সর্বশেষ আপডেট : ৬ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ২৩ অক্টোবর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জেলেদের নিবন্ধন-পরিচয়পত্র দিতে নির্দেশিকা হচ্ছে

নিউজ ডেস্ক:: জেলেদের নিবন্ধন ও পরিচয়পত্র দিতে নির্দেশিকা করছে সরকার। এজন্য ‘জেলেদের নিবন্ধন ও পরিচয়পত্র প্রদান নির্দেশিকা, ২০১৮’ এর খসড়া করেছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়। সংশ্লিষ্টদের মতামত দিয়ে এখন এটি চূড়ান্ত করা হবে।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় থেকে জানা গেছে, দেশে প্রায় এক কোটি ৮৫ লাখ মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে মৎস্য উপ-খাতের উপর নির্ভরশীল। প্রকৃতপক্ষে জেলে সম্প্রদায় অঞ্চলভেদে বিভিন্ন জলাশয়ে বিভিন্ন ধরণের জাল ও সরঞ্জাম দিয়ে মাছ আহরণ করে থাকে। কোনো কোনো জেলে সারা বছরই মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে আবার কেউ বছরের একটি নির্দিষ্ট সময় মাছ ধরার কাজে নিয়োজিত থাকে। ২০১২ সালের আগে জেলেদের কোনো সঠিক পরিসংখ্যান ছিল না। এতে প্রকৃত জেলেদের চিহ্নিত করা যেতো না। সরকারি সহায়তা দেয়ার ক্ষেত্রে জেলে নির্বাচনে সমস্যা হতো।

এই পরিপ্রেক্ষিতে দেশের মৎস্যজীবীদের সঠিক পরিসংখ্যান নির্ণয়ের জন্য মৎস্য অধিদফতর ৭৩ কোটি ১৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ২০১২ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত ‘জেলেদের নিবন্ধন ও পরিচয়পত্র প্রদান’ শীর্ষক একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে দেশের প্রায় ১৬ লাখ ২০ হাজার জেলে নিবন্ধিত হন। এরমধ্যে ১৪ লাখ ২০ হাজার জেলেকে পরিচয়পত্র দেয়া হয়েছে। জেলে নিবন্ধন একটি চলমান প্রক্রিয়া। এই কার্যক্রম অব্যাহত রাখার জন্য মৎস্য অধিদফতরকে অর্থ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। বরাদ্দ দেয়া অর্থ সুষ্ঠুভাবে জেলেদের নিবন্ধন ও পরিচয়পত্র কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য নির্দেশিকা প্রণয়ন করা প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন মৎস্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা।

নির্দেশিকায় জেলের সংজ্ঞা নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। নির্দেশিকা অনুযায়ী, জেলেরা নিজ নিজ সিনিয়র/উপজেলা কর্মকর্তার কাছে নিবন্ধন ও পরিচয়পত্রের জন্য আবেদন করবেন। আবেদনের সঙ্গে নাগরিকত্ব সনদ, ছবি ও জাতীয় পরিচয়পত্রের সত্যায়িত অনুলিপি জমা দিতে হবে। আবেদনপত্র উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নেতৃত্বে ‘উপজেলা পর্যায়ে জেলে নিবন্ধন ও পরিচয়পত্র প্রদান কমিটি’ যাচাই-বাছাই করে চূড়ান্ত তালিকা অনুমোদন ও নিবন্ধন দেবে এবং উপজেলা মৎস্য অফিসে অনলাইন ডাটাবেইজে ডাটা এন্ট্রি করবে। উপজেলা নিবন্ধন কমিটি নিবন্ধিত জেলেদের পরিচয়পত্র দিতে সুপারিশসহ মহাপরিচালকের কাছে পাঠাবে। মহাপরিচালক ইস্যু করা পরিচয়পত্র নিজ নিজ উপজেলায় বিতরণের জন্য উপজেলা মৎস্য অফিসে পাঠাবেন।

নিবন্ধিত ও পরিচয়পত্রধারীদের ডাটাবেইজে মৃত জেলেদের নাম বাদ ও নতুন জেলেদের নাম অনলাইন ডাটা বেইজে অন্তর্ভুক্ত হবে। প্রতিবছর জুলাই থেকে ডিসেম্বরের মধ্যে উপজেলা মৎস্য অফিস ডাটাবেইজ হালনাগাদ করবে।




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: