সর্বশেষ আপডেট : ২৫ মিনিট ১২ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

স্থপতি চৌধুরী মুশতাকের দাফন সম্পন্ন

সিলেটের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় লিডিং ইউনিভার্সিটির উপদেষ্টা অধ্যাপক স্থপতি চৌধুরী মুশতাক আহমদের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। শুক্রবার বাদ আসর দরগাহে হযরত শাহজালাল (রাহ.) মাজার মসজিদে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে দরগাহ গোরস্তানে বাবা শিক্ষাবিদ মুসলিম চৌধুরীর পাশে তাকে সমাহিত করা হয়। এর আগে বাদ জুমা শেখঘাট সরকারি কলোনি মাঠে মরহুমের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় রাজনীতিবিদ, সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ অংশ নেন। চৌধুরী মুশতাক আহমদ (৬৭) বৃহস্পতিবার রাত ১২টা ৫৫ মিনিটে ঢাকার ইউনাইটেড হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

গলব্লাডারের পাথর অপারেশনের জন্য গত ১ সেপ্টেম্বর চৌধুরী মুশতাককে ঢাকার ল্যাবএইড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অপারেশনের পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৪ সেপ্টেম্বর প্রথম দফা হার্ট অ্যাটাক হয় তার। ৬ সেপ্টেম্বর দ্বিতীয় দফা হার্ট অ্যাটাক হলে পরদিন চৌধুরী মুশতাককে ইউনাইটেড হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে তাকে প্রথমে তাকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়। অবস্থার উন্নতি হলে তাকে ভেন্টিলেশন থেকে সরিয়ে আনা হয়। গত সোমবার তার মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হলে তিনি অচেতন হয়ে পড়েন। মঙ্গলবার তার মস্তিস্কে অপারেশন হয়। তারপর থেকে ক্রমেই তার অবস্থার অবনতি হতে থাকে। অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় বুধবার বিকেল থেকে তার কৃত্রিম সহায়তা সরিয়ে নেওয়া শুরু হয়।

চৌধুরী মুশতাক আহমদ ১৯৭৪ সালে বুয়েট থেকে স্থাপত্যবিদ্যায় ডিগ্রি নেন। ফল প্রকাশের আগেই ঢাকার একটি স্থাপত্য প্রতিষ্ঠান তাকে নিয়োগ প্রদান করে। এরপর চাকরি নিয়ে ১৯৭৮ সালে তিনি লিবিয়া যান। সেখানে ১৬ বছর চাকরির পর দেশে ফিরে প্রতিষ্ঠা করেন নিজস্ব প্রতিষ্ঠান ডেভেলপমেন্ট কনসালটেন্সি সার্ভিসেস। পরবর্তীতে যা ক্রিয়েটিভ ডিজাইন সেন্টার নামে পরিচিতি পায়। কর্মজীবনে তিনি লিডিং ইউনিভার্সিটিতে শিক্ষকতার পাশাপাশি কামালবাজারস্থ ওই ইউনিভার্সিটির মূল ক্যাম্পাসের স্থপতি দলে প্রধান স্থপতির দায়িত্বে ছিলেন। এছাড়া তিনি সোবহানিঘাটস্থ ওয়েসিস হসপিটাল, সুবিদবাজারস্থ প্রেসক্লাব ভবন, ধোপাদীঘির পারস্থ আল ফালাহ টাওয়ার, কাজিটুলার উচা সড়ক মসজিদ, সোবহানিঘাট কাঁচা বাজার মার্কেটসহ বিভিন্ন স্থাপনারও স্থপতি ছিলেন।

নিজস্ব পেশার বাইরে চৌধুরী মুশতাক লেখালেখির সাথেও জড়িত ছিলেন। ২০০৯ সালে মাওলা ব্রাদার্স থেকে প্রকাশিত হয় তার অনুবাদগ্রন্থ দ্য প্রফেট। কাহলিল জিবরানের একই নামেরই বইয়ের এ অনুবাটি সুধীমহলে ব্যাপক প্রশংসিত হয়। চৌধুরী মুশতাক আহমদ শিক্ষবিদ মরহুম মুসলিম চৌধুরীর বড় ছেলে এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সাবেক অতিরিক্ত সচিব চৌধুরী মুফাদ আহমদ ও সিলেটের সিনিয়র সাংবাদিক চৌধুরী মুমতাজ আহমদের বড় ভাই। – বিজ্ঞপ্তি




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: