরের এনামুল হক শামীম জমি ক্রয় করে সেখানে লেবু ও আনারস চাষাবাদ শুরু করেন। বাগানে পনেরশ’ লেবু গাছ রয়েছে। রাতের আধারে দুবৃত্তরা ফলনসহ ১১টি জীবন্ত লেবু গাছ কর্তন করা হয়।
রাঙ্গাটিলা এলাকার লেবু বাগান মালিক এনামুল হক শামীম অভিাযোগ করে বলেন, গ্রামের ৫ একর জমি ক্রয় করে তিন বছর পূর্বে লেবু ও আনারস বাগান গড়ে তুলি। বাগান তৈরির পর ৩ বছর পূর্বে রাতের আঁধারে ৩০টি গাছ কেটে ফেলে। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতেও এলাকার একজন চিহ্নিত চাপাতা চুর আমার বাগানের ফলনসহ ১১টি লেবু গাছ কেটে ফেলেছে। তার সাথে জমি সংক্রান্ত পূর্ব বিরোধ রয়েছে। এ ঘটনায় থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হবে। তিনি আরও বলেন, লেবু বাগানে পাহারাদার না থাকলে বাগানের সবকটি গাছই কেটে ফেলা হতো। বিষয়টি পুলিশ কর্মকর্তাকে অবহিত করলে তিনি সরেজমিন পরিদর্শন করেন।
অভিযোগ বিষয়ে শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ অরূপ কুমার চৌধুরী (পরিদর্শক) বলেন, ফলনসহ তরতাজা লেবু গাছ কেটে ফেলার বিষয়টি অমানবিক। এবিষয়ে লিখিত অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: