সর্বশেষ আপডেট : ১০ মিনিট ১৭ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বাবার চুমুতে সন্তান লাভ, অতঃপর ‘চুমু বাবা’ গ্রেফতার!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ভারতে একের পর এক বেরিয়ে আসছে স্বঘোষিত ধর্মগুরুদের কেলেঙ্কারি। ধর্ষক ধর্মগুরুর পর দেশটিতে এবার খোঁজ মিলেছে ‘চুমু বাবার’। চুমু দেওয়াই তার কাজ। চুমুতেই সকল শক্তি ও অলৌকিক ক্ষমতা! চুমু দিয়েই নাকি সমাধান করে দেন বিভিন্ন সমস্যার! কারও সন্তান না হলে বাবার চুমুতেই নাকি মিলছে সন্তান! আর এই ‘বাবা’ শুধু নারীদেরই সমস্যা সমাধান করে থাকেন। সম্প্রতি চুমুর দায়ে এই ‘ধর্মগুরুকে’ গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বেশ কিছুদিন ধরেই ভারতে একে একে বেরিয়ে এসেছে ধর্মগুরুর ছদ্মবেশে থাকা আসারাম বাপু, গুরমিত রাম রহিম সিং, ফলাহারি বাবা এবং দাতি মহারাজের মতো ‘মানুষদের’ ভয়ঙ্কর চেহারা। এইসব ধর্মগুরুদের কাছে অসংখ্য নারী সম্ভ্রম হারানোয় ক্ষুব্ধ হয়ে গত বছরের মাঝামাঝি প্রকাশ্য জনসভায় নিজের পুরুষাঙ্গ কেটে ফেলেন অনিল পুরোহিত নামের ৪১ বছর বয়সী এক ধর্মগুরু। দেশটিতে মাঝে মধ্যেই এমন বিতর্কিত ধর্মগুরুর সন্ধান মিলছে। এবার সেখানে খোঁজ মিললো ‘চুমু বাবার’।

নাম শুনেই হয়তো অনেকে বুঝে ফেলেছেন চুমু দেওয়ায় তার নিশ্চয়ই কোন কেরামতি আছে। হ্যা, তা তো আছেই! তিনি নাকি চুমু দিয়েই অনেক জটিল সমস্যার সমাধান করে দেন। আর অন্যান্য স্বঘোষিত বাবাদের মতো তার ভক্তশ্রেণিও নারী। কোন নারী সমস্যায় পড়লে তিনি জড়িয়ে ধরে চুমু দেন। আর তাতেই নাকি সমস্যার সমাধান হয়ে যায়। তাকে নিয়ে টিভি চ্যানেলেও খবর প্রচার হয়। তাতে দেখানো হয় একে একে নারীরা চুমু বাবার কাছে বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে হাজির হচ্ছেন। আর ‘বাবা’ তাদের জড়িয়ে ধরে চুমু দিচ্ছেন। তাতেই খুশি ভক্তরা। এই চুমুর আবার বিশেষ নামও আছে। আর তা হলো ‘চমৎকারী চুম্বন’। সে চুম্বনের এমনই অলৌকিক মহিমা যে, সব সমস্যা নিমেষে দূর হয়ে যায়।

বাবার আশপাশে থাকা ভক্তদের বক্তব্য- অনেকের নাকি চুমু খেয়ে সমস্যার সমাধান হয়েছে। পরকীয়ায় আসক্ত স্বামী ফিরে এসেছেন! মিলেছে মাদক থেকে মুক্তি! সংসারে অশান্তি, বাবার চুমুতে ফিরে এসেছে শান্তি! সন্তান হচ্ছে না, তাতেও মিলেছে সমাধান!

ভারতের আসামের প্রত্যন্ত গ্রামে এমনই এক ব্যবসা ফেঁদে বসেছিলেন স্বঘোষিত ‘চুমু বাবা’। আসল নাম রামপ্রকাশ চৌহান। নারীদের চুমু দিতেন, আবার অর্থও নিতেন। কিন্তু, শেষ রক্ষা হল না। কোন অলৌকিক ক্ষমতাই ‘চুমু বাবা’র গ্রেপ্তারি আটকাতে পারল না। শেষ পর্যন্ত ঠিকানা হয়েছে শ্রীঘর। সেই ১৪ শিকের মধ্যে চুমু বাবার সঙ্গী তাঁর মা। অভিযোগ, তিনি গুণধর ছেলের অলৌকিক ক্ষমতার কথা প্রচার করতেন। এর মাধ্যমে মা-ছেলে মিলে ব্যবসা জমিয়ে নিয়েছিলেন। জানা গেছে, প্রচারের জন্য কিছু লোকও রাখা ছিল চুমু বাবার। তাদের কাজ ছিল ‘বাবার’ অলৌকিক ক্ষমতা প্রচার করা, বিনিময়ে বেতন নেওয়া।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, রামপ্রকাশ চৌহান অাসামের মরিগাঁও জেলার ভোরালটুপ গ্রামের বাসিন্দা। গ্রামে গ্রামে বার্তা রটেছিল, এই রাম প্রকাশই অলৌকিক ক্ষমতাধারী। নাম ‘চুমু বাবা’। যে কোনও সমস্যা নিয়ে তাঁর কাছে গেলে তিনি জড়িয়ে ধরে চুমু দিয়ে দিতেন। তবে শর্ত একটাই, সমস্যা নিয়ে বছর তিরিশের ওই বাবার কাছে নারীদেরই যেতে হবে। পুরুষ মানুষের চিকিৎসা তিনি করতেন না।

ক্রমে ক্রমে সে বার্তা রটে যায় গ্রাম থেকে গ্রামে। বাবার ‘মাহাত্ম্য’ ও ‘মহিমা’ ছড়াতে লাগল দূর দূরান্তে। বাড়ির সামনেই গড়ে তোলা হল ‘চুমু বাবা’র মন্দির। খবর গেল স্থানীয় একটি টিভি চ্যানেলেও। ফলাও করে টিভি চ্যানেলে দেখানো হল, এক এক করে নারীরা আসছেন। আর বাবা জড়িয়ে ধরে তাঁদের চুমু দিচ্ছেন।

কিন্তু সেটাই কাল হল চুমু বাবার। ওই টিভি চ্যানেলের মাধ্যমে খবর গেল পুলিশে। তার পরেই অভিযান। হাতেনাতে গ্রেপ্তার করা হয় ‘চুমু বাবাকে’। আর ছেলের ‘মাহাত্ম্য’ প্রচার এবং ‘কুকীর্তি’তে সাহায্য করার অভিযোগে আটক করা হয় তার মা- কেও।

মরিগাঁওয়ের পুলিশ কর্মকর্তা জে বরা জানিয়েছেন, ‘‘অভিযুক্ত রামপ্রকাশ চৌহানের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তিনি নানা সমস্যা দূর করার নামে সরলতার সুযোগ নিয়ে নারীদের জড়িয়ে ধরেন ও চুমু খাওয়ার মাধ্যমে যৌন শোষণ করছেন। সে কারণেই তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

ভক্তদের ধর্ষণের অভিযোগে ১০ বছরের কারাদণ্ড হয়েছে কথিত ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিমের। স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত হয়ে কারাগারে গেছেন ধর্মগুরু আসারাম বাপু। এবার চুমুর দায়ে কথিত ‘বাবার’ কী সাজা হয় সেটাই দেখার অপেক্ষা।

সূত্র: নিউজ২৪।


নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: