সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ৩৫ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সিলেটের হকারদের মেয়র আরিফ’র আলটিমেটাম

ওয়েছ খছরু:: সিলেটের মেয়র আরিফ বলছেন- হকাররা নগর ভবনে হামলা চালিয়েছে। আর হকাররা বলছেন- মেয়র ডেকে নিয়ে তাদের নির্যাতন চালিয়েছেন। দু’পক্ষের দুই ধরনের বক্তব্য নিয়ে ধূম্রজাল তৈরি হয়েছে। অন্যদিকে নির্বাচনের আগে হকার উচ্ছেদ ইস্যুটি বেশ জমে উঠেছে। মুখোমুখি অবস্থান নিয়েছেন সিলেটের মেয়র আরিফ ও হকার নেতা আব্দুর রকিব ওরফে রকীব আলী। আরিফের পক্ষে রয়েছেন সিলেটের সুশীল সমাজ সহ বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতারা।
আর হকার নেতা রকিবের পক্ষে অবস্থান নিচ্ছে বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনগুলো। এদিকে- সোমবার রাত দেড়টা পর্যন্ত নগরীর মালঞ্চ কমিউনিটি সেন্টারে সিলেটের ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠকে মেয়র আরিফ হকার নেতা আব্দুর রকীবসহ নগর ভবনে হামলাকারীদের গ্রেপ্তার দাবিতে ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম দিয়েছেন। গতকাল তিনি তার সিটি করপোরেশনের পরিষদ ও পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে সিলেটের রাজপথে শোডাউন করেছেন।

ঈদ এলেই সিলেটের রাজপথে হকার সমস্যাটি তীব্র থেকে তীব্র আকার ধারণ করে। ঈদের কেনাকাটাতে স্থানীয় মার্কেটের ব্যবসায়ীদের বিক্রিতে বিশাল ভাগ বসায় হকাররা। এতে করে লোকসানের মুখে পড়েন ব্যবসায়ীরা। গত দুই বছর ধরে সিলেটের ব্যবসায়ীদের এই দাবির সঙ্গে একাত্ম হয়েছেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। এবারও ঈদকে সামনে রেখে হকার উচ্ছেদ অভিযান শুরু করেন মেয়র। কিন্তু একদিকে উচ্ছেদ চালালেও অন্যদিকে তারা ফের দখলে নেয় ফুটপাথ। অবশেষে পুলিশের ওপর ভরসা না করে মেয়র নিজেই অভিযান চালিয়ে হকারদের মালামাল জব্ধ করে সিটি করপোরেশনে নিয়ে যান। এ নিয়ে কথা বলতে গেলে সিলেট সিটি করপোরেশনের কর্মচারীদের সঙ্গে হকারদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়েছে। এ ঘটনার পরপরই রকিব ঘটনাস্থলে সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করেন- তাকে ডেকে নিয়ে নগর ভবনের ভেতরে নির্যাতন ও মারধর করা হয়েছে। এ সময় তার কয়েকজন হকার নেতাকেও মারধর করা হয়। এতে তাদের অন্তত ১০ জন হকার বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। একই সময় সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর তরফ থেকে অভিযোগ করা হয়- নগর ভবনে হামলা চালিয়েছেন হকার শ্রমিক নেতা আব্দুর রকিবের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা। তাদের হামলায় কয়েকজন কর্মচারী আহত হন
। তারা হাসপাতালে ভর্তি রয়েছে।

রাতে এ নিয়ে নগরীর মালঞ্চ কমিউনিটি সেন্টারে ব্যবসায়ী ও পেশাজীবী নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন সিলেট সিটি মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। ওই বৈঠকে মেয়র অভিযোগ করেন- ফুটপাথ ও সড়কে বসতে বাধা দেয়ায় নগরভবনে হামলা চালায় হকাররা। মহানগর হকার্স লীগের সভাপতি আব্দুর রকিবের নেতৃত্বে এ হামলাকালে তাঁর সঙ্গেও অসৌজন্যমূলক ব্যবহার করা হয় বলে অভিযোগ করেন তিনি। মেয়রের এমন অভিযোগের পর উপস্থিত ব্যবসায়ী ও পেশাজীবী নেতারা আব্দুল রকিবসহ অন্য হামলাকারীদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তারের দাবি জানান। সিলেট জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ লালার সভাপতিত্বে সভায় বক্তারা বলেন, ‘হকাররা আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে ফুটপাথ দখল করে রেখেছে। তারা নগরবাসীকে জিম্মি করে রেখেছে। তাদের কারণে ফুটপাথে চলাফেরা দায় হয়ে পড়েছে। এমন অবস্থা চলতে দেয়া যায় না। নগরবাসীর স্বার্থে এখনি এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে।’ বক্তারা বলেন, ‘আদালতের নির্দেশনা, সিসিকের অভিযানের পরও হকাররা বেপরোয়া হয় কি করে! তাদের পেছনে কারা আছে? তাদের খুঁটির জোর কোথায়? এদের চিহ্নিত করার সময় এসেছে।

সিলেট চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি খন্দকার শিপার আহমদ বলেন, ‘যারা হকারদের শেল্টার দেয়, তারা নগরীর পাঁচ লাখ মানুষের শত্রু। এদের চিহ্নিত করে তাদের সকল কর্মকাণ্ড বয়কট করতে হবে’। বক্তব্য রাখেন, সিলেট মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি ও জেলা ব্যবসায়ী ঐক্য কল্যাণ সমিতির সভাপতি ও নগরীর বিভিন্ন মার্কেট, বিপণি বিতান ও শপিং মলের ব্যবসায়ী নেতারা। সভায় হকারদের তাণ্ডবের চিত্র তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। এ সময় তিনি মঙ্গলবার সকাল থেকে হকার উচ্ছেদ না হওয়া পর্যন্ত অভিযান অব্যাহত রাখবেন বলে ঘোষণা দেন। সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সিলেট প্রেস ক্লাবের সভাপতি ইকরামুল কবির, সুজনের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী, পরিবেশ আন্দোলনের নেতা আব্দুল করিম কিম, জেলা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক শাহ দিদার আলম নবেল, সিলেট প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল মাহমুদ, কাউন্সিলর ফরহাদ চৌধুরী শামীম, রেজওয়ান আহমদ, আফতাব হোসেন খান সহ বিভিন্ন ব্যবসায়ী, পেশাজীবী সংগঠনের নেতারা বক্তব্য রাখেন। রাতের বৈঠকের পর গতকাল দুপুরে সিলেটের রাজপথে পেশাজীবী সংগঠনের নেতৃবৃন্দকে নিয়ে শোডাউন করেছেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। এ সময় তার পরিষদের কাউন্সিলর ও কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। তারা নগর ভবন থেকে হেঁটে হেঁটে সুরমা মার্কেট পয়েন্টের সামন পর্যন্ত এলাকা পরিদর্শন করেন। একইভাবে তারা জিন্দাবাজার এলাকা পর্যন্তও পরিদর্শন করেন। ওই সময় সিলেটের রাস্তায় কোনো হকারদের দেখা যায় নি।

এদিকে- নগর ভবনের ভেতরে ডেকে নিয়ে হামলার ঘটনায় রেজিস্ট্রারি মাঠে সমাবেশ করেছে হকাররা। সিলেট মহানগর হকার কল্যাণ সমিতির সভাপতির মো. রকীব আলীর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক খোকন ইসলামের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- শফিক আহমদ, আতিয়ার রহমান, বশির আহমদ, জসিম উদ্দিন, রফিক মিয়া, শাহজালাল সাজু, ইসরাত জাহান খোকন, শাহ জাহান আহমদ, মোখলেসুর রহমান ও লোকমান হোসেন। সমাবেশকালে রকীব আলী অভিযোগ করেন- মেয়র হকার পুনর্বাসনের কথা বলে যে প্রকল্প হাতে নিয়েছেন সেটি এখন তিনি টাকার বিনিময়ে বিক্রি করে দিচ্ছেন। তিনি নিজেও অবৈধ বাণিজ্যে মেতে উঠেছেন। অথচ হকারদের কথা বলে ওই বাণিজ্য হচ্ছে। সমাবেশ শেষে তারা মিছিলসহকারে এসে সিলেটের জেলা প্রশাসকের কাছে স্মারকলিপি পেশ করেছেন হকার নেতারা। ওই স্মারকলিপিতে তারা ঈদ পর্যন্ত ফুটপাথে ব্যবসা করার অনুমতি দাবি করে বলেন- ‘সিটি করপোরেশনের লোক আমাদের তাড়িয়ে দেয় তখন আমরা চলে যাই। আমাদের বিকল্প স্থান নির্ধারণ ও পুনর্বাসন না করে দিলে আমরা অসহায় হকারদের ছেলে সন্তানদের লেখাপড়া ও পরিবার পরিজনের খাবার এবং বৃদ্ধ পিতা-মাতার চিকিৎসাও বন্ধ হয়ে যাবে।’




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: