সর্বশেষ আপডেট : ৮ মিনিট ৩৬ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

প্রতীক বরাদ্দ শেষ : নৌকা-ধানের শীষের সাথে মাঠে থাকবে টেবিল ঘড়ি, বাসগাড়ি

নিজস্ব প্রতিবেদক ::
সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে নিজ নিজ প্রতীক নিয়ে আজ থেকে আনুষ্ঠানিক প্রচারণায় মাঠে নামছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। যদিও আচরণবিধি লঙ্ঘন করে ইতোমধ্যে বেশীরভাগ প্রার্থী প্রচারণার কাজ শুরু করেছেন।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, সিসিক নির্বাচনে এবার ৭ মেয়র প্রার্থী লড়বেন ১টি চেয়ারের জন্য। অপরদিকে ২৭টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে মোট ১২৭ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৬২ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।

সিলেট সিটি নির্বাচনে মেয়রপদে লড়াইয়ে থাকা ৭ প্রার্থীর প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন হয়েছে। আজ (১০ জুলাই) মঙ্গলবার সকালে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হয়। সাবেক মেয়র ও সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান দলীয় নৌকা প্রতীক নিয়ে লড়বেন অপরদিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য ও সদ্য সাবেক সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী লড়বেন দলীয় প্রতীক ধানের শীষ নিয়ে।
এছাড়াও অন্যান্যের মধ্যে মহানগর জামায়াতের আমির এহসানুল মাহবুব জুবায়ের লড়বেন টেবিল ঘড়ি প্রতীকে। বাসগাড়ী প্রতীক নিয়ে ভোটযুদ্ধে অংশ নিচ্ছেন বিএনপির বিদ্রোহী ও নাগরিক কমিটি মনোনীত প্রার্থী বদরুজ্জামান সেলিম।
অপরদিকে ইসলামী আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সদস্য ডা. মোয়াজ্জেম হোসেন পেয়েছেন হাতপাখা প্রতীক, সিপিবি-বাসদ মনোনীত প্রার্থী আবু জাফর মই ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এহসানুল হক তাহের পেয়েছেন হরিণ প্রতীক। সিটি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আলীমুজ্জামান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

প্রতীক পাওয়ার পরপরই প্রার্থী ও সমর্থকরা আনন্দ-উল্লাস প্রকাশ করেন। শুরু করেন আনুষ্ঠানিক প্রচার-প্রচারণা।

ভোটগ্রহণ শুরু হবে আগামী ৩০ জুলাই সকাল ৮টায়। নির্বাচন আইন অনুযায়ী, ভোটগ্রহণ শুরুর ৩২ ঘণ্টা পূর্বে প্রচার কাজ বন্ধ করতে হবে। সে অনুযায়ী ১০ জুলাই থেকে থেকে ২৮ জুলাই মধ্যরাত পর্যন্ত প্রচার কাজ চালাতে পারবেন সকল প্রার্থী ও তাদের সমর্থকরা।

নির্বাচনী বিধিনিষেধ :

এদিকে প্রচার কাজের জন্য প্রতিটি ওয়ার্ডে কেবল একটি মাত্র শব্দবর্ধনকারী যন্ত্র বা মাইক ব্যবহার করার জন্য প্রার্থীদের উদ্দেশ্যে বলা হয়েছে। এজন্য সময় বেঁধে দেওয়া হয়েছে দুপুর ২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত। আর পথসভা বা ঘরোয়া সভার জন্য অন্তত ২৪ ঘণ্টা আগে স্থানীয় পুলিশ কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে হবে। কোনো প্রার্থী অন্য প্রার্থীর বিরুদ্ধে সম্মানহানিকর তথা চরিত্রহনন করে বা কোনো ধরনের তিক্ত বা উস্কানিমূলক কিংবা লিঙ্গ, সাম্প্রদায়িকতা বা ধর্মানুভূতিতে আঘাত লাগে এমন বক্তব্য দিতে পারবেন না।

নির্বাচনী প্রচারকাজে কেবলমাত্র দলীয় প্রধান হেলিকপ্টার ব্যবহার করতে পারবেন। তবে দলীয় প্রধান যদি সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্ণ তথা, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী বা সংসদ সদস্য হন, তবে তিনি নির্বাচনী প্রচারণায় যেতে পারবেন না।

রিটার্নিং কর্মকর্তাদের এই সব নির্দেশনা প্রার্থীদের সঙ্গে বৈঠক করে অথবা যথাযথভাবে প্রচার করে অবহিতও করতে বলেছে নির্বাচন কমিশন।




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: