সর্বশেষ আপডেট : ১৭ মিনিট ১৪ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ২৩ জানুয়ারী, ২০১৮, খ্রীষ্টাব্দ | ১০ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জগন্নাথপুরে কৃষকদের বাদ দিয়ে পিআইসি কমিটি, প্রতিবাদে চেয়ারম্যানের পদত্যাগ

জগন্নাথপুর প্রতিনিধি:: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে সরকারি নীতিমিালা লঙ্ঘন করে বেড়ি বাধের পাশে থাকা প্রকৃত কৃষকদের বাদ দিয়ে উপজেলা বিভিন্ন স্থানে পিআইসি কমিটি গঠনে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সিন্ডিকেটের মাধ্যমে হাওর রক্ষা বেড়িবাধ নির্মাণ ও মেরামত কাজ করতে পিআইসি কমিটি বানিয়ে লুটপাটের প্রস্তুতি চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে। যে কারণে এবারো হাওর রক্ষা বেড়িবাধের কাজ যথা সময়ে এবং সঠিকভাবে না হওয়ার আশঙ্কা করছেন কৃষকরা।

জানাগেছে, বিগত বছর ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ও পিআইসি কমিটির মাধ্যমে জগন্নাথপুর উপজেলার সকল হাওর রক্ষা বেড়িবাধের কাজ করা হয়ে ছিল। তখন পিআইসি কমিটি কিছু কাজ করলেও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজ না করায় জগন্নাথপুরে হাওর ডুবিতে ফসল হানির ঘটনা ঘটে। যে কারণে এবার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে বাদ দিয়ে শুধু পিআইসি কমিটির মাধ্যমে বেড়িবাধের কাজ করা হচ্ছে।

এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ব্যক্তি সুবিধা আদায়ে একটি সিন্ডিকেট বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। বেড়িবাধের পাশে থাকা জমির মালিক ও প্রকৃত কৃষকদের নিয়ে পিআইসি কমিটি গঠনের কথা থাকলেও তাদেরকে বাদ দিয়ে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে কমিটি গঠনের হিড়িক চলছে বলে কৃষকরা অভিযোগ করেন। সেই সাথে স্থানীয় জন-প্রতিনিধিদের তৈরী করা অনেক কমিটি থেকে কৃষকদের বাদ দিয়ে লুটেরাদের নাম অর্ন্তভূক্ত করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনার প্রতিবাদ জানাতে উপজেলার কলকলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আবদুল হাসিম পিআইসি কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছেন। গত বৃহস্পতিবার জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিকট লিখিতভাবে পদত্যাগ করেন চেয়ারম্যান আবদুল হাসিম।

এ ব্যাপারে পিআইসি কমিটি থেকে পদত্যাগকারী কলকলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল হাসিম বলেন, যেখানে সরকারি নীতিমালা লঙ্ঘল করে করে নিয়মকে অনিয়মে পরিণত করা হয়েছে, সেখানে আমি থাকার সুযোগ নেই। প্রকৃত কৃষকদের নিয়ে তৈরি করা আমার ৮টি কমিটি বাতিল করা হয়েছে। এখানে অর্ন্তভূক্ত করা হয়েছে এলাকার বিতর্কিত ফখরুল হোসেনের মতো অনেক লুটেরাদের নাম। ক্ষমতার অপব্যবহার করে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে সৃজন হওয়া কমিটি দিয়ে রীতিমতো লুটপাটের প্রস্তুতি চলছে। অবস্থা বেগতিক দেখে আমি বাধ্য হয়ে পদত্যাগ করেছি। তবে হাওর তলিয়ে ফসল হানি হলে ক্ষতিগ্রস্ত হবে কৃষকরা। তাদের তো কিছুই হবে না। দুঃখজনক হলেও সত্যি নলুয়ার হাওরে আমি ২৩ হাল জমির মালিক থাকা সত্বেও আমি পিআইসি কমিটিতে থাকতে পারেনি।
জগন্নাথপুর উপজেলা হাওর উন্নয়ন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান বলেন, সরকারি নীতিমামলার বাইরে পকেট কমিটি গঠনের মাধ্যমে লুটপাটের প্রতিবাদ জানাতে এলাকার জনপ্রিয় চেয়ারম্যান আবদুল হাসিম পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছেন। নলুয়ার হাওর পাড়ের দাস নোয়াগাঁও গ্রামের বাসিন্দা সাবেক ইউপি সদস্য অনিল চন্দ্র দাস বলেন, প্রকৃত কৃষক ছাড়া কমিটি হওয়ায় এবার হাওর রক্ষা বেড়িবাধ যথা সময়ে হবে কিনা না আশঙ্কা রয়েছে। গত বছর যেদিকে বাধ ভেঙে নলুয়ার হাওর তলিয়ে ছিল। সেই স্থানে এখনো কাজ শুরু হয়নি।

উপজেলার রাণীগঞ্জ ইউনিয়নের ইউপি সদস্য তেরা মিয়া বলেন, আমি প্রকৃত কৃষকদের নিয়ে পিআইসি কমিটি তৈরী করে ছিলাম। তবে কিভাবে কৃষকদের বাদ দিয়ে অন্যদের নাম কমিটিতে অর্ন্তভূক্ত করা হয়, তা আমার বোধগম্য নয়।
যদিও সরজমিনে দেখাযায়, সময়ের আগেই উপজেলার নারিকেলতলা হাওর রক্ষা বেড়িবাধে গত প্রায় এক সপ্তাহ ধরে কাজ করছেন পিআইসি কমিটির সভাপতি স্থানীয় ইউপি সদস্য আবুল কালাম। সময়ের আগে কাজ শুরু হওয়ায় কৃষকদের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি দেখা গেলেও উপজেলার অধিকাংশ বেড়িবাধের গভীর ভাঙনে এখনো কাজ শুরু হয়নি।

 

 

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: