সর্বশেষ আপডেট : ৫০ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

‘অবৈধ দখলদাররাই কিন্তু সরকারী জমি ইজারা পায়’

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি:: সরকারি সম্পত্তি,অর্পিত সম্পত্তি। এসব জমির লীজ নেওয়ার ক্ষেত্রে প্রথম শর্তই হচ্ছে দখল। আব্দুল হালিম এই জমির দখলে কখনই ছিল না। সে লীজের শর্ত ভঙ্গ করেছে। এ জন্য বিগত তিনবছর ধরে এ জমির বন্দোবস্তর নবায়ন বন্ধ রয়েছে। শনিবার দুপুরে স্থানীয় শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবে শহরের সাগরদীঘী সড়কে ১৬ শতক ভিপি বন্দোবস্ত সরকারী জমির ইজারা নিয়ে লীজ আবেদনকারী আবু বক্কর সিদ্দিক মোহনের পক্ষে তার মামা জেলা পরিষদ সদস্য মশিউর রহমান রিপন এ দাবী করেন।

মশিউর রহমান রিপন তার লিখিত বক্তব্যে শিরীন আক্তার কর্তৃক তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ বানোয়াট ও ভিত্তিহীন দাবী করে বলেন,‘আব্দুল হান্নান ২০০৬ সালে ওই জমি লীজ নিয়ে আবার সরকারের নিকট সারেন্ডার করেন। পরবর্তীতে ওই জমি আবু বক্কর সিদ্দিক মোহন ও তার পিতা আব্দুল হান্নানের অবর্তমানে আব্দুল হালিম লীজ নেন। শর্ত ভঙ্গ করায় গত তিন বছর যাবত ওই জমির আর আব্দুল হালিমের নামে লীজ নবায়ন হয়নি। বর্তমানে আবু বক্কর সিদ্দিক মোহন ওই জমির ১৬ শতক ভূমি লিজ প্রাপ্তির জন্য জেলাপ্রশাসনে আবেদন করেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মশিউর রহমান রিপন বলেন, ‘আব্দুল হালিম সরকারি রেকর্ড মূলে ওই জমির ইজারাদার ছিল। সে সরকারের বৈধ ইজারাদার। সে কারনে তিনি সরকারের সব শর্ত ও আইন মানতে বাধ্য। আর আমরা হচ্ছি এই ভূমির দখলদার। দখলদার বলতে,আমরা অনুমতিহীন অবৈধ দখলদার’। তিনি দাবি করেন, অবৈধ দখলদাররাই কিন্তু সরকারী জমি ইজারা পায়। কারণ হিসেবে তিনি বলেন- জেলা প্রশাসনে লিজ আবেদনে প্রথমেই লিখতে হয় এই জমি আমার ভোগ দখলে আছে’।

বর্তমানে বৈধ লীজ গ্রহীতা আব্দুল হালিম জানান, ‘২০০৬ সাল থেকে ওই জমির বৈধ লিজার ছিলেন তার মামা প্রবাসী আব্দুল হান্নান। পরবর্তীতে তিনি ২০১১ সাল থেকে সরকারের সব শর্ত মেনে নিয়েই ওই জমির ভোগ দখলে আছেন। বর্তমানে ওই জমির লীজ নবায়নের কাজ জেলা প্রশাসনে প্রক্রিয়াধীন আছে’।
জানতে চাইলে শ্রীমঙ্গল উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি মো.আশেকুল হক বলেন, সাগরদীঘী সড়কে ৬৭ নং জেএলস্থিত রুপসপুর মৌজার এসএ ১২০৪ নং দাগে ০.১৬ একর ভূমি ভিপি‘ক’ তপশীলের ভূমি। এই জমির বৈধ লীজার আবুল হালিম । লীজ নবায়নের জন্য জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের নির্দেশে তদন্ত করে উক্ত ভূমিতে ১৩টি দোকান কোঠা ভাড়াটিয়ার মাধ্যমে আব্দুল হালিমের দখলে পাওয়া যায়। তাই ১৪২৫ বাংলার জন্য লিজমানি ৮৩,৬৪০ টাকা আদায়সহ আব্দুল হালিমের নামে লীজ নবায়নের জন্য চলতিবছরের গত ৮ মার্চ জেলা প্রশাসনে সুপারিশ করে জেলা প্রশাসনে প্রতিবেদন প্রেরণ করা হয়। যাহা প্রক্রিয়াধীন আছে।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: