সর্বশেষ আপডেট : ২৬ মিনিট ১ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২২ অগাস্ট ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আসামের নাগরিক তালিকা নিয়ে উদ্বিগ্ন নয় বাংলাদেশ

নিউজ ডেস্ক:: ভারতের আসামে ন্যাশনাল রেজিস্টার অব সিটিজেনস (এনআরসি) এর খসড়া প্রকাশ নিয়ে বাংলাদেশ কোনোভাবেই উদ্বিগ্ন নয়। এনআরসি ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় বলে অভিহিত করেছে বাংলাদেশ। এ নিয়ে বাংলাদেশ সরকার কোনো আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া দিতেও রাজি নয়। তবে আসামের এনআরসি পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে আসছে বাংলাদেশ।

ঢাকার একাধিক কূটিনৈতিক সূত্র এসব তথ্য জানিয়েছে।

সূত্র জানায়, ভারতের আসাম রাজ্য সরকার সোমবার (৩০ জুলাই) জাতীয় নাগরিক তালিকার (এনআরসি) চূড়ান্ত খসড়া প্রকাশ করেছে। এ তালিকা থেকে বাদ পড়েছে প্রায় ৪০ লাখ আসামের নাগরিক। এ নিয়ে আসামে এখন রাজনৈতিক উত্তেজনাও চলছে। কেননা অনেক বৈধ নাগরিকই ওই তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন। তবে আসাম রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, তালিকায় বাদ পড়া নাগরিকদের পুনরায় আবেদনের সুযোগ রয়েছে।

এনআরসি তালিকার বিষয়ে দিল্লিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈয়দ মোয়াজ্জেম আলী বলেছেন, এনআরসি খসড়া প্রকাশ ভারতের একান্তই অভ্যন্তরীণ বিষয়। ভারত সরকার কখনোই বাংলাদেশের কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে এ বিষয় তোলেনি। তাই এখন পর্যন্ত এটা ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। কোনো অভ্যন্তরীণ বিষয়ে বাংলাদেশ হস্তক্ষেপ করবে না।

আসামের অবৈধ নাগরিকদের বাংলাদেশি বলেও চিহ্নিত করার অপচেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ রয়েছে। অবৈধ নাগরিকদের বাংলাদেশে ঠেলে দেওয়া হতে পারে বলেও কেউ কেউ আশঙ্কা করছেন। তবে এ নিয়ে উদ্বিগ্ন নয় বাংলাদেশ। কেননা মিয়ানমার থেকে রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে ঠেলে পাঠালেও ভারতের আসামের ক্ষেত্রে তেমন ঘটবে না বলেই মনে করছেন বাংলাদেশ সরকারের শীর্ষ কর্মকর্তারা।

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে এখন সুসম্পর্ক বিদ্যমান। উভয় দেশের শীর্ষ কর্মকর্তারা একাধিকবার বলেছেন, শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি সরকারের বর্তমান আমলে দুই দেশই সোনালি অধ্যায় অতিক্রম করছে। সে কারণে আসামের নাগরিক তালিকা নিয়ে উভয় দেশের মধ্যে কোনো ধরণের নেতিবাচক প্রভাব যেন না পড়ে, তা নিয়েও সতর্ক রয়েছে ঢাকা-দিল্লি।

সূত্র জানায়, নাগরিক তালিকার বিষয়ে বাংলাদেশ সরকার এখনই কোনো প্রতিক্রিয়া দেখাতে রাজি নয়। ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয় হিসেবেই এটাকে এখনো দেখে আসছে সরকার। তবে প্রতিক্রিয়া না দেখালেও পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে চলেছে বাংলাদেশ।

এদিকে আসামের নাগরিক তালিকা নিয়ে সেখানকার রাজ্য সরকারের বিজেপি ও কংগ্রেসের মধ্যেও মতবিরোধ রয়েছে। এমনকি পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিও তালিকা তৈরির তীব্র সমালোচনা করেছেন। এ নাগরিক তালিকার বৈধতা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে।

এদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল মঙ্গলবার ( ৩১ জুলাই) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে বলেন, আসামের নাগিরক তালিকা নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। বাংলাদেশ থেকে যারা আসামে গিয়েছে তারা ১৯৭১ সালের আগেই গিয়েছে। তাই এটা নিয়ে আমাদের উদ্বেগ নেই।

উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের আগে বাংলাদেশ থেকে যারা আসামে গিয়েছেন, তারা সেখানে নাগরিক হিসেবে বিবেচিত হবেন। সেটা নিয়ে কোনো সমস্যা নেই। তবে আসামে দীর্ঘদিন ধরেই অবৈধ নাগরিক ইস্যু করে রাজনীতি চলছে। সর্বশেষ ২০১৬ সালে আসামের বিধানসভা নির্বাচন সামনে রেখে রাজ্যে অবৈধ নাগরিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে বলে জানিয়েছিলো সেখানকার ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)।

বিধান সভা নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে বিজেপি রাজ্য থেকে অবৈধ নাগরিকদের চিহ্নিত করতে কাজও শুরু করে। সে অনুযায়ী সোমবার খসড়া তালিকা প্রকাশ করা হয়। ভারতের কোনো রাজ্য থেকে এই প্রথমবারের মতো নাগরিক তালিকা তৈরি করা হলো।




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: