সর্বশেষ আপডেট : ১০ মিনিট ৫৮ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সিলেটে ‘যাকাত ও উশর’ শীর্ষক সেমিনার

বাংলাদেশস্থ সৌদী দুতাবাসের দ্বা‘য়ী ও জামেয়া কাসেমিয়া কামিল মাদরাসা নরসিংদীর উপাধ্যক্ষ শায়খ হাফিয মাওলানা মাহমুদুল হাসান আল মাদানী বলেছেন- ইসলামের মুল পাচঁটি স্তম্ভের মধ্যে একটি হচ্ছে যাকাত। আর যাকাতের সাথে সংশ্লিষ্ট বিষয় হলো উশর। কিন্তু আমাদের সমাজে নামাজ রোযার উপর যেভাবে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে যাকাতের উপর সেভাবে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছেনা। অথচ যাকাত ভিত্তিক সমাজ ব্যবস্থার মাধ্যমে ক্ষুধা ও দারিদ্র মুক্ত সমাজ এবং রাষ্ট্র গঠন করা সম্ভব। আমাদের সমাজে বিচ্ছিন্ন বিক্ষিপ্তভাবে যাকাত আদায় করা হচ্ছে। কিন্তু যাকাত আদায়ের পদ্ধতি এবং ব্যায়ের ক্ষেত্র সম্পর্কে পুরোপুরি ধারনা না থাকায় মানুষ এর সুফল থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। যাকাত সম্পর্কে ধারণা থাকলেও উশর সম্পর্কে আমাদের সমাজে তেমন কোন আলোচনা নেই। কিন্তু যাকাত এবং উশর উভয়ই পরস্পরের সাথে সর্ম্পকযুক্ত। তাই কুরআন ও সুন্নাহর নির্দেশনা অনুসারে যাকাত এবং উশর আদায় ও এর ব্যায়ের ব্যপারে আলেম সমাজকে অগ্রনী ভুমিকা পালন করতে হবে।
তিনি শনিবার জালালাবাদ ইমাম ফাউন্ডেশন সিলেট-এর উদ্যোগে ‘যাকাত ও উশর’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথা বলেন।

ফাউন্ডেশনের সভাপতি শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় জামে মসজিদের ইমাম ও খতিব মাওলানা মতিউর রহমানের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারী মাওলানা জামাল আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সেমিনারে জাতীয় ও সিলেটের স্থানীয় পর্যায়ের শীর্ষ স্থানীয় আলেম ও ইসলামী চিন্তাবিদগণ অংশ নেন। নগরীর দরগাগেইটস্থ কেন্দ্রীয় মুসলিম সাহিত্য সংসদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সেমিনারের শুরুতেই পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন হাফিজ মাওলানা দেলোয়ার হোসাইন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে শায়খ হাফিয মাওলানা মাহমুদুল হাসান আল মাদানী আরো বলেন- বাংলাদেশ সহ গোটা বিশ্বে বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে পড়েছে। এর অন্যতম কারণ হচ্ছে আল্লাহর শরীয়াতের বিধানের বাস্তবায়ন থেকে দুরে সরে আসা। এর ফলে মুসলিম উম্মাহ আজ নানা বিপর্যয়ের জর্জরিত। দরিদ্রতা, ক্ষুধা, বেকারত্ব, অন্যের সম্পদ লুন্ঠন, ছিনতাই, ডাকাতি, খুন-খারাবী সহ সমাজে জঘন্য অপরাধে আমাদের সমাজ আজ কলুষিত। যতই আইন বিচার হোক না কেন? ইসলাম এবং তার অর্থনৈতিক বিধিবিধানের বাস্তবায়ন ছাড়া এ সংকট থেকে মুক্তির কোন পথ নেই। কারণ একমাত্র ইসলামী অর্থনীতিই তার ঈমানী মুল্যবোধ, উন্নত চরিত্রের সুষমা, আর শরয়ী অনুশাসনের দ্বারা মানুষের জন্য পুত পবিত্র সুখ সমৃদ্ধিতে পরিপূর্ণ সম্মানিত জীবন নিশ্চিত করতে পারে। তাই আমাদের আলেম সমাজকে যাকাত ও উশরের মত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সমাজের মুসলমানদের সচেতন করতে হবে। তাহলে সমাজ ও রাষ্ট্র এর সুফল ভোগ করতে পারবে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- আন্জুমানে খেদমতে কুরআন সিলেটের সভাপতি প্রফেসর মাওলানা সৈয়দ একরামুল হক, বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ও এমসি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের সাবেক অর্থনীতি বিভাগের প্রধান প্রফেসর ড. আব্দুল আহাদ, প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন বাংলাদেশস্থ সৌদী দুতাবাসের দ্বা‘য়ী শায়খ মাওলানা ইসহাক আল মাদানী, শাহজালাল জামেয়া ইসলামিয়া কামিল মাদরাসা পাঠানটুলা সিলেটের প্রিন্সিপাল মাওলানা লুৎফুর রহমান হুমায়দী, বিশিষ্ট আলেমে দ্বীন হযরত মাওলানা আব্দুল মতিন ধনপুরী, বাংলাদেশ জাতীয় ইমাম সমিতি সিলেট মহানগর সভাপতি মাওলানা হাবিব আহমদ শিহাব, জাতীয় ইমাম সমিতি সিলেট জেলা সভাপতি মাওলানা এহসান উদ্দিন প্রমুখ।

সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন- বাংলাদেশস্থ সৌদী দুতাবাসের দ্বা‘য়ি শায়খ সাঈদ নুরুজ্জামান আল মাদানী, অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুস সালাম আল মাদানী, হাফিজ মিফতাহুদ্দীন, মুফতী ফয়জুল হক জালালাবাদী, মাওলানা আসলাম রহমানী, হাফিজ মাওলানা মাহবুবুর রহমান, মাওলানা মাহমুদুর রহমান দিলোয়ার, মাওলানা মকছুছুল করিম চৌধুরী, মাওলানা ফখরুল ইসলাম, মাওলানা আব্দুল আউয়াল তারাপাশি, মাওলানা আব্দুল ওয়াদুদ, মাওলানা ওলীউর রহমান, মাওলানা আব্দুল হাফিজ মাসুক, মাওলানা আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ।

প্রফেসর মাওলানা সৈয়দ এশরামুল হক বলেন- আমাদের সমাজে কালেমা, নামাজ, রোযা ও হজ্জ নিয়ে যতটা আলোচনা হচ্ছে যাকাত নিয়ে ততটা আলোচনা হচ্ছেনা। আর উশর নিয়ে আলোচনা নেই বললেই চলে। এব্যাপারটি আলেম সমাজের নজরে আনতে হবে।
প্রফেসর ড. আব্দুল আহাদ বলেন- যাকাত হচ্ছে দারিদ্র বিমোচনের ইসলাম ভিত্তিক সর্বোচ্চ পন্থা। বাংলাদেশে নিয়ম মাফিক যাকাত আদায় করলে এবং যাকাত প্রকৃত খাতে ব্যবহার করলে দারিদ্র হৃাস পেতে খুব একটা বেগ পেতে হবেনা। উশরের বিষয়টি নিয়ে আলেম সমাজকে অগ্রনী ভুমিকা পালন করতে হবে।
শায়খ ইসহাক আল মাদানী বলেন- যাকাতের খাতগুলো আমার কাছেই পুরোপুরি স্পষ্ট নয়। আর উশর সম্পর্কে আমাদের কোন আগ্রহ নেই। যাকাত ও উশর সম্পর্কে সচেতনতা সৃষ্টি করতে এধরনের সেমিনারের বিকল্প নাই।

অধ্যক্ষ মাওলানা লুৎফুর রহমান হুমায়দী বলেন- যাকাত ভিত্তিক সমাজ না থাকায় সুদ মহামারি আকার ধারণ করেছে। আর ইসলামের মৌলিক স্তম্ভ যাকাত ও উশর প্রকৃত ভাবে আদায় এবং ব্যবহার না থাকায় নানা বিপর্যয় ঘটছে। এ বিষয় নিয়ে আলেম সমাজকে আরো বেশী সচেতন হতে হবে।
মাওলানা আব্দুল মতিন ধনপুরী বলেন- আমাদের সমাজে অনেকেই যাকাত সম্পর্কে পুরোপুরি অবগত নন। উশর জানবেন কিভাবে। অথচ দুটিই আমাদের জন্য অত্যাধিক গুরুত্বপূর্ণ। যাকাত ও উশরের বিষয়টি গুরুত্বের সাথে আমাদের আলেম সমাজের নজরে আনতে হবে।
মাওলানা হাবিব আহমদ শিহাব বলেন- সামর্থবান অনেকেই আছেন যাকাতের প্রকৃত মাসয়ালা জানেন না। আর উশর সম্পর্কে তাদের ধারণা থাকবে কিভাবে। এব্যাপারে ইমাম সমাজকে আরো সচেতন হতে হবে।

মাওলানা এহসান উদ্দিন বলেন- যাকাতের বিষয়টি আসলে উশর আসার কথা। কিন্তু আমাদের সমাজে তা পরিলক্ষিত হচ্ছেনা। নিয়মতান্ত্রিকভাবে কোরআন সুন্নাহর আলোকে যাকাত ও উশর আদায়ে রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক উদ্যোগ নেয়া প্রয়োজন। এব্যাপারে আলেমগণ অগ্রনী ভুমিকা পালন করতে পারেন।
সভাপতির বক্তব্যে মাওলানা মতিউর রহমান বলেন- দেশ ও জাতিকে এগিয়ে নিতে হলে যাকাত ভিত্তিক সমাজ ব্যবস্থার বিকল্প নেই। যাকাত ও উশরের প্রয়োজনীয় অনুধাবন এবং এ অনুযায়ী কাজ করার জন্য আলেম সমাজকে সচেতন করতেই আমাদের এই সেমিনার। এর ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে। – বিজ্ঞপ্তি




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: