সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ৫২ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শিগগিরই সিলেট-তামাবিল-জাফলং মহাসড়ককে চারলেনে উন্নীত করা হবে- ইমরান আহমদ

ডেইলি সিলেট ডেস্ক:: প্রাকৃতিক সৌর্ন্দযের লীলাভূমি সিলেটের জাফলং পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে প্রসিদ্ধ। এ পর্যটন কেন্দ্রে দূরদুরান্ত থেকে প্রতিনিয়ত হাজার হাজার পর্যটক ভ্রমণে আসেন। সিলেট শহর থেকে সিএনজি, বাস, প্রাইভেটকার ও মাইক্রোযোগে পর্যটন কেন্দ্র জাফলংয়ে এসে পৌঁছেন পর্যটকরা।কিন্তু সিলেট তামাবিল মহাসড়কের রাস্তাগুলো খানাখন্দে ভরা। চলতি বর্ষায় সিলেট-তামাবিল-জাফলং সড়কের অবস্থা খুবই খারাপ। স্থানে স্থানে খানাখন্দকে ভরে গিয়ে সড়ক হয়ে পড়েছে চলাচল অনুপযোগী। আবার কোন কোন স্থানে সড়কের পিচ উঠে গিয়ে ফাঁকরের সড়কে পরিণত হয়েছে। জলবায়ুর প্রভাব, পাহাড়ী ঢলে অনেক স্থানে সড়ক ধসে গেছে। ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে যানবাহন।

কিন্তু আশার কথা শুনালেন সিলেট-৪ আসনের সংসদ সদস্য ইমরান আহমদ। সেটি নতুন করে আশা জাগিয়েছে মানুষের মনে; আশা জাগিয়েছে ব্যবসায়ীদের মনেও। তিনি জানিয়েছেন, সিলেট-তামাবিল-জাফলং মহাসড়ক নিয়ে জনসাধারণের যে মন্তব্য একই মন্তব্য আমারও। আমিও চাই দ্রুততম সময়ের মধ্যে মহাসড়কটি সংস্কার হোক।

কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এটি চাননা। তিনি চান বারবার সংস্কার না করে স্থায়ীভাবে টেকসই কাজ উপহার দিতে। সেকারণেই এতোদিন বিলম্ব হয়েছে। আর বিলম্ব হবে না। খুব শিগগিরই সিলেট-তামাবিল-জাফলং মহাসড়ককে চারলেনে উন্নীত করে বিশ্বমানের মহাসড়কে রূপ দেয়া হবে। শনিবার সিলেট নগরীর জেলরোডে সিলেট চেম্বার অব কর্মাসে আয়োজিত একটি সেমিনারে সাংবাদিকদের এমন তথ্য নিশ্চিত করেন ইমরান।

সংসদ সদস্য ইমরান আহমদ বলেন, ইতোমধ্যে এই মহাসড়কটি ফোরলেনে রূপ দেয়ার জন্য ১২৫ কোটি টাকার প্রকল্পের কাজ অল্প কয়েকদিনের মধ্যেই শুরু হবে। সম্প্রতি সড়কপরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সিলেট সফরকালেও এ ব্যাপারে তাঁর সাথে কথা বলেছেন বলে জানান ইমরান। সিলেট-জাফলং সড়কের কাজ সম্পন্ন হলে যোগাযোগের আর কোন দূর্ভোগ থাকবেনা বলে যোগ করেন ইমরান।

গুরুত্বপূর্ণ এ মহাসড়কটি সংস্কারে সিলেটের ব্যবসায়ী ও পর্যটন সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলো বারবার দাবি জানিয়ে আসছিলেন। সড়কটি বেহাল থাকায় মহাবিপাকে রয়েছেন সড়ক ব্যবহারকারী ব্যবসায়ী ও দেশের নানা প্রান্তের পর্যটকরা। বিদেশী পর্যটকরাও শুধুমাত্র সড়কের কারণে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছেন এই সড়কের লাগোয়া জনপ্রিয় পযটন স্পটগুলো থেকে।

বিগত ঈদুল ফিতর ও ঈদুল আযহাতে এ সড়ক সংশ্লিষ্ট পর্যটনস্পটগুলোতে আশানুরূপ সাড়া দেখা যায়নি। যেসব পর্যটক গিয়েছিলেন তাদেরকেও বেশ ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে। অনেকেই মাঝপথ থেকে বিকল্প পর্যটন স্পটে চলে যেতে বাধ্য হয়েছেন।

এমন দূরাবস্থা থেকে সমাধান পেতে গত ২৬ আগস্ট জরুরি ভিত্তিতে সড়কটি সংস্কারের দাবি জানিয়ে সড়কপরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের কাছে স্মারকলিপি দেয়া হয়েছিল সিলেটের সর্বস্তরের ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে। সিলেট চেম্বার এন্ড কর্মাস ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি খন্দকার সিপার আহমেদ ব্যবসায়ীদের পক্ষে এ স্মারকলিপি প্রদান করেছেন।

স্মারকলিপির অনুলিপি অর্থমন্ত্রী ও সিলেট-১ আসনের সংসদ সদস্য আবুল মাল আবদুল মুহিত, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমদ, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিবের কাছেও পাঠানো হয়েছে। এরপর গত ৩০ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩ তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে আয়োজিত শোকসভায় সড়কপরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সিলেট সফর করেন। তখন তিনি মহাসড়ক নিয়ে সরাসরি কোন কথা বলেননি। তবে ওই এলাকার সংসদ সদস্য ইমরান আহমদের সাথে সড়কের ব্যাপারে কথা বলেন মন্ত্রী। তিনি জানান আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগেই এ মহাসড়ককে ফোর লেনে উন্নীত করার কাজ শুরু হবে। প্রধানমন্ত্রীও এ ব্যাপারে বেশ আন্তরিক।

সিলেট চেম্বার এন্ড কর্মাসের সভাপতি খন্দকার সিপার আহমদ বলেন- ‘আমদানী-রপ্তানীর পাশাপাশি পর্যটনের ক্ষেত্রেও মহাসড়কটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তামাবিল স্থলবন্দর দিয়ে অনেক বাংলাদেশী পর্যটক ও ব্যবসা প্রতিবেশী দেশ ভারতে যাওয়া-আসা করে থাকেন। মহাসড়কটি সরকারের কোটি কোটি টাকার রাজস্ব আহরণে সহায়ক ভূমিকা পালন করে। কিন্তু রাস্তার কারণে পণ্যবাহী ট্রাকগুরো মারাত্মকভাবে ক্ষতির মুখোমুখি হচ্ছে। ছোট-বড় দুর্ঘটনাও ঘটছে।’

তিনি বলেন- ‘জৈন্তাপুর হতে তামাবিল স্থলবন্দর পর্যন্ত রাস্তার অবস্থা খুবই ভয়াবহ। রাস্তায় তৈরি হয়েছে বড় বড় গর্ত। এসব কারণে ট্রাকচালকরা পণ্য নিয়ে যেতে আগ্রহী হয়না। যারা রাজি হয় তাদেরকে দিতে হয় অতিরিক্ত ভাড়া। আর এসব কারণে ব্যবসায়ীদের লোকসান গুনতে হচ্ছে কোটি কোটি টাকা।’







নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: