সর্বশেষ আপডেট : ৫ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ভারতে এক পরিবারের ৭ সদস্যের রহস্যজনক মৃত্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ভারতের ঝাড়খণ্ড রাজ্যের রাঁচি শহরের এক বাড়ি থেকে দুই শিশুসহ এক পরিবারের সাত সদস্যের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তবে তারা কীভাবে মারা গেছে এখনও সে ব্যাপারে পুলিশ নিশ্চিত হতে পারেনি। মরদেহগুলো ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে।রাজধানী দিল্লির বুরারি এলাকা থেকে একই পরিবারের ১১ সদস্যের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করার কয়েক সপ্তাহ না ঘুরতেই দেশটিতে ফের একই ধরনের ঘটনা ঘটলো।

স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম হিন্দুস্থান টাইমস জানায়, সোমবার সকালে দীপকের মেয়ের স্কুলভ্যান তাকে নিতে আসে। কিন্তু হর্ন বাজার পরও শিশুটি বাইরে না আসায় তার এক সহপাঠী বাড়িতে ঢুকে মৃতদেহগুলো দেখতে পায়। পরে ঘটনাটি জানাজানি হয় এবং এলাকার লোকজন পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ এসে সাতজনের মৃতদেহ উদ্ধার করে।

উদ্ধারকৃত মরদেহগুলোর মধ্যে রয়েছে পরিবারে প্রবীণতম সদস্য শশী কুমার ঝা (৬৫), তার স্ত্রী গায়ত্রী দেবী (৬০), তাদের দুই ছেলে দীপক ঝা (৪০) ও রুপেশ ঝা (৩৯), দীপকের স্ত্রী সনি ঝা (৩৮) এবং তাদের ছয় বছরের মেয়ে দৃষ্টি এবং এক বছর বয়সী শিশুপুত্র জাগু। অবসরপ্রাপ্ত শশী কুমার ঝা রেলওয়ে কোম্পানিতে চাকরি করতেন।

দীপক ও রুপেশ ঝা’র দেহ সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ঝুলছিল। বাকিদের মরদেহ কম্বল দিয়ে ঢাকা ছিল। ঘটনাস্থল থেকে দুটি কাঠের খণ্ড উদ্ধার করেছে পুলিশ। পুলিশের ধারণা, পরিবারের পাঁচ সদস্যকে খুন করার পর আত্মহত্যা করেছেন ওই দুই ভাই।

পরিবারটির বেশ আর্থিক সঙ্কটে ভুগছিল। শিশু জাগুর চিকিৎসা বাবদ তাদের প্রচুর অর্থ ব্যয় করতে হত। এর ওপর ধারে নেয়া ২০ লাখ রুপির সুদ টানতে গিয়ে হিমসিম খাচ্ছিল পরিবারটি। এ নিয়ে দীপকের বাবা প্রায়শই আফসোস করতেন বলে জানিয়েছে তাদের এক প্রতিবেশী।

রাঁচির উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা অনীশ গুপ্তা বলেছেন, ‘মরদেহগুলো ময়না তদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে। তদন্তের প্রতিবেদন হাতে পেলেই তাদের মৃত্যুর রহস্য উদঘাটন হবে।’

চলতি বছরের জানুয়ারিতেই রাচির এই চার রুমের বাড়িতে উঠে এসেছিল পরিবারটি। মৃতদের বাড়ি থেকে দুটি সুইসাইড নোটও উদ্ধার করেছে পুলিশ। তবে এ বিষয়ে তারা বিস্তারিত জানাতে অস্বীকার করেন।

ভারতে গত ১১ জুলাই দিল্লির বুরারিতে এক পরিবারের ১১ সদস্যের মৃতদেহ উদ্ধারের ঘটনা গোটা দেশে আলোড়ন তৈরি করেছিল। এখনও সেই রহস্যের জট খুলতে পারেনি পুলিশ। এরই মধ্যে রাঁচিতে এই নতুন ঘটনা প্রকাশ পেলো।

সূত্র: দ্য হিন্দুস্তান টাইমস




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: