সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ৫৮ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

‘প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়ে তথ্য যৌন হয়রানি কমাবে’

নিউজ ডেস্ক:: তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার বিষয়ে সঠিক তথ্য যৌন হয়রানি ও জেন্ডার বৈষম্য কমাতে সাহায্য করবে। সরকার এ বিষয়ে কাজ করছে, তবে এক্ষেত্রে মসজিদের ইমামদের সহযোগিতা প্রয়োজন। তাহলে মানুষ এই বিষয়টিকে আর গোপনীয় বা লজ্জার বলে মনে করবে না। সুস্থ জীবনের জন্য এ বিষয়ে জানা দরকার।

রোববার ‘যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার’ শীর্ষক একটি আন্তর্জাতিক নলেজ ফেয়ারের উদ্বোধনী অধিবেশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

‘যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার’ বিষয়ক প্লাটফর্ম ‘শেয়ার-নেট বাংলাদেশ’ রাজধানীর গুলশানের স্পেকট্রা কনভেনশন সেন্টারে এই নলেজ ফেয়ারের আয়োজন করে।

এতে বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন- ঢাকার নেদারল্যান্ডস দূতাবাসের ডেপুটি হেড অব মিশন ইয়েরুন স্তেইখস। এ ছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন- ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির জেমস পি গ্র্যান্ট পাবলিক থেলথ-এর অধ্যাপক সাবিনা ফাইজ রশিদ, রেডঅরেঞ্জ মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিকেশনস-এর সিনিয়র জেন্ডার স্পেশালিস্ট এলা দি ভুদ, রেডঅরেঞ্জ মিডিয়া অ্যান্ড কমিউনিকেশনস-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক অর্ণব চক্রবর্তী প্রমুখ।

তথ্যমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমাদের দেশে যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার বিষয়ে কথা বলা, বিশেষ করে স্কুলে ও পরিবারে প্রায় নিষিদ্ধ বলা যায়। স্কুলের পাঠ্য বইয়েও সযত্নে এই বিষয়টি এড়িয়ে যাওয়া হয়েছে। এই অবস্থার পরিবর্তন দরকার। কারণ, যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার হলো মানবাধিকার। ২০২০-২০৩০-এর টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকারের বিষয়টি সরাসরি যুক্ত। সমাজে ও অর্থনীতিতেও এর প্রভাব রয়েছে। তাই যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার বিষয়ে জ্ঞান বৃদ্ধির মাধ্যমে আমরা পরিবার-পরিকল্পনা, মা ও শিশুর স্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে পারবো।’

নেদারল্যান্ডস দূতাবাসের ডেপুটি হেড অব মিশন ইয়েরুন স্তেইখস বলেন, ‘যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার নিয়ে কথা বলা খুবই জরুরি। আর এ বিষয়ে সঠিক তথ্য দেয়ার কাজটা করে আসছে শেয়ার-নেট বাংলাদেশ। এই প্লাটফরমের মাধ্যমে নীতিনির্ধারক, প্র্যাকটিশনার, গবেষক, চিকিৎসকসহ বিভিন্ন পেশার মানুষেরা এক ছাদের নিচে এসে এ বিষয়ে কথা বলতে পারছে।’

এলা দি ভুদ বলেন, ‘যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার বিষয়ে সকলের জানা দরকার। কারণ, এটি একটি সমাজকে সমতার সাথে গড়ে উঠতে সাহায্য করে। সঠিক জ্ঞান ও তথ্য নারী-পুরুষের মধ্যে বৈষম্য কমাতে সাহায্য করে। শেয়ার-নেট বাংলাদেশ এমন একটি প্লাটফরম যা বাংলাদেশের সকল পর্যায়ের মানুষের কাছে সঠিক জ্ঞান ও তথ্য জানাতে এবং তাদের কথাগুলো বলার সুযোগ করে দিয়েছে।’

অর্ণব চক্রবর্তী বলেন, এই নলেজ ফেয়ারটি ছিল এমন একটি বিশাল প্লাটফর্ম যেখানে বিভিন্ন সদস্য সংগঠনের এবং শেয়ার-নেট নেদারল্যান্ডস্, বুরুন্ডি এবং জর্ডানের প্রতনিধিদের সক্রিয় অংশগ্রহণ ও মতবিনিময় সেশনের মাধ্যমে যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য ও অধিকার বিষয়ে বিভিন্ন গবেষণার ফলাফল এবং তা থেকে শিক্ষণীয় বিষয়বস্তু, বিভিন্ন নীতিনির্ধারণের প্রভাব এবং উদ্ভাবনী কৌশল নিয়ে আলোচনা করা হয়।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: