সর্বশেষ আপডেট : ৪৩ মিনিট ৫ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সিলেটে ঐক্য ফ্রন্টের সমাবেশে খালেদা জিয়ার মুক্তি চাইলেন ড. কামাল

তফসিল ঘোষণার আগে পদত্যাগ করুন : মির্জা ফখরুল

মারুফ হাসান ::

আমাদের প্রথম দাবিতে সুষ্ঠু নির্বাচন, বেগম খালেদা জিয়াসহ সকল রাজবন্দিদের মুক্তি ও মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের কথা উল্লেখ আছে। এছাড়াও আরো ৬টি দাবি রয়েছে। এই ৭টি দাবির কথা প্রতিটি থানা ও উপজেলায় ছড়িয়ে দিতে হবে। সিলেটের রেজিস্ট্রি মাঠে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংবিধান প্রনেতা ও গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেন এ কথা বলেন।

সরকারকে উদ্দেশ্য করে ড. কামাল বলেন, ‘৭ দফা দাবিকে হালকাভাবে নেবেন না। এটি দেশের মালিকানা ফিরিয়ে আনার দাবি। জনগণের হারিয়ে ফেলা অধিকার। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল জনগণ ক্ষমতার মালিক হবে। সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে হবে।
তিনি বলেন, মুষ্ঠিমেয় মানুষের উন্নয়নে দেশের উন্নয়ন হয় না। আমরা চাই ১৬ কোটি মানুষের উন্নয়ন। আমরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছি। আমাদের বিজয় অনিবার্য।’
ড. কামাল বলেন, সংবিধানের ৭ নম্বর অনুচ্ছেদে সুস্পষ্ট ভাবে উল্লেখ আছে ‘দেশের মালিক জনগণ’। বর্তমানে গণতন্ত্র হারিয়ে গেছে, হারানো গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে সেই মালিকদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে মাঠে নামতে হবে। উপস্থিত জনতার উদ্দেশ্যে ড. কামাল বলেন, আপনারা দেশের মালিকানা হারিয়ে ফেলেছেন সেই মালিকানা ফিরিয়ে আনতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে, মাঠে নামতে হবে, আন্দোলনের মাধ্যমে জনগণের মালিকানা প্রতিষ্ঠিত করতে হবে।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হকের সভাপতিত্বে (২৪ অক্টোবর) বুধবার বিকেলে অনুষ্ঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশের প্রধান বক্তা ছিলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সরকারকে উদ্দেশ্য করে ফখরুল বলেন, তফসিল ঘোষণার আগে পদত্যাগ করুন। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিন। ইভিএম সম্পর্কে বলেন, ইভিএম দেয়া চলবে না। ডিজিটাল চুরি করতে দেয়া হবে না।
সিলেটবাসীকে বিএনপি মহাসচিব বলেন, আপনারা সিলেটবাসী অনেক ইতিহাসের জন্ম দিয়েছেন। এই সমাবেশের মাধ্যমে আজ আরেকটি ইতিহাস রচনা করলেন। এ ইতিহাস গণতন্ত্র মুক্তির ইতিহাস।
তিনি বলেন, আজ পুণ্যভূমি সিলেট থেকে নতুন লড়াই শুরু হলো। এই লড়াই দিয়ে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। মুক্ত করতে হবে গণতন্ত্রকে। ফিরিয়ে আনতে হবে আমাদের অধিকার। আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সেনাবাহিনী মোতায়েনর দাবি তুলে মির্জা ফখরুল। সকল বাধা উপেক্ষা করে সমাবেশে ছুটে আসা জনতাকে ধন্যবাদও জানান ফখরুল।

জাসদের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক আ স ম আবদুর রব বলেন, দেশটা ডাকাতের হাতে পড়েছে। দেশকে রক্ষা করতে হলে জনগণকে মাঠে নামতে হবে। তিনি বলেন, আজকের এই সমাবেশে লক্ষ লক্ষ জনতার উপস্থিতি বলে দিচ্ছে সাধারণ মানুষ ডাকাতদের হাত থেকে বাচতে চায় হারানো গণতন্ত্র ফেরত চায়।

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবি তুলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যরিস্টার মওদুদ আহমদ বলেন, বর্তমান সরকারের পতন করতে হলে ঐক্যের কোনো বিকল্প নাই। এই সরকার গত ১০ বছরে দেশে সীমাহীন দুর্নীতি হয়েছে। ক্ষমতায় গেলে আমরা এগুলোর বিচার করবো।

আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমেদ বলেন, আমার রাজনৈতিক জীবন কেড়ে নেয়া হয়েছে। আমি রাজনীতি করি দেশের মানুষের জন্য, যতদিন বাচবো জনগণের জন্য রাজনীতি করবো।
তিনি বলেন, ১০ বছর পর আমি সিলেটের মাটিতে বক্তব্য রাখছি। এর আগে এমন কোন দিন নেই যেদিন আমি স্বৈরাচারেরে বিরুদ্ধে কথা বলিনি। এমন কোন দিন নেই যেদিন আমি বঙ্গবন্ধুর নাম উচ্চারণ করিনি। সিলেটের মানুষ কখনই মাথা নিচু করে হাটে নাই। সবসময় মাথা উঁচু করে হাটে। সিলেটের মানুষ দেশের বিভিন্ন গণআন্দোলনে বিশেষ ভূমিকা রেখেছে আজ তাদের টাকাসহ দেশের কোটি কোটি টাকা বিদেশে পাচার হয়ে যাচ্ছে।
সুলতান মনসুর বলেন, যেটি কারাগার নয় সেটিকে কারাগার বানিয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে আটক রাখা হয়েছে। খালেদা জিয়াসহ দেশে সকল প্রকার জুলুম অত্যাচার বন্ধ করে দ্রুত নির্বাচন দেয়ার আহ্বান জানান তিনি।
বিএনপির নিখোজ নেতা ইলিয়াস আলী সম্পর্কে সুলতান মনসুর বলেন, ইলিয়াস আলী একসময় ছাত্রলীগের রাজনীতি করতেন। এমসি কলেজে থাকা কালে আমার অধীনে রাজনীতি করতেন। পরে ঢাকায় গিয়ে তিনি ছাত্রদলে যোগ দেন।

এক সপ্তাহের আল্টিমেটাম দিয়ে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেন, সৌদি আরব থেকে ফিরে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ছাল-বাকল দিয়ে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠন করা হয়েছে। আমরা বলতে চাই দ্রুত পদত্যাগ করুন, জনগণের দাবি মেনে নিন নইলে আপনাদের ছাল-বাকলও থাকবে না। নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন চেয়ে দুদু বলেন, তফসিলের আগেই সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন করুন। সেনাবাহিনী মোতায়েন, ইভিএম ব্যবহার না করা এবং খালেদা জিয়াসহ সব রাজবন্দীর মুক্তিরও দাবি তুলেন বিএনপির এই নেতা।

সরকারের উদ্দেশ্যে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, আমাদের দাবি মানেন, যদি না মানেন তাহলে কীভাবে ক্ষমতা থেকে নামাতে হবে আমরা তা জানি। মান্না বলেন, বর্তমান সরকার চোর-ডাকাতের মতো ভোট চুরি করে নিয়ে গেছে। কিন্তু সিলেটে পারেনি। সিলেটের জনগণ তাদের ভোট দিয়ে তাদের প্রার্থীকে বিজয়ী করেছে। তিনি সরকারকে হুশিয়ারি দিয়ে বলেন, ওয়াক ওভার নিয়ে ক্ষমতায় থাকতে চাইলে, সেটি কখনো পূরণ হবে না। ওয়াক ওভার নিয়ে কাউকে ক্ষমতায় থাকতে দেব না। এখনও সময় আছে আমাদের সঙ্গে কথা বলেন।
মান্না আরো বলেন, এই দেশে কোটি কোটি টাকা লুটপাট হয়েছে সেসবের বিচার হয়নি। অথচ আমাকে দেওয়া হয়েছে কারাদণ্ড। তিনি বলেন, আজ আমাদের শপথ নেয়ার সময়। সুন্দরভাবে বাঁচার অধিকারের জন্য আমরা লড়াইয়ে নেমেছি। একদিকে (প্রধানমন্ত্রী) শেখ হাসিনা অন্যদিকে সারাদেশ থাকবে। এসময় খালেদা জিয়ার মুক্তি চেয়ে মান্না বলেন, খালেদা জিয়াকে একটা সাজানো মামলায় কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে। আমরা তার মুক্তি চাই।

ঐক্যফ্রন্টের সিলেট কর্মসূচির সমন্বয়ক ও জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ পরিচালনায় রেজিস্টারি মাঠে আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক মন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফর উল্লাহ চৌধুরী, মোস্তফা মহসিন মন্টু, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আবদুল মঈন খান, জয়নুল আবেদিন ফারুক, আমান উল্লাহ আমান, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা সিনিয়র এডভোকেট সুব্রত চৌধুরী, জেএসডি মহাসচিব আবুল মালেক রতন, এলডিপির মহাসচিব ডা. রেদোয়ান আহমদ, নাগরিক কমিটির সমন্বয়কারী শহীদুল্লাহ কায়সার, এডভোকেট বেলাল হোসেন বেলাল, ড. রেজওয়ান আহমদ, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, মোহাম্মদ শাহজাহান, মাওলানা আব্দুর রশিদ, ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা অ্যাডভোকেট আব্দুর রকিব, জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমদ আবদুল কাদের, বিএনপি নেতা ইনাম আহমদ চৌধুরী, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার আহ্বায়ক আ ব ম মোস্তফা আমীন, জেএসডির সহ সভাপতি তানিয়া রব, গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি সুব্রত চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেক রতনসহ স্থানীয় নেতবৃন্দ।

শাহজালাল ও শাহপরানের পুণ্যভূমি সিলেট থেকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আন্দোলনের শুভ সূচনার কথা উল্লেখ করে বক্তারা বলেন, সরকারের মুখে উন্নয়নের যে জোয়ার উঠেছে তা যদি সত্যি হয় তবে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিন তারপর দেখুন জনগণ কী জবাব দেয়। আমাদের ৭ দফা দাবি মেনে নিন, এ দাবি শুধু জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নয়, এ দাবি দেশের ১৬ কোটি মানুষের। স্বাধীন দেশে স্বাধীন ভাবে আমাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে চাই।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ৭ দফা দাবি আদায়ের আন্দোলনে যাওয়ার পূর্বে সিলেট নগরীর রেজিস্ট্রি মাঠে বিপুল জনতার উপস্থিতিতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের এটিই প্রথম সমাবেশ। সমাবেশ চলাকালে সমাবেশস্থলসহ নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যদের কর্তব্য পালন করতে দেখা যায়। এর আগে সকালে নেতৃবৃন্দ হযরত শাহজালাল (র.) ও হযরত শাহপরান (র.) এর মাজার জিয়ারত করেন।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: