সর্বশেষ আপডেট : ৩৬ মিনিট ২০ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শাবিতে মঞ্চায়িত হলো ‘সাইরেন’

রাজিব বাবু,শাবি:: সমাজের সকল ক্ষেত্রে যেমন- রাস্তাঘাট, যানবাহন, কর্মক্ষেত্র, শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান, সামাজিক এমনকি ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠানেও নারীরা যৌন হয়রানির শিকার হচ্ছে। কিন্তু এর জন্য আমাদের সমাজ গতানুগতিক ভাবে নারীদের পোশাক কেই দায়ী করে থাকে। কিন্তু আসলে কি তাই..? সেই প্রশ্নের উত্তরের খোঁজে গত শনিবার (৮ই সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে ‘আজ মুক্ত মঞ্চ’ সাংস্কৃতিক সংগঠনের আয়োজনে এবং ‘ইউ এন উইমেন’ সার্বিক সহযোগীতায় মঞ্চায়িত হয় নাটক ‘সাইরেন’।

‘আজ মুক্তমঞ্চ’ শাবি ক্যাম্পাসে একটি মুক্ত সংস্কৃতি চর্চার মঞ্চ। ”শুধু প্রদর্শনীর জন্য নয়, জীবনের জন্য শিল্পচর্চা” এই শ্লোগান কে বুকে ধারণ করে সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে এবারের আয়োজন ছিল ‘সাইরেন’। একটি অতি কাল্পনিক পরিস্থিতি নিয়ে তৈরি নাটক ‘সাইরেন’। প্লানেট ডব্লুর সুপার আর্কিটেক্ট প্রলয়ংকরি এক সাইরেন শুনে দশ হাজার বছর পর ঘুম থেকে জেগে উঠেন। তাকে জানানো হয় যে, প্লানেট ডব্লুতে পুরুষেরা পোশাকের দোহাই দিয়ে যৌন হয়রানি করছে। যখনই হয়রানির ঘটনা ঘটে তখনই প্লানেট ডব্লু কেঁপে উঠে, ফলে বিপদ শব্দটি বেজে উঠে। সুপার আর্কিটেক্টের নির্দেশে প্লানেট ডাব্লু থেকে নমুনা সংগ্রহ করে ঘটনার কারণ বের করে। তিনি মনে করেন, পোশাক যদি ধর্ষণের কারণ হয় তাহলে পাঁচ বছরের শিশু যখন ধর্ষণের শিকার হয় সেক্ষেত্রেও কি পোশাককে দায়ী করবে? তিনি ঘটনার কারণ হিসেবে চিহ্নিত করেন, পুরুষের মস্তিষ্কে পচন ধরেছে। বিশেষ প্রক্রিয়ায় তাদের মস্তিষ্কের পচন সরানোর ব্যবস্থা করে এবং প্রমাণিত হয় পোশাক নয়, মানসিকতাই দায়ী যৌন হয়রানির জন্য।

নাটক শেষে দর্শকের মাঝ থেকে তাদের মন্তব্য জানতে চাইলে, তাঁরা জানায় নারী যৌন হয়রানির জন্য কখনো নারীর পোশাক দায়ী নয়। এরজন্য দায়ী পুরুষের মনমানসিকতার। তখন তারা উদাহরণ হিসেবে শিশু ধর্ষণ এবং বিভিন্ন সময় ধর্ষিত নারীর পোশাকের কথা তুলে ধরেন।

নাটক চলাকালীন শাবির কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে উপস্থিত ছিলেন শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ, ইউ এন উইমেন এর কান্ট্রি ডিরেক্টর অফ বাংলাদেশ শোকা ইশকোয়া, সুইডিশ এম্বাসেডর শার্লট শাল্টার এবং মোতাহার আকন্দ কন্সালট্যান্ট, থিয়েটার ডিরেক্টর এন্ড চেয়ারপার্সন, রাইটস সেন্টার। নাটকের মূল চরিত্রে ছিলো কায়েস আল মিহরান জুমন, সুমন পাল, মশাররফ হোসেন সরকার, সুমাইয়া আলম চৌধুরী অন্যান্য চরিত্রে বিভাস ভট্টাচার্য, আশরাফুল আলম গাজী, জুবায়ের হোসেন সাকের।



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে. এ. রাহিম. সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: