সর্বশেষ আপডেট : ৫ মিনিট ৯ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ১৬ অগাস্ট ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ঢাকেশ্বরী মন্দিরে সেবায়েত নিয়োগে হাইকোর্টে রুল

নিউজ ডেস্ক:: নিয়ম অনুযায়ী ঢাকেশ্বরী মন্দিরে সেবায়েত নিয়োগ করার জন্য রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে আবেদনকারী পল্টন কুমার দাসকে সেবায়েত হিসেবে নিয়োগ দেয়ার নির্দেশ কেন দেয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে।

২০১৭ সালে ভারতে প্রধান সেবায়েতের মৃত্যুবরণ করার পর থেকে ঢাকেশ্বরী মন্দিরে কেউ সেবায়েতের দায়িত্বে নেই।

আগামী তিন সপ্তাহের মধ্যে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সচিব, জেলা প্রশাসক ও হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সচিব কে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

সোমবার এক সেবায়েত প্রার্থীর করা রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে হাইকোর্টের বিচারপতি নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি সহিদুল করিমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ রুল জারি করেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষ ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অমিত তালুকদার।

রিটকারীর আইনজীবী খুরশীদ আলম খান জানান, ১৯৬৭ সালের ভারতের সুপ্রিম কোর্টের এক রায়ের আলোকে ‘সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে ১৯৯৯ সালে ঢাকেশ্বরী মন্দিরে প্রদীপ কুমার চক্রবর্তী প্রধান সেবায়েত হিসেবে নিয়োগ পেয়েছিলেন। পরে সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের রায়েও সে নির্দেশনা বহাল ছিল’

এ আইনজীবী বলেন, ‘ভারতে সেবায়েত নিয়োগ সংক্রান্ত ১৯৬৭ সালের একটি মামলার রায়ের আলোকে আমাদের সর্বোচ্চ আদালত ১৯৯৯ সালের ৯ মে প্রদীপ কুমার চক্রবর্তী সেবায়েত হিসেবে নিয়োগ পেয়েছিলেন।

ওই রায়ে বলা আছে, মন্দিরে জমিদানকারী অথবা জমিদানকারীর বংশধরেরা সেবায়েত নিয়োগের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন। রিটকারী পল্টন কুমার দাসের ঠাকুর দা সুধীর কুমার দাস ঢাকেশ্বরী মন্দিরে জমি দান করেছিলেন। ভাওয়ার রাজার সময়ের (আমলের) সিএস রেকর্ড অনুযায়ী মন্দিরের ৫ শতাংশ জমি সুধীর কুমার দাসের নামে। সে হিসেবে সেবায়েত হিসেবে রিটকারী পল্টন কুমার দাস অগ্রাধিকার পাওয়ার কথা।’

রিটকারী পল্টন কুমার দাস বলেন, ‘গত বছরের ১৯ ফেব্রুয়ারি ভারতে প্রধান সেবায়েত প্রদীপ কুমার চক্রবর্তীর মৃত্যুর পর থেকে ঢাকেশ্বরী মন্দিরে কোনো সেবায়েত নেই। বলা যায় মন্দিরটি অভিভাবক শূন্য।

প্রয়াত সেবায়েতের দুই ছেলের দু’জনই ভারতের নাগরিক। ফলে তাদের পক্ষে এ মন্দিরের সেবায়েতের দায়িত্ব নেয়াও সম্ভব না।

পল্টন দাস বলেন, ‘গত বছর প্রধান সেবায়েতের মৃত্যুর পর মন্দির রক্ষণাবেক্ষণ, ব্যবস্থাপনার জন্য ২০১৭ সালের ১২ এপ্রিল প্রধান সেবায়েতের স্ত্রীসহ ৯ সদস্যের একটি কমিটি ঢাকার যুগ্ম জেলা জজ আদালত-৪ থেকে অনুমতি নেয়। কিন্তু সংক্ষুব্ধ পক্ষের এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৭ সালের ৩০ জুলাই হাইকোর্ট সে কমিটির কার্যক্রম স্থগিত করে।

তাছাড়া গত প্রায় দেড় বছরে ঢাকেশ্বরী মন্দিরে নানা অনিয়ম, অব্যবস্থাপনার খবর বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ পেয়েছে। এসব অনিয়ম নিয়ে প্রকাশিত খবর সংযুক্ত করে সেবায়েত প্রার্থী হিসেবে মে মাসে হাই কোর্টে রিট আবেদন করা হয়। সে রিট আবেদনে শুনানি নিয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

রিটকারীর দাবি, বৈধ ওয়ারিশ হিসেবে তিনি সেবায়েত হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার দাবি রাখেন’ মন্দিরের পূজা-অর্চনার কার্যক্রম পরিচালনাসহ আইন অনুযায়ী মন্দিরের রক্ষণাবেক্ষণ, ব্যবস্থাপনাকারীকে সেবায়েত বলা হয়।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: