সর্বশেষ আপডেট : ৫ মিনিট ৪৬ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

রাশিয়ার গুপ্তচরকে নার্ভ এজেন্ট প্রয়োগের প্রমাণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:: রাশিয়ার সাবেক গুপ্তচরকে নার্ভ এজেন্ট প্রয়োগের ২৪০য়ের বেশি সাক্ষ্য প্রমাণ পাওয়া গেছে বলে পুলিশের তদন্ত প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে। পুলিশ এখন আরও দুইশোর মতো প্রমাণ খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে। ষষ্ঠ দিনের মতো সাবেক রুশ গুপ্তচর সেরগেই স্ক্রিপাল এবং তার মেয়ে ইউলিয়াকে বিষাক্ত রাসায়নিক নার্ভ এজেন্ট ব্যবহার করে হত্যা চেষ্টার তদন্ত চলছে। খবর বিবিসি।

কমপক্ষে পাঁচ স্থানে ফরেনসিক তদন্ত চালানো হয়েছে যেখানে সাবেক রুশ গুপ্তচর এবং তার মেয়ের ওপর অত্যন্ত বিষাক্ত রাসায়নিক নার্ভ এজেন্ট ব্যবহার করা হয় বলে ধারনা করা হচ্ছিল।

তারা যেখানে দুপুরের খাবার খান অর্থাৎ জিজ্জি নামের সলসবেরির একটি পিৎজ্জার দোকানে নার্ভ এজেন্টের সন্ধান মিলেছে। পিৎজ্জার দোকান ছাড়াও স্ক্রিপালের বাড়ি, একটি পানশালা এবং তার স্ত্রী ও ছেলের সমাধি আছে রয়েছে যে কবরস্থানে সেখানেও সন্ধান করা হচ্ছিল নার্ভ এজেন্টের।

জিজ্জিতে দুপুরের খাবারের অন্তত দু’ঘণ্টা পরে সাবেক ঐ রুশ গুপ্তচর ও তার মেয়েকে অত্যন্ত সঙ্কটাপন্ন অবস্থায় কাছেই একটি পার্ক থেকে উদ্ধার করা হয়। তাদের উদ্ধারে যাওয়া একজন পুলিশ কর্মকর্তাও এখন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন।

নার্ভ এজেন্ট হচ্ছে উচ্চ-ক্ষমতাসম্পন্ন বিষাক্ত রাসায়নিক যা স্নায়ুতন্ত্রকে বিকল বা অকার্যকর করে দিতে পারে এবং তাতে দৈহিক কর্মক্ষমতা বন্ধ হয়ে যেতে পারে। তবে ঐ রেস্টুরেন্টে সে সময়ে আর কারো উপস্থিতির বিষয়ে নিশ্চিত হতে পারেনি তদন্তকারী সংস্থা। স্থানটিকে বর্তমানে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর তত্ত্বাবধানে রাখা হয়েছে।

রাশিয়ার একজন সামরিক গোয়েন্দা হিসেবে নিজের দেশের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করে যুক্তরাজ্যের গোয়েন্দা সংস্থা এমআইসিক্সকে ইউরোপে রাশিয়ার গোয়েন্দাদের সম্পর্কে তথ্য দিতেন সেরগেই স্ক্রিপাল। বিশ্বাসঘাতকদের হত্যার বিষয়ে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বেশ কিছু প্রমাণ রয়েছে।

ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রী জানিয়েছেন এই বিষয়ে রুশ সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পাওয়া গেলে তার তীব্র প্রতিবাদ জানানো হবে। যদিও মস্কো তার জড়িত থাকার বিষয়ে অস্বীকার করেছে। ঘটনার তদন্তে কমপক্ষে ২৫০ জন কাউন্টার টেরোরিজম পুলিশ সদস্যসহ সেনা বাহিনীর বিভিন্ন সদস্য নিয়োজিত রয়েছেন। স্ক্রিপাল এবং তার মেয়ে ইউলিয়া দুজনেই এখনো আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।


নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: