সর্বশেষ আপডেট : ৭ মিনিট ৪১ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জামালগঞ্জে ১টি বাঁধের কাজকে অপ্রয়োজনীয় বলায় ১৫ গ্রামের কৃষকদের বিক্ষোভ ও মানববন্ধন

জামালগঞ্জ প্রতিনিধি:: হাওর বাঁচলে এলাকা বাঁচবে, এলাকা বাঁচলে দেশ ও সরকারের উন্নয়ন হবে’ এই প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে সুনামগঞ্জের জামালগঞ্জে পাকনার হাওরের ভীমখালীর অংশের সুরমা নদীর তীরের ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ হলে ওই বাঁটি অপ্রয়োজনীয় বলে স্থানীয় ২-৩ টি পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলে ১৫ গ্রামের সহশ্রাধিক কৃষক এর প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করে মানববন্ধন করেছেন।

বুধবার দুপুরে ৫নং ভীমখালী ইউনিয়নের হাওরবাসীর উদ্যোগে এ মানববন্ধন অনুষ্টিত হয়। জামালগঞ্জ উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণে ঘন্টাব্যাপী মানবন্ধনে বক্তব্য রাখেন, স্থানীয় ইউপি সদস্য হাবিবুর রহমান, ইউপি সদস্য এরতাজ আলীর, ইউপি সদস্য আবু লেইচ, কৃষক জিল্লুর রহমান, ওয়াকিব মিয়া, রঞ্জিত তালুকদার, কৃষক প্রতিনিধি সিহাব উদ্দিন, আল আমিন হক, মফিজুর রহমান, সাদির উদ্দিন, মনফর আলী, আব্দুল কদ্দুস, সাবেক ইউপি সদস্য মো. মানিক মিয়া, মুকাব্বীর, গিয়াস উদ্দিন, ফারুক প্রমূখ। বক্তারা বলেন, বিগত কয়েক বছর যাবত পাকনা হাওরে ভীমখালী ইউনিয়নের পিয়াই নদীর পাড় দিয়ে আফর বাঁধ দিয়ে হাওরে পানি প্রবেশ করে আমাদের ১৫ গ্রাম সহ ভীমখালী, ফেনারবাঁক ও জামালগঞ্জ সহ পাকনা হাওরের সমস্ত জমি তলিয়ে যায়। বারবার ফসল হানীর কারণে আজ আমাদের জীবণ বিপন্নের দিকে যাচ্ছে। ছেলে মেয়েদের লেখা পড়ার পাশাপাশি সমস্থ মৌলিক কাজ ব্যাহত হয়ে আসছে।

গত ইউপি নির্বাচনের পনাজয়ের পর প্রতিহিংসার জেরে আমাদের ইউনিয়ন সহ তিনটি ইউনিয়নের সমস্থ কৃষকদের ফসল রক্ষার উদ্যেশে বিভিন্ন সংবাদকর্মীদের ভুল ও মিথ্যা তথ্য দিয়ে স্থানীয় কয়েকচি গণ মাধ্যমে প্রচার করে বাঁধটি নাকি অপ্রয়োজনীয়। এখানে সরকারী টাকা অজথা ব্যয় করা হয়েছে। আসলে সত্যিকার অর্থে আফার বাঁেধর কারণে আমাদের কয়েক হাজার হেক্টর জমির ফসল রক্ষা হবে। তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সহ উর্ধোতন কর্মকর্তার নিকট আমাদের জোর দাবী হাওর রক্ষার স্বার্থে পিয়াই নদী সহ আপর বাঁধ দ্রুত নির্মাণের দাবী জানান। হাওর রক্ষা ও ফসল রক্ষার সুবিধার্থে ৫নং ভীমখালী ইউনিয়নের সর্ব শ্রেনীর পক্ষ থেকে ২শত কৃষকের স্বাক্ষরিত একটি স্মারক লিপি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে জেলা প্রশাসকের নিকট প্রেরণ করা হয়। এ সময় অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও হাওর বাচাও সুনামগঞ্জ বাচাও আন্দোলনের সুনামগঞ্জ জেলার সহ সভাপতি ইউসুফ আল আজাদ, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হাফিজা আক্তার দিপু, সাচনা বাজার ইউপি চেয়ারম্যান রেজাউল করিম শামীম, ফেনার বাক ইউপি চেয়ারম্যান করুনা সিন্ধু তালুকদার, ভীমখালী ইউপি চেয়ারম্যান মো. দুলাল মিয়া, জামালগঞ্জ সদর ইউপি চেয়ারম্যান সাজ্জাদ মাহমুদ তালুকদার সাজিব, জামালগঞ্জ উত্তর ইউপি চেয়ারম্যান মো. রজব আলী প্রমুখ। এব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শামীম আল ইমরান বলেন, যেখানে বাঁধ নির্মান হচ্ছে. তা খুবই প্রয়োজনীয়। এর পরের তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। তদন্ত প্রতিবেদন পেলেই জানা যাবে বাঁধটি প্রয়োজনীয় না অপ্রোজনীয়।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: