সর্বশেষ আপডেট : ৫১ মিনিট ৫ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২ পৌষ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

এবার রাগীব আলীর চা বাগান দখলে নিল চা বোর্ড

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলায় রাগীব আলী’র মালিকানাধীন কাশিপুর টি এষ্টেট দখলে নিয়েছে চা বোর্ড। তবে বাগান কর্তৃপক্ষ বলছে এখনও বাগানটি তাদের দখলে রয়েছে। এনিয়ে বাগান কর্তৃপক্ষ ও বাংলাদেশ চা বোর্ডের মধ্যে ধূর্মজাল সৃষ্টি হয়েছে।

সরকারের পক্ষে আদালতের রায় আসায় রোববার দিনব্যাপি মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসনের পক্ষে শ্রীমঙ্গলস্থ চা বোর্ডের একটি টিম র‌্যাব, বিজিবি ও পুলিশকে সাথে নিয়ে যৌথ অভিযান চালায়। অভিযান শেষে বাগানের বিভিন্ন পয়েন্টে চা বোর্ডের কয়েকটি চাইন বোর্ড স্থাপন করা হয়। এ সময় বাগানের শতশত শ্রমিকরা উত্তেজিত হয়। পরে চা বোর্ডের প্রতিনিধি দল তাদেরকে বিভিন্ন সুবিধা দেয়ার কথা বলে শান্ত করেন।

জানা যায়, দীর্ঘ দিন যাবত কাশিপুর চা বাগান নিয়ে সরকারের সাথে রাগীব আলী’র স্বত্ত মামলা (মামলা নং-৯৩/১১) চলে আসছে। এর প্রেক্ষিতে গত মাসের ৩০ এপ্রিল মৌলভীবাজার জেলা ও যুগ্ন ১ম জজ আদালত রাগীব আলী’র আবেদন খারিজ করেন। এই আদেশের প্রেক্ষিতে মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসকের আদেশক্রমে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সঞ্জিত কুমার চন্দ শ্রীমঙ্গল আঞ্চলিক চা বোর্ডের কর্মকর্তাদের সাথে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করেন। তবে রোববার সকালে কাশিপুর টি স্টেটের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ রিজওয়ান আলম অবগতি ও মানবিক দিক বিবেচনা করে সহযোগিতা চেয়ে জেলা প্রশাসক বরাবর একটি আবেদন করেন। আবেদনে তিনি উল্লেখ করেন, জেলা জজ কোর্টের আদেশের প্রেক্ষাপটে হাইকোর্ট ডিভিশনে (৪০৩/১৮) ১৩ মে মামলা দায়ের করলে আদালত শুনানী শেষে স্থিতা অবস্থা প্রদান করেন।
উচ্ছেদ কার্যক্রম পরিচালনায় উপস্থিত ছিলেন চা বোর্ডে সচিব নূরুল্লাহ নূরী, রাজনগর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রাখী আহমদ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) রাশেদুল ইসলাম, রাজনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শ্যামল বণিকসহ চা বোর্ড, জেলা প্রশাসন ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।
অভিযান পরিচালানাকারী শ্রীমঙ্গল আঞ্চলিক চা বোর্ডের সচিব মোঃ নুরুল্লাহ নুরী বলেন, “বর্তমান দখলকারী কর্তৃপক্ষ ১৯৬৫ সাল থেকে ১৪০ একরের বাগানটি অবৈধ দখল করে আসছেন এবং বিভিন্ন মামলা দিয়ে নিজেদের দখলানা ঠিকিয়ে রাখার চেষ্টা করছেন। এতদিন মামলা নিষ্পত্তি না হওয়ায় সরকার দখলে আনতে পারেনি। কিন্তু এবার সম্ভব হয়েছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রাশেদুল ইসলাম পিপিএম বলেন, উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আদেশক্রমে চা বোর্ডের লোকদের সাথে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।
বাগানের ম্যানেজার মোঃ শাহাব উদ্দিন এর সাথে কথা হলে তিনি বলেন, জেলা জজ কোর্টের আদেশের প্রেক্ষিতে হাইকোর্ট যে স্থিতা অবস্থার আদেশ দিয়েছে তার কাগজ দেখানোর পরেও চা বোর্ড এবং পুলিশ প্রশাসন আমাদের কথা না শুনে জোরপূর্ব বাংলো থেকে আমাকে বাহির করে দিয়েছেন। উত্তেজিত শ্রমিকদের মিথ্যা প্রলোভন দিয়ে আন্দোলন থেকে বিরত রাখা হয়েছে।




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: