সর্বশেষ আপডেট : ১৫ মিনিট ৩৫ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বাংলাদেশি বিমান বাজেয়াপ্ত করছে ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক::
পার্কিং ফি না দিয়ে ভারতের ছত্তিশগড়ে রায়পুরের মানা বিমানবন্দরের পার্কিং বে -তে দীর্ঘ ৩ বছর ধরে দাঁড়িয়ে থাকায় বাংলাদেশের একটি বেসরকারি বিমান সংস্থার বিমান বাজেয়াপ্ত করার সিদ্ধান্ত নিতে চলছে ভারত।

বিমানবন্দর সূত্রের খবর, বাংলাদেশের বেসরকারি বিমান সংস্থা ইউনাইটেড এয়ারের ২২০ আসন বিশিষ্ট এই বিমানটি ২০১৫ সালে ঢাকা থেকে ওমানের রাজধানী মাসকট যাওয়ার পথে ইঞ্জিনের সমস্যায় জরুরি অবতরণ করে মানা বিমানবন্দরে। তারপর থেকেই বিমানটি রানওয়ের পাশে পার্কি বে-তে দাঁড়িয়ে আছে। ২০১৬ সাল একবার বাংলাদেশ থেকে ইঞ্জিনিয়ার নিয়ে এসে মেরামত করার চেষ্টা করার পাশাপাশি বিমানটির ইঞ্জিন বদল করেও কোনো লাভ হয়নি। এতে ব্যর্থ হয় বিমানটিকে ফের উড়িয়ে বাংলাদেশে নিয়ে আসার সব চেষ্টা।

অভিযোগ রয়েছে, দীর্ঘ ৩ বছর ধরে পার্কি বে-তে থাকার কারণ বিমানটির পার্কিং ফি বাবদ বকেয়া টাকাও পরিশাধ করা হয়নি বিমান সংস্থাটির পক্ষ থেকে। ইতিমধ্যেই পার্কিং ফি বাবদ পাওনা বেড়ে গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৬০ লক্ষ রুপি। যা নিয়ে বার বার চিঠি দিয়েও কোনোও সদুত্তর পাওয়া যায়নি ইউনাইটেড এইয়্যারের তরফে। গত ৩০শে আগস্ট ২০১৬ ইউনাইটেড জানায়, আইনগত কিছু জটিলতার কারনে বিমানটিক উড়িয়ে বাইরে আনা সম্ভব নয়।

এদিকে, মানা বিমানবন্দর কর্তপক্ষের দাবি, ছোট এই বিমানবন্দরে স্থানাভাবের জন্য বিমানটি অবতরণের আপত্তি জানিয়েছিলেন তারা । কিন্তু সেসময় বিমানটির চালক তার আপৎকালীন পরিস্থিতি এবং ঝুঁকির কথা বলে বিমান সেখানেই নামাতে চান। বাধ্য হয় ৫ মিনিটের মধ্যে রানওয়ে খালি করে নিরাপদে বিমানটিকে অবতরণ করতে সাহায্য করে কর্তৃপক্ষ। এরপর থেকে বিমানবন্দরের ৬টি পার্কিং বে-র একটি গত ৩ বছর দখল করে রয়েছে পরিত্যক্ত এই বাংলাদেশি বিমানটি।

সম্প্রতি জানা গেছে, বাংলাদেশি এই বিমান সংস্থার পক্ষ থেকে কোনোও সাড়া না পাওয়ায় এবার পার্কিং ফি বাবদ বকেয়া টাকা পরিশোধের জন্য ডিরেক্টর জেনারেল অফ সিভিল অ্যাভিয়েশনের তরফে চূড়ান্ত নোটিশ পাঠানো হয়েছে ইউনাটেড কে। এই নোটিশের জবাব পাওয়া না গেলে বাজেয়াপ্ত করা হবে বিমানটি।

সূত্রের খবর, ইউ‌নাইটেড এয়ারওয়েজের ১১টি বিমান দেশের বিভিন্ন বিমানবন্দরে পড়ে রয়েছে। যার মধ্যে ২টি ভাড়া করা এবং বাকি ৯টি উড়োজাহাজ নিজস্ব অর্থায়নে কেনা। সেগুলোর মধ্যে ৫টি ইতিমধ্যেই কার্যক্ষমতা হারিয়েছে। বাকি ৫টির মধ্যে চারটিকে ব্যয়বহুল মেরামত করা হলে ফের বহরে যুক্ত করা যেতে পারে। আর বাকি এই একটি বিমান ভারতর এই বিমানবন্দরে পড়ে রয়ছে।







নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: