সর্বশেষ আপডেট : ৮ মিনিট ৪৬ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২৪ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছাত‌কে ড্রেজার নিয়ে দ্বন্দ্বের কার‌নে বালু উত্তোলন বন্ধ, বেকার হ‌য়ে পড়ে‌ছে ক‌য়েক হাজার শ্রমিক

‌ছাতক প্রতিনিধি:: ছাতকে ড্রেজার নিয়ে দ্বন্দ্বের কার‌নে বালু উ‌ত্তোলন বন্ধ হ‌য়ে প‌ড়ে‌ছে। ফ‌লে এখা‌নে বেকার হ‌য়ে‌ গে‌ছে ক‌য়েক হাজার বালু শ্রমিক। প্রশাসনের নিষেধ সত্ত্বেও ছাতকের চেলা ও পিয়াইন নদীতে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন কর‌ছে এক‌টি মহল। ফলে একদিকে নদীভাঙনের আশঙ্কা যেমন বেড়েছে, অন্যদিকে বালু উ‌ত্তোলনকারী শ্রমিকরা হয়ে পড়েছেন বেকার।

এদিকে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের প্রতিবাদে দু’দিন ধরে বালুর মহাল থেকে বালু উত্তোলন বন্ধ রয়েছে। এতে প্রায় ৪ হাজার দিন মজুর বালু শ্রমিকরা এখন অসহায় হয়ে বেকার জীবন-যাপন পার করছেন।

গত শনিবার দিনভর ছাতক বালু ব্যবসায়ী সমিতি ও সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ বালু ব্যবাসীয় সমিতির পক্ষ থেকে নদীতে মাইকিং করা হয়। বালুমহালে ড্রেজার ব্যবহার বন্দ করতে মাইকিং করার একদিন পরই গত রোববার সকালে পিয়ান নদীতে ড্রেজার পরিচালনাকারী শ্রমিকদের সঙ্গে বালতি দিয়ে বালু উত্তোলন শ্রমিকদের সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছে। গতকাল সোমবার চেলা নদীর মোহনা থেকে ড্রেজার মেশিনসহ তিনটি বালুভর্তি নৌকা আটক করেছে পুলিশ।

সুনামগঞ্জ জেলার শিল্পনগরী হিসেবে পরিচিত ছাতক ও সীমান্তবর্তী সিলেটের কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার রয়েছে একাধিক বালু মহাল। বছরের পর বছর ধরে বালু উত্তোলনকারী শ্রমিকরা নৌকা, টুকরি ও বালতির সাহায্যে মহাল থেকে বালু উত্তোলন করে। স্থানীয় ব্যবসায়ীরা উত্তোলনকৃত এসব বালু বাল্কহেড ও কার্গো দিয়ে সারাদেশে বালু সরবরাহ করে থাকেন। কিন্তু দুই বছর ধরে বালুমহালে ড্রেজার মেশিন দিয়ে স্বল্প খরচে বালু উত্তোলন করায় বালু উত্তোলনকারী শ্রমিকরা বিপাকে পড়েছেন। শ্রমিকদের হাতে উত্তোলনকৃত বালুর খরচ বেশি হওয়ায় কেউ এসব বালু কিনতে চাইছেন না।

বালু ব্যবস্থাপনা আইন ২০১১ সালের নিয়ম অনুযায়ী বালুমহালে শর্ত ভঙ্গ করছেন ইজারাদাররা। ইজারার শর্ত অনুযায়ী নিজস্ব লোকবল দিয়ে বালু উত্তোলন করে খোলা জায়গায় বালু রাখার কথা রয়েছে। কিন্তু ইজারাদার ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করে প্রতিদিন প্রায় দেড় থেকে দুই লাখ ঘনফুট বালু বিক্রি করছেন।
ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের কারণে বালুমহালের গভীরতা বেড়ে যাচ্ছে। এতে নদীভাঙনের আশঙ্কা রয়েছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে ভবিষ্যতে আশ-পাশ এলাকার পরিবেশ হুমকির মুখে পড়বে বলে মন্তব্য করেছেন অনেকেই।

মঙ্গলবার পিয়ান নদীতে চাটিবহর গ্রামের বালু শ্রমিক আনোয়ার মিয়াসহ একাধিক শ্রমিক জানান, আমরা বালতি দিয়ে সারা জীবন ধরেই মহাল থেকে বালু উত্তোলন করছি। দুই বছর ধরে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করে কম মূল্যে বহিরাগত ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রয় করা হচ্ছে। আমরা হাতে উত্তোলন করে ১০-১১ টাকা ফুট হিসাবে বালু বিক্রি করলেও ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করে ৮ থেকে ৯ টাকা ফুট বিক্রি করছে তারা।
ছাতক বাজার বালু ব্যবসায়ী সংগঠনের সভাপতি আবদুস সত্তার জানান, ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের কারণে আমাদের এলাকার কয়েক হাজার দিনমজুর বালু শ্রমিক বেকার হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক: লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: