সর্বশেষ আপডেট : ৫ মিনিট ৩১ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

পাকিস্তানের নির্বাচনঃ নেতা পাল্টাবে, নেতৃত্ব নয়!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: পাকিস্তানের আজকের নির্বাচনে জয়ের ব্যাপারে দৃঢ় আত্মবিশ্বাসী ক্রিকেটার থেকে রাজনৈতিক বনে যাওয়া ইমরান খান। পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) দলের এই নেতা মনে করেন, তাঁর জয় দুর্নীতিগ্রস্ত ও অস্থিতিশীল পাকিস্তানের জন্য একটা বিপ্লব হিসেবে আবির্ভূত হবে। তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, নির্বাচনে ইমরানের জয় হলেও যে পাকিস্তান সেই পাকিস্তানই থাকবে। কারণ হিসেবে তাঁরা বলছেন, দেশ শাসনের ক্ষেত্রে সামরিক বাহিনীর ‘ইচ্ছা’র বিরুদ্ধে যাওয়ার স্পর্ধা কারো নেই; এমনকি ইমরানেরও না।

নির্বাচনে শীর্ষ তিন প্রতিদ্বন্দ্বী হলেন পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) বিলাওয়াল ভুট্টো, পাকিস্তান মুসলমি লীগ-নওয়াজের (পিএমএল-এন) শাহবাজ শরিফ এবং পিটিআইয়ের ইমরান খান। কোনো কোনো জরিপে দেখা গেছে, ইমরান খান সামান্য ব্যবধানে এগিয়ে আছেন। তবে এসব জরিপে সামরিক বাহিনীর প্রভাব রয়েছে বলে মনে করেন ইমরানের প্রতিদ্বন্দ্বীরা। আবার এ অভিযোগও আছে, ইমরানকে জেতানোর জন্য দেশটির সামরিক বাহিনী নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করছে।

পাকিস্তানের ৭১ বছরের ইতিহাসে প্রত্যক্ষ কিংবা পরোক্ষভাবে অর্ধেকেরও বেশি সময় ক্ষমতায় থেকেছে সেনাবাহিনী। আর রাজনীতিতে আধিপত্য দেখিয়ে আসছে পিপিপি ও পিএমএল-এন। এর মধ্যে পিএমএল-এন নেতা নওয়াজ শরিফ দুর্নীতির দায়ে বর্তমানে কারাভোগ করছেন। দলের নেতৃত্বে আছেন তাঁর ভাই শাহবাজ শরিফ। এ অবস্থায় ইমরান জিতলে পাকিস্তানের রাজনীতি নতুন এক অভিজ্ঞতা পাবে। অন্তত এ অর্থে নতুন যে পিএমএল-এন ও পিপিপির বাইরে প্রথমবারের মতো কেউ সরকার গঠন করবে। এর বাইরে ‘নতুন কোনো স্বাদ’ পাকিস্তানের মানুষ পাবে না বলে মনে করেন বেশির ভাগ বিশ্লেষক।

দক্ষিণ এশিয়ার রাজনীতি বিশ্লেষক মাইকেল কুগেলম্যান বলেন, ‘পাকিস্তানের ক্ষমতা কাঠামোর একেবারে ওপরের দিকে এখনো সেনাবাহিনীর অবস্থান পাকাপোক্ত। এমনকি নির্বাচন কিংবা নির্বাচনের ফলে হস্তক্ষেপের অভিযোগ থাকার পরও পাকিস্তানিদের কাছে তাদের জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে।’ এবারের নির্বাচনে জোট সরকার গঠনের পক্ষেই সেনাবাহিনীর সবচেয়ে বেশি চেষ্টা থাকবে বলে মনে করেন কুগেলম্যান।

এবারের নির্বাচনে ইমরানের অন্যতম প্রতিশ্রুতি হলো দুর্নীতিমুক্ত পাকিস্তান গড়া। সেই সঙ্গে শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাত ঢেলে সাজানোর কথাও বলেছেন তিনি। তাঁর এই নীতি অন্য দুই দল থেকে (পিএমএল-এন এবং পিপিপি) আলাদা। এ ছাড়া পাকিস্তানকে ক্রিকেট বিশ্বকাপ জেতানোয় অনেকের কাছে তাঁর গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে। কিন্তু মতাদর্শিকভাবে ইমরানের মধ্যে কোনো নতুনত্ব নেই।

যুক্তরাষ্ট্রের ব্রুকিং ইনস্টিটিউটের গবেষক মাদিহা আফজাল বলেন, ‘ইমরান মূলত রক্ষণশীল একজন নেতা। পিএমএল-এন কিংবা পিপিপি যতটা ডানপন্থী, ইমরান খান তার চেয়েও বেশি।’ বিশ্লেষকরা বলছেন, ইমরান যে রক্ষণশীল, তার সবচেয়ে বড় উদাহরণ হলো তিনি ধর্ম অবমাননা বিষয়ক আইনের সমর্থক। পাকিস্তানের বিতর্কিত এ আইনে সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড।

কুগেলম্যান বলেন, ‘অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সমালোচনা করলেও ইমরান খান সেনাবাহিনীর বিষয়ে একেবারে চুপ। বরং তিনি সেনাবাহিনীর যেকোনো সিদ্ধান্তের সমর্থক।’

পাকিস্তানের রাজনীতির প্রবীণ পর্যবেক্ষক হিসেবে পরিচিত রহিমুল্লাহ ইউসুফজাই মনে করেন, ইমরান কাগজে-কলমে অন্যদের চেয়ে আলাদা। কিন্তু কাগজের পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে গেলে নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতায় পড়তে হবে তাঁকে। তিনি বলেন, ‘পিটিআইয়ের অনেক সদস্যই অন্য দল ছেড়ে এসেছেন। এসব স্বার্থপর নেতাকে ইমরান কিভাবে সামলাবেন?’

বেশির ভাগ বিশ্লেষকই বলছেন, এবারের নির্বাচনে কোনো দলের একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাওয়ার সম্ভাবনা একেবারেই কম। সে ক্ষেত্রে জোট সরকার গঠনের সম্ভাবনাই বেশি। সে ক্ষেত্রে নির্বাচনে তৃতীয় হলেও কদর বাড়তে পারে পিপিপির।

বিশ্লেষকরা বলছেন, ইমরান এটা অবশ্যই অবগত যে পাকিস্তানে আজ পর্যন্ত নির্বাচিত কোনো প্রধানমন্ত্রী পূর্ণ মেয়াদে ক্ষমতায় থাকতে পারেননি। নওয়াজ শরিফের উদাহরণ টেনে রাজনৈতিক বিশ্লেষক এবং সাংবাদিক টম হুসাইন বলেন, ‘যখন কোনো পুতুল সরকার সেনাবাহিনীর সঙ্গে দূরত্ব তৈরি করতে চেয়েছে, তখনই অন্য কেউ তাকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়েছে। এই ধাক্কা দেওয়ার ক্ষেত্রে অবধারিতভাবে সেনাবাহিনী সমর্থন দিয়েছে। ইমরান জয়ী হলে তাঁকেও নওয়াজ শরিফের মতো পরিস্থিতির জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।’

মাদিহা আফজাল বলেন, ‘ইমরান অবশ্যই সেনাবাহিনীর মন জুগিয়ে চলার চেষ্টা করবেন। আর সেটা করতে না পারলে অন্যদের তুলনায় আরো করুণভাবে ক্ষমতা ছাড়তে হতে পারে তাঁকে।’ সূত্র : সিএনএন, এএফপি।


নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: