সর্বশেষ আপডেট : ৫২ মিনিট ৫ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ১১ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বড়লেখায় ফরিদা হত্যাকাণ্ড : ঘর থেকে ডেকে নিয়ে হত্যার কথা স্বীকার করে প্রেমিক জুমেল

নিজস্ব প্রতিবেদক ::

মৌলভীবাজারের বড়লেখায় ফরিদা বেগম হত্যাকাণ্ডের ১ মাস পর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন প্রেমিক মো. জুমেল আহমদ (২৫)। গতকাল ১২ জুলাই বৃহস্পতিবার বড়লেখার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মো. হাসান জামানের আদালতে এ জবানবন্দি দেন জুমেল।

জানা গেছে, গত ১৩ জুন উপজেলার উত্তর শাহবাজপুর ইউনিয়নের ইসলামপুর এলাকার জমি থেকে ফরিদা বেগমের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ফরিদা তালাকপ্রাপ্ত হওয়ায় গত ৩ বছর থেকে ইসলামপুর গ্রামে বাবা খলকু মিয়ার কাছেই থাকতেন। এই সময়ে উপজেলার নিজবাহাদুরপুর ইউনিয়নের ইটাউরি কান্দিগ্রামের সাইন উদ্দিনের ছেলে জুমেল আহমদের সাথে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সম্পর্ক চলাকালে জুমেল অন্যত্র বিয়ে করায় ক্ষেপে যান ফরিদা। তিনি জুমেলের বিরুদ্ধে মামলার হুমকি দেন। তাতেই জুমেল সহযোগিদের নিয়ে ফরিদাকে হত্যা করার পরিকল্পনা করেন।

সে অনুযায়ী ঘটনার রাতে (১২ জুন) জুমেল কয়েকজন সহযোগীকে সাথে নিয়ে ফরিদারদের বাড়িতে পাশে গিয়ে তাকে মুঠোফোনে কল দিয়ে বাড়ির বাহিরে আসতে বলেন। ফরিদা ঘর থেকে বের হলে জুমেল ও তার সহযোগীরা তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। পরে তারা ফরিদার লাশ বাড়ির পাশের ক্ষেতে ফেলে পালিয়ে যায়।

ফরিদার মা পিয়ারা বেগম বাদী হয়ে অজ্ঞাত পরিচয়ের ক জনের উপর বড়লেখা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা নম্বর-১৩। হত্যা রহস্য উদঘাটনে পুলিশ মাঠে নামে। প্রযুক্তির সহায়তায় জুমেল আহমদের সম্পৃক্ততার প্রমাণ পায় পুলিশ। এরপর উত্তর শাহবাজপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইন-চার্জ মোশাররফ হোসেনের নেতৃত্বে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) ওয়াহেদ গাজী গত ২ জুলাই অভিযান চালিয়ে চান্দগ্রাম এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করেন।

তদন্ত কর্মকর্তা গত ৯ জুলাই আদালতে জুমেলকে ১০দিনের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করলে আদালত জুমেলের ৩দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রিমান্ডে জুমেল পুলিশের কাছে হত্যার বিষয়ে প্রাথমিক স্বীকারোক্তি প্রদান করে। এ সময় জুবেল দুই সহযোগীদের নাম উল্লেখ করে। তার দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দপ্তরি জাকির আহমদ (২৫) কে গ্রেপ্তার করে।

গতকাল বৃহস্পতিবার (১২ জুলাই) বিকেলে বড়লেখার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মো. হাসান জামানের আদালতে জুমেলকে হাজির করলে তিনি হত্যায় জড়িত থাকার বিষয়ে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। পরে জুমেল ও তার সহযোগী জাকিরকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক (এসআই) ওয়াহেদ গাজী বলেন, জুমেল আদালতে সে সহ ৩ জনের নাম বলেছে। তারা তিনজন মিলেই ফরিদাকে হত্যা করে। এ পর্যন্ত ২ জনকে গ্রেপ্তার করতে পেরেছে পুলিশ। অপর আসামিকে গ্রেপ্তার চেষ্টা অব্যাহত আছে বলেও জানালেন পুলিশের এই কর্মকর্তা।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: