সর্বশেষ আপডেট : ১৪ মিনিট ৯ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে খেলবেন দুই না তিন পেসার?

নিউজ ডেস্ক:: দেখতে দেখতে কেটে যাচ্ছে দিন। মনে হয় যেন, এই সেদিন বছর শুরু হলো। আর এখন জুলাই মাসও যাই যাই করছে। এ সাত মাস ২২ দিনে টাইগাররা আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছে বেশ কটি; কিন্তু যে ফরম্যাটে মাশরাফি, তামিম, সাকিব, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ ও মোস্তাফিজরা সবচেয়ে সাবলীল ও উজ্জ্বল। ক্রিকেটের যে সংস্কণে টাইগারদের ‘টিম বাংলাদেশ’ তকমা গায়ে এঁটে আছে- সেই ৫০ ওভারের ক্রিকেটটাই এবার সবচেয়ে কম খেলেছে মাশরাফি বাহিনী।

২৭ জানুয়ারি ২০১৮ থেকে ২২ জুলাই- ক্যালেন্ডারের পাতা উল্টে হিসেব কষলে ১৭৬ দিন। প্রায় ছয় মাস। এই সময়ে বাংলাদেশ মোটে পাঁচটি ওয়ানডেতে অংশ নিয়েছে। অথচ একই সময়ে টি-টোয়েন্টি খেলেছে ১০টি। এমনকি যে ফরম্যাটে সবচেয়ে কম সংখ্যক ম্যাচ খেলে, এবার সেই পাঁচদিনের চারটি টেস্টও খেলা হয়ে গেছে।

আজ ১৭৭ দিনের মাথায় আবার ওয়ানডে খেলতে নামবে টাইগাররা। বাংলাদেশ সময় রোবববার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা গায়নার প্রভিডেন্সে স্বাগতিক ওয়েষ্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথমটিতে মাঠে নামবে মাশরাফির দল। এটা হবে এবছরের নয় নম্বর ওয়ানডে। ইতিহাস-পরিসংখ্যান জানাচ্ছে গত ২৭ জানুয়ারি শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে শ্রীলঙ্কার সাথে ঘরের ওয়ানডে খেলেছিল মাশরাফির দল। সেটা ছিল তিন জাতি আসরের ফাইনাল।

গ্রুপ পর্বের প্রথম সাক্ষাতে জিতে ফাইনালে লঙ্কানদের কাছে ৭৯ রানে হেরে স্বপ্ন ভঙ্গের বেদনায় ডোবে মাশরাফির দল। দুই পেসার রুবেল হোসেন (৪/৪৬) আর মোস্তাফিজের (২/২৯) সাঁড়াসি আক্রমনে শ্রীলঙ্কা থেমে যায় ২২ রানে; কিন্তু তারপরও শেষ রক্ষা হয়নি। জবাবে বাংলাদেশ মাত্র ১৪২ রানে অলআউট হয়। মাহমুদউল্লাহ ( ৯২ বলে ৭৬) একাই শুধু মাথা তুলে দাঁড়াতে পেরেছিলে। এছাড়া মুশফিকুর রহীম (২২) আর মিঠুন (১০) শুধু কেউ দু’অংকে পৌঁছান। বাকি সবাই ব্যর্থতার মিছিলে অংশ নেন।

লঙ্কান ইনিংসের একদম শেষাংশে ফিল্ডিংয়ে ব্যাথা পেয়ে মাঠ ছাড়া সাকিব বোলিং কোটা পূর্ণ করতে পারেননি। তালুতে সেলাইয়ের কারণে ব্যাটিংয়েও নামা সম্ভব হয়নি। সেই হতাশায় ডোবা এক রাতের পর আজ আবার ওয়ানডেতে মাশরাফি, তামিম, সাকিব, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহ ও মোস্তাফিজরা।

মাঝের সময়টায় টেস্ট এবং টি-টোয়েন্টিতে ভাল সময় কাটেনি। ফেব্রুয়ারি থেকে জুলাই অবধি- পাঁচ মাসে চার টেস্টে অংশ নিয়ে জয়ের দেখা মেলেনি। ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে একটি টেস্ট ড্র করা ছাড়া অন্য তিন ম্যাচেই যথাক্রমে ২১৫ রানে, ইনিংস ও ২১৯ রানে আর ১৬৬ রানে হেরেছে বাংলাদেশ।

এছাড়া চলতি মোট ১০টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলে মাত্র দুটিতে জয়। আর আটটিতে হার। জয় দুটিই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে, শ্রীলঙ্কার মাটিতে। অথচ সেই লঙ্কানদের বিপক্ষেই ঘরের মাঠে দুটিতেই হার সঙ্গী হয়ে আছে। এছাড়া ভারত আর আফগানিস্তানের বিপক্ষে তিনটি করে ম্যাচ খেলে প্রতিটিতে পরাজয় হয়েছে সঙ্গী। এর মধ্যে গত জুনে দেরাদুনে তিন ম্যাচের সিরিজে সব কটায় হারের দগদগে ঘা এখনো লেগে আছে শরীরে।

যদিও পৃথক ফরম্যাট। তারপরও সেই ঘা নিয়েই আজ মাঠে নামতে হবে। কি করবে মাশরাফির দল? আবার ওয়ানডে ফরম্যাটে খেলতে নেমে নিজেদের সোনালী অতীতে ফিরে যাবে? সেটাই দেখার। ভাল ফলাফলের পূর্বশর্ত হলো সঠিক কম্বিনেশন।

গায়ানার প্রোভিডেন্সে জ্যাসন হোল্ডার বাহিনীর বিপক্ষে কেমন হবে বাংলাদেশ দলের গঠন শৈলি? কতজন ব্যাটসম্যান, কতজন পেসার আর কতজন স্পিনার নিয়ে মাঠে নামবেন মাশরাফি? যতদুর জানা গেছে সাতজন ব্যাটসম্যান খেলানোর চিন্তা একরকম চূড়ান্ত। দুজন স্পেশালিস্ট স্পিনারেরর অন্তর্ভূক্তিও প্রায় নিশ্চিত। তবে একটি পজিশন নিয়েই আছে সংশয়। কতজন পেসার খেলানো হবে, তিন না দুজন? তা নিয়েই চলছে দেনদরবার।

জানা গেছে, সেটা মাঠে গিয়েই ঠিক করা হবে। এমনিতে সাত ব্যাটসম্যানের কোটায় তামিম, এনামুল হক বিজয়, লিটন দাস, মুশফিকুর রহীম, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতের খেলা একরকম নিশ্চিত। অন্যদিকে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা ও কাটার মাস্টার মোস্তাফিজ অটোমেটিক চয়েজ। বাকি থাকলো দুটি পজিশন। বলার অপেক্ষা রাখে না, ওই দুই পজিশন পূর্ণ হবে বোলারদের দিয়েই।

স্বাভাবিক হিসেবে একজন করে স্পিনার ও পেসার থাকার কথা। আবার দুজন স্পিনার কিংবা একজন ব্যাটসম্যান ও অন্য একজন স্পিনারের দলভূক্তি ঘটতে পারে। মাশরাফি আর মোস্তাফিজের সাথে যদি তিন পেসার নিয়ে দল সাজানো হয়, তাহলে অনিবার্য্যভাবেই খেলবেন রুবেল। তার অভিজ্ঞতা কাজে লাগানোর কথাই হয়ত ভাবা হবে।

এছাড়া সাত মাস আগে শেষ ওয়ানডেতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে চার উইকেট আছে রুবেলের। যদি দুই পেসার খেলেন, তাহলে বাকি দুই পজিশনে অফ স্পিনার মিরাজ হবেন প্রথম পছন্দ। এ ছাড়া বাঁহাতি স্পিনার নাজমুল অপু আর হার্ড হিটার সাব্বির রহমান রুম্মনও আছেন চিন্তায়। তার মানে রুবেল, মিরাজ, নাজমুল অপু আর সাব্বিরের যে কোন দুজনার অন্তর্ভুক্তি ঘটবে একাদশে। এখন দেখার বিষয় কোন দুজন খেলবেন?

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে সম্ভাব্য একাদশ : তামিম ইকবাল, এনামুল হক বিজয়, লিটন দাস, মুশফিকুর রহীম, সাকিব আল হাসান, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মাশরাফি বিন মর্তুজা, মোস্তাফিজুর রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ, রুবেল হোসেন/নাজমুল অপু।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: