সর্বশেষ আপডেট : ২৬ মিনিট ৪৯ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বন্ধুদের ভালোবাসা উপেক্ষা করে ওরা চলে গেলেন

নিউজ ডেস্ক:: রাতদিন এদিক-ওদিক ছুটাছুটি করে টাকা, রক্ত ও ঔষধসহ যাবতীয় ব্যবস্থা করেও তিন বন্ধু হাফিজ, দীপ্ত ও শাহিনের কাউকে বাঁচানো গেল না। ২০-২৫ জন বন্ধু সর্বদা তাদের বাঁচাতে প্রাণপণ চেষ্টা করলেও বন্ধুদের ভালোবাসাকে উপেক্ষা করে তারা চলে গেলেন না ফেরার দেশে।

বলা হচ্ছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের আইসিইউতে চিকিৎসাধীন খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) বস্ত্র প্রকৌশল বিভাগের তিন মেধাবী শিক্ষার্থীর কথা। যারা ময়মনসিংহের ভালুকায় বিস্ফোরণে দগ্ধ হয়ে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে প্রহর গুণছিলেন গত পাঁচদিন।

তাদের সুস্থতায় নির্ঘুম রাত অার ক্লান্তিহীন পরিশ্রম করেছেন সহপাঠীরা। তবে মৃত্যুর কাছে পরাজয় মেনে নিতে হয়েছে তাদের। নিভে গেছে হাফিজ, দীপ্ত ও শাহিনের উজ্জ্বল জীবনের অালো। এক টুকরো বিস্ফোরণের অাগুনে মৃত্যুকে অালিঙ্গন করে চলে গেছেন না ফেরার দেশে।

গত ২৪ মার্চ রাতে ময়মনসিংহের ভালুকায় একটি ছয়তলা ভবনের তৃতীয় তলায় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ হন খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) ছাত্র শাহীন মিয়া, হাফিজুর রহমান ও দীপ্ত সরকার। একই বিস্ফোরণে ঘটনাস্থলেই মারা যান আরেক সহপাঠী তাওহীদুল ইসলাম। বাকি তিনজনকে উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করা হলে তারা চলে গেছেন না ফেরার দেশে।

তাদের এমন মৃত্যু যেন অাশার মাঝে নিরাশার অন্তরীন। শাহীন মিয়া, হাফিজুর রহমান, দীপ্ত সরকার ছিলেন নিম্নবিত্ত পরিবারের একমাত্র ভরসা। তাদেরকে ঘিরেই পরিবারগুলো শূন্যতার মাঝে পূর্ণতার স্বপ্ন দেখেছিল। কিন্তুু সব আশা অার পূর্ণতার প্রত্যাশা মিশে গিয়েছে হতাশার বালুচরে। স্বজনদের চোখে-মুখে এখন শুধু দীর্ঘঃশ্বাস।

নিজেদের অসহায় নিম্নবিত্ত পরিবারের হাল ধরার অাশায় গত ফেব্রুয়ারিতে কুয়েটে ফাইনাল পরীক্ষা শেষে ময়মনসিংহের ভালুকায় স্কয়ার ফ্যাশন কারখানায় শিক্ষানবিশ (ইন্টার্ন) প্রকৌশলী হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন তারা। প্রত্যাশা ছিল একমাস পর বস্ত্র প্রকৌশলের স্বীকৃতি নিয়ে বের হবেন। একমাসের জন্য ওই পোশাক কারখানার পাশে মাস্টারবাড়ি এলাকার ছয়তলা ভবনের তিনতলায় চার বন্ধু মিলে একটি ফ্ল্যাট ভাড়া নিয়েছিলেন।

কিন্তু ২৪ মার্চ দিনগত রাত ১টার দিকে ওই বাসার সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ হন তারা এবং তাওহীদুল ইসলাম নামে অারও একজন ঘটনাস্থলেই মারা যান। দগ্ধ তিনজন দীপ্ত, হাফিজ এবং শাহিনকে উদ্ধার করে প্রথমে স্থানীয় একটি হাসপাতালে ও পরে ঢামেক হাসতালে ভর্তি করা হয়। টানা চারদিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে গতকাল বুধবার দিনগত রাতে না ফেরার দেশে চলে যান শাহিন মিয়া। এরপর মৃত্যুর কাছে হেরে গেলেন অপর দু’জনও। হাফিজ বৃহস্পতিবার দিনগত রাত দেড়টায় ও শুিক্রবার সকাল সাড়ে ৯টায় দিকে দীপ্ত মারা যান।

তাদের স্মৃতিচারণ করে বন্ধু নাসরুল ফুয়াদ বলেন, তারা ছিল অত্যন্ত মেধাবী। বিশ্ববিদ্যালয়ের সেরা দশের তালিকায় ছিলেন। এমনকি পড়াশোনার বাহিরেও তাদের অাচরণ ছিল মনে রাখার মতো। সবার সঙ্গে প্রাণ খুলে মিশতো। তারা গরিব হলেও মনটা ছিল সুবিশাল। কখনও গরিবের মত অাচরণ করেনি। তাদের ভালোবাসায় ক্লাসের সবাই সিক্ত ছিল।

কথাগুলো বলতে গিয়ে নাসরুল ফুয়াদের কণ্ঠ বারবার চেপে অাসছিল। শুধু নির্বাক চাহনি অার নয়নের নোনা জলে নিজেদের প্রচেষ্টা উপেক্ষা করে বন্ধুদের চলে যাওয়ার বেদনায় কাতরাচ্ছেন। শুধু ফুয়াদই নয়। এমন দৃশ্য ঢামেক বার্ন ইউনিটের অাইসিইউর সামনে অবস্থানরত অারও ২০-২৫ বন্ধুর চাহনিতেও।

তাদের আরেক বন্ধু বশির মির্জা বলেন, অামাদের সকল চেষ্টা যেন বৃথা হয়ে গেল। তাদের পরিবারের জন্য অামরা কিছুই করতে পারিনি। অনেকে অনেক সাহায্য সহযোগিতা করেছে। তাতেও তারা ফিরে অাসেনি। তাদেরকে ঘিরেই পরিবারগুলোর অনেক স্বপ্ন ছিল। অথচ সব স্বপ্ন বাড়িওয়ালার ভুলে দুঃস্বপ্ন হয়ে গেল।

তিনি আরও বলেন, বন্ধুরা তো বাঁচেনি। কিন্তুু তাদের পরিবারগুলোকে তো বাঁচাতে হবে। এ ঘটনায় পুলিশ বাড়িওয়ালকে অাসামি করে মামলা দিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকেও মামলা দেয়ার হবে বলে জেনেছি। তবে অামাদের একটায় দাবি- তাদের ক্ষতিপূরণ যেন অসহায় পরিবারগুলো দ্রুত পায়, সে ব্যবস্থা যেন হয়। তা নাহলে অামরা কঠোর অান্দোলনে নামব।

এ বিষয়ে বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারির জাতীয় প্রধান সমন্বয়কারী ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, শুরু থেকেই তাদের অবস্থা সঙ্কটাপন্ন ছিল। শাহিনের ৮৩ শতাংশ, দীপ্তের ৫৪ এবং হাফিজের ৫৮ শতাংশ বার্ন হয়েছিল। তাদের সবারই শ্বাসনালী পুড়ে গিয়েছিল। এ ধরনের রোগীকে বাঁচানো খুবই ক্রিটিকেল। তবুও অামরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। কিন্তুু তারা চলে গেলেন।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: