সর্বশেষ আপডেট : ১ মিনিট ৪১ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গ্রামের মানুষ স্বাবলম্বী হওয়ায় অামি খুব খুশি : প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক:: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বিদ্যুৎ পাওয়ার পর গ্রামগঞ্জের উন্নয়ন হচ্ছে। মানুষ ভালোভাবে চলতে পারছে। তাদের ছেলে-মেয়েদের লেখাপড়া করাতে পারছে। তিনি বলেন, একটি বাড়ি একটি খামার কর্মসূচির মধ্যে দিয়ে লাখ লাখ মানুষ স্বাবলম্বী হওয়ায় অামি খুব খুশি। কারণ এটা অামার চিন্তার ফসল।

রোববার দুপুরে নির্মাণ সমাপ্ত ৮টি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র, ২টি নবনির্মিত গ্রিড উপকেন্দ্র ও ২১টি উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়নের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন। তিনি বিভিন্ন জেলা উপজেলায় বিদ্যুৎ ব্যবহারকারী উপকার ভোগীদের সঙ্গে মত বিনিময় করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গ্রামের মেয়েদের সঙ্গে অামি যখন কথা বলি এবং তারা যখন বলে রাইচ কুকারে রান্না করছি, ছোট কৃষক যখন বলে বিদ্যুৎচালিত মোটর ব্যবহার করে সবজি বা কৃষি অাবাদ করছি, হাঁস-মুরগির খামার করে, গরু ছাগল পুষে জীবিকা নির্বাহ করছি, এখন ভালো অাছি। এ কথা শুনে খুব ভালো লাগে।

তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কি চেয়েছিলেন। তিনি চেয়েছিলেন এ দেশের প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ দিতে। তিনি চেয়েছিলেন, ক্ষুধা-দারিদ্র্য মুক্ত একটি বাংলাদেশ গড়তে। এ দেশের প্রতিটি মানুষ যেন অন্ন, বস্ত্র, চিকিৎসা পায় সে ব্যবস্থা করতে। শেখ হাসিনা বলেন, অাজ যখন অামরা বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি, তার কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছি তখন তিনি অামাদের এ উন্নয়ন এবং মানুষের সুখ নিশ্চয় বেহেস্ত থেকে দেখতে পারছেন। প্রধানমন্ত্রী বিদ্যুৎ ব্যবহারে সবাইকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়ে বলেন, মনে রাখবেন বিদ্যুৎ অামাদের অনেক বড় সম্পদ। এই বিদ্যুৎ তৈরি করতে যে পয়সা খরচ হয় তার অর্ধেকের কম দামে অামরা বিক্রি করি। অর্থাৎ বিদ্যুৎ এর উপর অামাদের মোটা অঙ্কের টাকা ভর্তুকি দিতে হয়। সে কারণে অতি যত্নের সঙ্গে ব্যবহার করতে হবে।

প্রধানমন্ত্রী অফিসারসহ সর্বস্তরের লোকের প্রতি অাহ্বান জানিয়ে বলেন, অামি কিন্তু নিজের কাজ নিজে করি। নিজের কাজ নিজে করলে কোনো ক্ষতি নেই। কোন পিয়ন কখন অাসবে তারপর সুইচ বন্ধ করবে এটা কখনই করবেন না।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, গ্রামের মানুষদের সঙ্গে মত বিনিময় করলাম। তারা কীভাবে জীবিকা নির্বাহ করেছে তা শুনলাম খুব ভালো লাগলো। বেশি ভালো লাগছে এ কারণে যে, অাপনারা নৌকায় ভোট দিয়েছিলেন। অাপনাদের জন্য কিছু করতে পেরেছি। শেখ হাসিনা বলেন, কিশোরগঞ্জের হাওড়ের মানুষ মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করতেন। অাগে বিদ্যুৎ না থাকার কারণে ৫শ’ টাকার মাছ ২/৩’শ টাকায় বিক্রি করতে হয়েছে। এখন অার তা করতে হয় না। কারণ বরফ কল হয়েছে, ডিপ ফ্রিজ অাছে। সেখানে সংরক্ষণ করে তারা পরের দিন বিক্রি করতে পারছে। এভাবে প্রতিটি ক্ষেত্রে মানুষ সুবিধা পাচ্ছে।




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: