সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ৫৪ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বাংলাদেশের যে এলাকায় ছাগল পালন ‘নিষিদ্ধ’

নিউজ ডেস্ক:: দারিদ্র বিমোচনে ছাগল পালনের বিষয়টি গ্রামাঞ্চলে বেশি জনপ্রিয় হলেও ঝিনাইদহ জেলার অন্তত ৩৫টি গ্রামে ছাগল পালন ‘কঠোরভাবে নিষিদ্ধ’ করা হয়েছে।

জেলা প্রাণিসম্পদ অফিস জানায়, স্থানীয় মাতবরদের (সমাজপতি) সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গ্রামগুলোতে ছাগল পালন বন্ধ রয়েছে।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মো. হাফিজুর রহমান বলেন, ‘গ্রামে ছাগলের দ্বারা ফসলের ক্ষেত নষ্ট হবার ঘটনাকে কেন্দ্রে করে বিভিন্ন সময় মারামারি, এমনকি খুন-খারাবির ঘটনাও ঘটেছে অতীতে। সে কারণেই গ্রামের মাতব্বররা ছাগল পালন নিষিদ্ধ করেছেন।’

এ বিষয়ে শৈলকূপা উপজেলার মনোহরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আরিফ রেজা জানান, মনোহরপুর ইউনিয়নের কিছু গ্রামেও ছাগল পালন নিষিদ্ধ আছে।

আরিফ রেজা বলেন, ‘ছাগলের দ্বারা ফসলের ক্ষেত নষ্ট হওয়াকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন সময় এলাকায় রক্তপাত হয়েছে। তাই গ্রামের মুরুব্বিরা মিলে এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। মুরুব্বিরা যখন কোনো সিদ্ধান্ত নেয়, তখন চেয়ারম্যান হিসেবে কিছু করার থাকে না।’

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার চেয়ারম্যান কবির হোসেন জোয়ারদার জানান, তার এলাকায় বেশ কয়েক বছর ধরে কেউ ছাগল পালন করেন না। একসময় তার নিজেরও ১০-১২টি ছাগল ছিল বলেও তিনি জানান।

এলাকার সবাই মিলে ছাগল পালন না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে জানিয়ে কবির হোসেন বলেন, ‘ছাগলগুলো জবাই দিয়ে গরিব মানুষকে খাইয়ে দিয়েছি।’

এসব এলাকার কয়েকজন চেয়ারম্যান দাবি, যেসব এলাকায় ছাগল পালন নিষিদ্ধ, সেসব এলাকা হিংসাত্মক কর্মকাণ্ড কমেছে।

অবশ্য এসব এলাকায় ছাগল পালন নিষিদ্ধ হওয়ার দরিদ্র ও ভূমিহীন মানুষ বিপাকে পড়েছেন বলে জানান হাফিজুর রহমান।

ছাগল পালনে মানুষকে উদ্বুদ্ধ করার জন্য জেলা প্রাণিসম্পদ দফতর নানাভাবে চেষ্টা করলেও তাতে খুব একটা ফল হয়নি বলেও জানান এই কর্মকর্তা।

হাফিজুর রহমান বলেন, ‘এক সময় ৪৫টি গ্রামে ছাগল পালন নিষিদ্ধ ছিল। গত কয়েক বছরে আমরা সেটি কমিয়ে ৩৫টি পর্যন্ত আনতে পেরেছি। এই ৩৫টি গ্রামে গত বেশ কয়েক বছর ধরে ছাগল পালন হয় না।’

ঝিনাইদহের যেসব গ্রামগুলোতে ছাগল পালন নিষিদ্ধ, সেই এলাকাগুলো জাত ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল পালনের জন্য প্রসিদ্ধ।

প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তারা জানান, একটি ব্ল্যাক বেঙ্গল ছাগল বাচ্চা প্রসবের চার মাসের মাথায় সেটি বিক্রয়যোগ্য হয়ে উঠে এবং বাজারে যার দাম থাকে পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত। ফলে ছাগল পালনের মাধ্যমে দারিদ্র বিমোচনে ভূমিকা রাখা সম্ভব বলে উল্লেখ করেন কর্মকর্তারা।

সূত্র: বিবিসি বাংলা


নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: