সর্বশেষ আপডেট : ২৪ মিনিট ৩৬ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ২৩ এপ্রিল, ২০১৮, খ্রীষ্টাব্দ | ১০ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছাত্রীকে যৌন হয়রানি : ১৩ পুলিশ প্রত্যাহার

নিউজ ডেস্ক::

খুলনার বটিয়াঘাটা উপজেলায় পুলিশ ফাঁড়ির ১২ কনস্টেবল ও এক এএসআইকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানি এবং প্রতিবাদ করায় তার ভাইকে মারধরের অভিযোগে এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। তারা খারাবাদ-বাইনতলা পুলিশ ফাঁড়িতে দায়িত্বরত ছিলেন। মঙ্গলবার সদস্য প্রত্যাহারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন খুলনা পুলিশ সুপার নিজামুল হক মোল্লা।

এদিকে বটিয়াঘাটা থানার ওসি মোজাম্মেল হক মামুন বলেন, যৌন হয়রানির অভিযোগ সত্য নয়। তবে এক ছাত্র পুলিশের সঙ্গে তর্ক করলে তার সঙ্গে এক কনস্টেবলের হাতাহাতি হয়। যুবকটিকে ফাঁড়িতে নিয়ে মারধরের অভিযোগ করা হলে বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়।

কর্তৃপক্ষ ওই ফাঁড়ির ১৩ পুলিশ সদস্যকে প্রত্যাহার করে। স্থানীয় লোকজন এবং পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ওই যুবকের বোনকে এক পুলিশ সদস্য যৌন হয়রানি করে আসছিল। যুবকটি এর প্রতিবাদ করায় পুলিশ সদস্যরা তাকে ফাঁড়িতে তুলে নিয়ে মারধর করে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে এলাকার লোকজন দুপুরে ফাঁড়ি ঘেরাও করে। পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা আসার পর উত্তেজিত লোকজন শান্ত হয়।

ছাত্রীর বাবা জানান, তার মেয়ে দশম শ্রেণিতে পড়ে। প্রতিদিন স্কুলে এবং কোচিংয়ে যাওয়ার সময় পুলিশ ফাঁড়ির কয়েক সদস্য যৌন হয়রানি করত। মঙ্গলবারও একই ঘটনা ঘটে। ছাত্রী বিষয়টি তার ভাইকে জানায়। ছাত্রীর ভাই ক্যাম্প ইনচার্জ এএসআই তারেকুজ্জামানকে বিষয়টি জানাতে যায়। ইনচার্জকে ক্যাম্পে না পেয়ে ফিরে আসে। পরে কনস্টেবল নাঈম, মামুন, রিয়াজ, আবির ও নায়েব জাহিদ বিষয়টি জানতে পেরে যুবকের দোকানে এসে ধরে ফাঁড়িতে নিয়ে যায় এবং মারধর করে। দোকানে ভাংচুরও চালায় তারা।

খবর পেয়ে স্থানীয়রা ফাঁড়ি ঘেরাও করে।

খবর পেয়ে গ্রামবাসী ফাঁড়িতে গেলে পুলিশের সঙ্গে কয়েকজনের ধস্তাধস্তি হয়। গ্রামবাসী ফাঁড়ি ঘিরে রাখেন। আমীরপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান গোলদার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যান এবং বটিয়াঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) ঘটনা জানান। ওসি মোজাম্মেল হক ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তাদের নিয়ে ঘটনাস্থলে যান এবং পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

খুলনার পুলিশ সুপার ঘটনা জানার পর দুপুরে কনস্টেবল মো. নাঈম, মামুন, রিয়াজ, আবির ও জাহীদকে ফাঁড়ি থেকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দেন। পরে বিকেলে ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সহকারী উপপরিদর্শক তারিকুজ্জামানসহ বাকি সাত সদস্যকেও প্রত্যাহার করা হয়।

নির্যাতনের শিকার যুবককে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে মামলা করা হবে। স্থানীয় এক বাসিন্দা জানান, সকাল সাড়ে ৯টার দিকে স্কুলে যাওয়ার পথে ওই ছাত্রীকে যৌন হয়রানি করে কনস্টেবল নাঈমসহ বেশ কয়েক পুলিশ সদস্য। ছাত্রী তার ভাইকে এ ঘটনা জানায়। তার ভাই প্রতিবাদ করলে তাকে ফাঁড়িতে ধরে নিয়ে মারধর করা হয়।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাটি ওসিকে জানাই। পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এলে বিক্ষুব্ধ জনতা শান্ত হয়।

খুলনার পুলিশ সুপার মো. নিজামুল হক মোল্যা বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে ওই ফাঁড়ির সব পুলিশ সদস্যকে খুলনা পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করা হয়েছে। ঘটনা তদন্তে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাঈমুল হককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: