সর্বশেষ আপডেট : ১২ মিনিট ১৮ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছাতকে আওয়ামীলীগ নেতা খুন ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগ

ছাতক সংবাদদাতা:: ছাতকে উত্তর খুরমা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক মিয়া খুনের ঘটনায় দলীয় ইউপি চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদ জড়িত দাবি করে তাঁর গ্রেফতারের দাবি করছেন আওয়ামীলীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীরা। সোমবার বিকালে উপজেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এক প্রতিবাদ সভায় এমন দাবি করা হয়। দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক আলহাজ্ব আবরু মিয়ার সভাপতিত্বে এ প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার দুপুরে নিখোঁজের দু’দিন পর আ.লীগ নেতা ফারুকের গলাকাটা লাশ স্থানীয় পাতলাচুরা বিল থেকে উদ্ধার করে পুলিশ।

নিখোঁজের পর থেকে এই ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যান বিল্লাল ও তার সহযোগীরা জড়িত বলে দাবি করে আসছেন ফারুকের স্ত্রীসহ স্বজনরা। ইউপি চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদ স্থানীয় সংসদ সদস্য মুহিবুর রহমান মানিকে চাচতো ভাই। রোববার লাশ উদ্ধারের পর আওয়ামীলীগ নেতা ফারুক মিয়াকে গুম ও হত্যার প্রতিবাদে শহরে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সভা করেছে আওয়ামীলীগ। মিছিল শেষে ট্রাফিক পয়েন্টে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগ নেতা জয়নাল আবেদীন তালুকদার ধলা মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রতিবাদ সভায় সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেষনা বিষয়ক সম্পাদক শামীম আহমদ চৌধুরী ২৪ ঘন্টার মধ্যে এমপি মানিকের ভাই, ইউপি চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদসহ ফারুক মিয়ার খুনীদের গ্রেফতারের আল্টিমেটাম দেন।

অন্যতায় আওয়ামীলীগ নেতা ফারুক মিয়া হত্যার বিচারের দাবীতে দলীয় নেতা-কর্মীরা রাজপথে আন্দোলন করতে বাধ্য হবে বলে হুশিয়ারী উচ্চারন করেন। প্রতিবাদ সভায় অন্যান্যদের বক্তব্য রাখেন, জেলা পরিষদ সদস্য আজমল হোসেন সজল, আওয়ামীলীগ নেতা শাহীন আহমদ চৌধুরী, ইউপি চেয়ারম্যান দেওয়ান পীর আব্দুল খালেক রাজা, আখলাকুর রহমান, সাইফুল ইসলাম, রুহুল আমিন তালুকদার, নিজাম উদ্দিন, কল্যানব্রত দাস, নুর উদ্দিন, কামাল উদ্দিন, আজাদ মিয়া মেম্বার, এমএ কাদের, যুবলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন চয়ন, ফজলে রাব্বী জনি, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি জামায়েল আহমদ ফরহাদ, ছাতক ডিগ্রি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি রিয়াদ আহমদ চৌধুরী, সহ সভাপতি আব্দুল কাদির প্রমুখ। এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় গতকাল সোমবার বিকেলে ছাতক থানায় বিল্লাল আহমদসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে বলে জানান নিহত ফারুকের ভাই আকিক মিয়া। ফারুক মিয়ার স্ত্রী রেহেনা বেগম বাদী হয়ে থানায় এ অভিযোগ দিয়েছেন। এএসপি সার্কেল দুলন মিয়া জানান, থানায় একটি অভিযোগ নিয়ে এসেছেন ফারুকের স্বজনরা। শুক্রবার রাতে নিখোঁজের পর রোববার দুপুরে উপজেলার পুরান মৈশাপুর গ্রামের পাশের পাতলাচুরা বিল থেকে উত্তর খুরমা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক মিয়ার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

শুক্রবার রাত ২টার দিকে বাড়িসংলগ্ন মুদি দোকানে বিশ্বকাপ ফুটবল ম্যাচ দেখার পর বাড়ি ফেরার পথে নিখোঁজ হন তিনি। ফারুক উপজেলার পুরান মৈশাপুর গ্রামের মৃত মাস্টার আব্দুস সাত্তারের ছেলে।নিহত ফারুকের স্ত্রী রেহেনা বেগমের দাবি, ‘গত ইউপি নির্বাচনে বিরোধীতার কারণে চেয়ারম্যান বিল্লালের সাথে তার স্বামীর দ্বন্দ্ব ছিল। জীবিতাবস্থায় তিনি তাকে বলেছেন চেয়ারম্যান বিল্লাল তার স্বামীকে যে কোন সময হত্যা করতে পারে। এ নিয়ে সবসময় ভীত থাকতেন তিনি। ইউপি চেয়ারম্যান বিল্লাল আহমদ পরিবারের এই অভিাযোগ উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে ফারুক হত্যাকারীদের বিচার দাবি করেছেন। সুনামগঞ্জের পুলিশ সুপার মো. বরকতুল্লাহ খান বলেন, নিহত ফারুকের সাথে স্বজন ও রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের বিরোধ রয়েছে। এ দ’ুটি বিষয়কে গুরুত্ব দিয়ে হত্যাকান্ডেরর তদন্ত চালানো হচ্ছে। তদন্তে প্রভাবশালীদের নামই যদি ওঠে আসে তাদের ছাড় দেয়া হবে না।




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: