সর্বশেষ আপডেট : ৯ ঘন্টা আগে
সোমবার, ২২ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কানাইঘাটে উচ্ছেদ অভিযোগের বদলে স্থায়ী বসতি পেলে দরিদ্র ফয়জুল হক

কানাইঘাট প্রতিনিধি::
কানাইঘাটে উচ্ছেদ অভিযোগের বদলে স্থায়ী বসতি পেয়েছেন দরিদ্র ফয়জুল হক।

পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে তিনি তার নতুন বসতিতে মাথা গুজার ঠাই করে নিয়েছেন। উপজেলার লক্ষীপ্রসাদ পশ্চিম ইউপির সিঙ্গারীপাড় গ্রামের মৃত ছইফ উল্লাহর পুত্র দরিদ্র ফয়জুল হক দীর্ঘ দিন থেকে হাজী মুহিবুর রহমানের বাগানের ছোট একটি কুড়ে ঘরে ১ছেলে সহ ২ মেয়ে নিয়ে বসবাস করতেন। হাঠাৎ করে বাগানের মালিক বাগানটি আহমদ আলী নামে একজনের কাছে বিক্রি করে দেন। এতে বিপাকে পড়ে যান দরিদ্র বৃদ্ধ ফয়জুল হক। কারন নতুন মালিক তাকে নির্ধারিত সময়ে বসতি ছেড়ে অন্যত্র চলে যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। এতে তিনি নিরুপায় হয়ে নতুন মালিক আহমদ আলীর কাছে সেখানে থাকার জন্য অনুনয় করলেও কর্ণপাত করেনি নতুন মালিক। বরং তাকে উচ্ছেদ করার জন্য কানাইঘাট থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

জানা গেছে অভিযোগের প্রেক্ষিতে থানার এএসআই মো. শামসুল আরেফিন জিহাদ ভূঁইয়া দুর্গম এই পাহাড়ী এলাকায় তদন্তে যান। সেখানে গিয়ে তিনি দরিদ্র বৃদ্ধার মেয়ে এবারের এসএসসি পরীক্ষার্থীর ফলপ্রার্থী ফাতেমা বেগম ও মাদ্রাসার ৬ষ্ঠ শ্রেণী পড়–য়া মেয়ে কুলসুমা বেগমের লেখাপড়ার র্দুভোগ দেখেন। পরে তিনি অভিযোগের বাদী নতুন মালিক আহমদ আলীকে বুঝিয়ে বাগানের নিচে ৫ শতাংশ জমি ঐ দরিদ্র বৃদ্ধাকে দান করার জন্য অনুরুদ করেন। এতে আহমদ আলী রাজি হলে থানার এএসআই শামসুল আরেফিন জিহাদ ভূঁইয়া তার নিজস্ব অর্থায়নে একটি টয়লেট সহ দুই রুম বিশিষ্ঠ টিনসেডের একটি ঘর তৈরী করে দেন।

এ ব্যাপারে দরিদ্র বৃদ্ধা ফয়জুল হকের সাথে কথা হলে তিনি তার মানবেতর জীবনের নানা কাহিনী তুলে ধরে বলেন সন্তানদের নিয়ে এত দিন তিনি যেন অন্ধকারে ছিলেন। বৃদ্ধ এই বয়সে এখন থেকে সে যেন এক নতুন ঠিকানা খুজে পেয়েছে। এদিকে থানার এএসআই মো. শামসুল আরেফিন জিহাদ ভূঁইয়া জানান, একটি উচ্ছেদ অভিযোগের তদন্তে গিয়ে অসহায় পরিবারের অবস্থা দেখে তার মনটি কোমল হয়ে যায়। মনে পড়ে যায় সেই গানের লাইনটুকু “মানুষ মানুষের জন্য, নিজের বেতনের জমানো কিছু টাকা দিয়ে অসহায় বৃদ্ধকে স্থায়ী বসতি করে দিতে পেরে তিনি আনন্দিত। বিশ্বস্থসূত্রে জানা যায় বাংলা নতুন বছরের শুরুতেই পহেলা বৈশাখে অসহায় পরিবারের সকল সদস্যকে নতুন জামা ও মিষ্টি নিয়ে তাদের বাড়িতে বসতি স্থাপন করিয়ে দেন তিনি।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: