সর্বশেষ আপডেট : ১৯ মিনিট ১৪ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ২০ অগাস্ট ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

মহারাষ্ট্রে বিয়েতে সতীত্বের পরীক্ষা, নীরবে দানা বাঁধছে বিদ্রোহ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: ভারতের পশ্চিমাঞ্চলের প্রদেশ মহারাষ্ট্রের পুনের প্রত্যন্ত একটি অঞ্চল ভাতনগর। ঘুমন্ত প্রায় এই নগরীতে নীরব এক বিদ্রোহ মাথা চাড়া দিয়ে উঠছে। এই অঞ্চলের ‘কানজারভাত’ সম্প্রদায়ের নতুন প্রজন্মের তরুণীরা বিয়েতে কুমারীত্বের পরীক্ষার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছেন। শত বছরের পুরনো এই রীতি ভেঙে কুমারীত্বের পরীক্ষার অবসান ঘটিয়ে নতুন স্বপ্নের বীজ বুনছেন তারা। তাদের এ স্বপ্নে এখন সাহস জোগাচ্ছেন কানজারভাতের তরুণরাও।

এই সম্প্রদায়ের শত বছরের পুরনো রীতি অনুযায়ী সাদা কাপড় পরে বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ করেন বর ও কনে। সতীচ্ছেদের রক্তের দাগ সাদা কাপড়ে দেখিয়ে নিজের বিশুদ্ধতার পরীক্ষার প্রমাণ করতে হয় কনেকে।

jagonews24

আধুনিক ভারতে মেয়েদের সতীত্বের পরীক্ষা বিরল একটি ঘটনা। দেশটিতে অল্প কিছু সম্প্রদায় এটি করে থাকে। এক সময়ের প্রায় একঘরে বহিরাগত কানজারভাত সম্প্রদায়ের জিপসি উপজাতির মধ্যে এই রীতি এখনো বহাল তবিয়তে রয়েছে।

কিন্তু হিন্দু প্রধান ভারতে সম্প্রতি পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীর তরুণ প্রজন্মের আন্দোলনে পরিবর্তনের জোয়ার দেখা গেছে। দেশটিতে নিম্ন বর্গের মানুষরা শিক্ষা-চাকরি সুবিধা থেকে বঞ্চিত হলেও পুরোহিত সামাজিক ব্যবস্থায় পরিবর্তন আসায় বেশ সুযোগ সুবিধা পাচ্ছেন তারা।

কানজারভাত সম্প্রদায়ের তরুণ প্রজন্ম নারী অধিকারের বিষয়ে বিশেষ গুরুত্ব দিতে শুরু করেছে। একই সঙ্গে সম্প্রদায়ের জ্যেষ্ঠ নেতাদের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে নারীদের সাহস দিচ্ছেন তারা। এই জ্যেষ্ঠরাই পূর্ব পুরুষের রেখে যাওয়া সতীত্বের পরীক্ষা ও মূল্যায়ন ব্যবস্থা জারি রাখতে চায়।

কানজারভাত সম্প্রদায়ের ৫৫ বছর বয়সী লীলাবাই। সংসার ভেঙেছে তার, সম্প্রদায়ের মানুষের কাছে এক নামে পরিচিত তিনি। চার দশক আগে কীভাবে তিনি এই সতীত্বের পরীক্ষার মুখোমুখি হয়েছিলেন সেই অভিজ্ঞতার কথা শুনিয়েছেন মার্কিন দৈনিক ওয়াশিংটন পোস্টকে। লীলাবাই বলেন, তার বয়স তখন ১২ বছর। ‘এই সময় আমি কিশোরী।’ তিনি বলেন, ‘আমি বুঝতে পারিনি, কী ঘটছে আমার সঙ্গে।’

সতীত্বের পরীক্ষায় তীব্র ক্ষোভ থাকলেও এতদিন তা প্রকাশ করতে পারেননি লীলাবাই। এমনকি এই পরীক্ষার মুখোমুখি হয়েছেন তার কন্যারাও। বর্তমানে লীলাবাইয়ের নেতৃত্বে কানজারভাত সম্প্রদায়ের বিধবা আরো বেশ কিছু নারীর একটি গ্রুপ এই পরীক্ষার বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন। সমাজে যারা এ পদ্ধতি জারি রাখতে চান সেই নেতাদের বিরুদ্ধে সংঘর্ষেও জড়িয়েছেন বিধবা এই নারীরা।

বিবেক তামাইচিকার চলতি বছরের শেষের দিকে বিয়ের পিঁড়িতে বসবেন। তিনি বলেছেন, তার বিয়েতে এই পরীক্ষা হতে দেবেন না তিনি। তিনি মনে করেন, এটা এক ধরনের অপ্রাসঙ্গিক এবং নিষ্ঠুর কাজ।

তামাইচিকার বলেন, যারা এ প্রাচীন রীতি অনুযায়ী বিয়ে করতে রাজি হবেন না, তাদের সমাজচ্যুত করার হুমকি দিয়েছে সম্প্রদায়ের অন্যান্য সদস্যরা।

কানজারভাতের উল্লেখযোগ্যসংখ্যক নারী এবং পুরুষরা বলেন, তামাইচিকার প্রচারণা সম্প্রদায়ের রীতিনীতিকে অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে আলোচনায় নিয়ে এসেছে। কলেজে কীভাবে কানজারভাত সম্প্রদায়ের তরুণীরা হয়রানির শিকার হন সে অভিজ্ঞতার কথাও তুলে ধরলেন বেশ কয়েকজন।

jagonews24

তারা বলছেন, রাস্তায় হাঁটার সময় তাদের সহপাঠীরা অনেক সময় সাদা রুমালে লাল রঙ লাগিয়ে সেটি মেয়েদের দিকে তুলে ধরে। এছাড়া রাজ্যের বাইরে থেকে কানজারভাত সম্প্রদায়ের তরুণীদের বিয়ের প্রস্তাব আসাও অতীতের তুলনায় কমে গেছে।

তবে সতীত্বের পরীক্ষার ব্যাপারে বহিরাগতদের কাছে সম্প্রদায়ের অনেকেই মিথ্যাচার করছে বলেও জানালেন বেশ কিছু নারী। লীলাবাই বলেন, তারা সবাই মিথ্যুক। তামাইচিকার বলেন, গ্রামের পঞ্চায়েত বা সম্প্রদায়ের নেতাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে অনেকেই ভয় পান। কথা বললে সমাজচ্যুতি অথবা হুমকির মুখোমুখি হতে পারেন তারা।

১৮৭১ সালের ঔপনিবেশিক আমলের আইনে কানজারভাত সম্প্রদায়কে অপরাধী উপজাতি হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। সেই সময় থেকেই কানজারভাত সম্প্রদায় নিজেদের ব্যাপারে কর্তৃপক্ষকে না জানানোর পথ বেছে নেয়। এই সম্প্রদায়ে বিয়ে, খুন এমনকি অন্যান্য সব অপরাধের বিচার হয় পঞ্চায়েত নেতাদের সিদ্ধান্তে।

১৯৬০ সালের দিকে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে সমাজের মূলধারায় নিয়ে আসতে ভারত সরকার বিভিন্ন কর্মসূচি ও নীতিমালা হাতে নিলেও ভাতনগরে তার ছোঁয়া লাগেনি। এখনো দারিদ্র কবলিত মহারাষ্ট্রের এই অঞ্চল।

বিবেকের চাচাতো বোন প্রিয়াঙ্কা তামাইচিকার বলেন, তিনি প্রতিবাদকে পরিবর্তনের শুরু মনে করছেন। ‘আমি মনে করি, আমার সম্প্রদায়ে শুধুমাত্র আমিই একমাত্র তরুণী, যে মনে করে, এই পরীক্ষা সঠিক নয়।’

তিনি বলেন, আমি একজন নববধূকে মারপিট করতে দেখেছি। আমি দেখেছি, নারীরা তাদের রক্তাক্ত কাপড় দেখার জন্য ঘরে ঢুকছেন। আমার এই জীবনে আমি মনে করি, এদিন আমরা মুক্তি পাবো এবং তাদের দেখিয়ে দেবো যে তারা ভুল। একদিন আমি এমন কিছু করবোই।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: