সর্বশেষ আপডেট : ১৮ মিনিট ৫৩ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ২১ এপ্রিল, ২০১৮, খ্রীষ্টাব্দ | ৮ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আজ বছরের প্রথম সংসদ অধিবেশন

নিউজ ডেস্ক::

নতুন বছরে জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন বসছে আজ রবিবার। এটি হবে দশম জাতীয় সংসদের ১৯তম অধিবেশন। বিকাল ৪টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হবে। এর আগে বেলা ৩টায় কার্য উপদেষ্টা কমিটির বৈঠক হবে। এতে অধিবেশন কতদিন চলবে তা ঠিক করা হবে।

বিধান অনুযায়ী, বছরের প্রথম অধিবেশন হওয়ায় এদিন ভাষণ দেবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। রেওয়াজ অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির ভাষণের পর সংসদ অধিবেশন মূলতবি করা হবে। এরপর অধিবেশন শুরু হলে চিফ হুইপ রাষ্ট্রপতির ভাষণের ওপর ধন্যবাদ প্রস্তাব আনবেন। পরে সংসদ সদস্যরা ধন্যবাদ প্রস্তাবের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নেবেন। তবে গত বছরের মতো এবারও কিছুটা ব্যতিক্রম হবে- মন্ত্রিসভার ঠিক করে দেয়া ভাষণের সংক্ষিপ্তসার পড়বেন রাষ্ট্রপতি। এ মেয়াদে রাষ্ট্রপতি হিসেবে শেষবারের মতো সংসদে বছর শুরুর অধিবেশনে ভাষণ দেবেন আবদুল হামিদ।

সংসদ সচিবালয়ের এক কর্মকর্তা জানান, চলমান সংসদের কোনো সদস্যের মৃত্যু হলে অধিবেশনে শোকপ্রস্তাব গ্রহণের পর রেওয়াজ অনুযায়ী বৈঠক মুলতবি হয়। সাবেক মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী ছায়েদুল হক এবং গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা আহমেদের মৃত্যুতে অধিবেশনে শোকপ্রস্তাব গ্রহণ হবে। ওই কর্মকর্তা বলেন, রাষ্ট্রপতির ভাষণ সাংবিধানিক নিয়ম। তাই শোকপ্রস্তাব গ্রহণের পর অধিবেশন কিছুক্ষণের জন্য মুলতবি হবে। সন্ধ্যা ৬টায় সংসদে ভাষণ দেবেন রাষ্ট্রপতি। ২০১৬ সালে গাইবান্ধার সংসদ সদস্য মনজুরুল ইসলাম লিটনের মৃত্যুর কারণে অধিবেশন কিছুক্ষণ মুলতবির পর ভাষণ দেন রাষ্ট্রপতি।

২০১৪ সালের ২৯ জানুয়ারি যাত্রা শুরু করে বিএনপিবিহীন দশম সংসদ। অধিবেশন শুরুর দিন রেওয়াজ অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি জাতীয় সংসদের উত্তর প্লাজা দিয়ে প্রবেশ করবেন, যা ‘প্রেসিডেন্ট প্লাজা’ নামেও পরিচিত। ৬৫ হাজার বর্গফুটের এ জায়গা মূলত রাষ্ট্রপতির প্রবেশের জন্য তৈরি করা। সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তারা জানান, সংসদে প্রবেশের সময় সশস্ত্র বাহিনীর একটি বাদ্যদল রাষ্ট্রপতিকে সম্ভাষণ জানাবে। উত্তর প্লাজার ফ্ল্যাগ স্টান্ড থেকে তিনতলার ‘বিশেষ লিফট’ পর্যন্ত বিছানো থাকবে লালগালিচা। বিশেষ লিফটে করেই সংসদ ভবনে সাত তলায় রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে যাবেন আবদুল হামিদ।

এক কর্মকর্তা জানান, রাষ্ট্রপতি এবার স্পিকারের পাশে রাখা ডায়াসে দাঁড়িয়ে ভাষণ দিতে পারেন। ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে যোগ দিতে শনিবার দুপুরে কুষ্টিয়া গেছেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। রবিবার ঢাকায় ফিরে সংসদে যাবেন বলে জানিয়েছেন তার প্রেস সচিব জয়নাল আবেদীন।

এদিকে সংসদ অধিবেশন কেন্দ্র করে কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)। ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া এক বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানান। প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ৬ জানুয়ারি রাত ১২টা থেকে সব ধরনের অস্ত্রশস্ত্র, বিস্ফোরক দ্রব্য, অন্যান্য ক্ষতিকারক ও দূষণীয় দ্রব্য বহন এবং যে কোনো প্রকার সমাবেশ, মিছিল, শোভাযাত্রা, বিক্ষোভ প্রদর্শন ইত্যাদি নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ১৯তম অধিবেশন শেষ না হওয়া পর্যন্ত এ আদেশ বলবৎ থাকবে। নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকবে যেসব এলাকা সেগুলো হল- মহাখালী ক্রসিং থেকে পুরাতন বিমানবন্দর হয়ে বাংলামটর ক্রসিং পর্যন্ত, বাংলামটর লিংক রোডের পশ্চিম প্রান্ত থেকে হোটেল সোনারগাঁও রোডের সার্ক ফোয়ারা পর্যন্ত, পান্থপথের পূর্বপ্রান্ত থেকে গ্রিন রোডের সংযোগস্থল হয়ে ফার্মগেট পর্যন্ত, মিরপুর রোডের শ্যামলী মোড় থেকে ধানমণ্ডি ১৬ নম্বর (পুরাতন-২৭) সড়কের সংযোগস্থল, রোকেয়া সরণির সংযোগস্থল থেকে পুরাতন নবম ডিভিশন (উড়োজাহাজ) ক্রসিং হয়ে বিজয় সরণির পর্যটন ক্রসিং, ইন্দিরা রোডের পূর্বপ্রান্ত থেকে মানিক মিয়া এভিনিউয়ের পশ্চিমপ্রান্ত, জাতীয় সংসদ ভবনের সংরক্ষিত এলাকা এবং এই সীমানার মধ্যে অবস্থিত সব রাস্তা ও গলিপথ।

জানা গেছে, এ বছর রাষ্ট্রপতির মূল ভাষণ ৭২ হাজার ৩৮৬ শব্দের। সংক্ষিপ্ত ভাষণে রাখা হয়েছে সাত হাজার ৪৫৭টি শব্দ। রাষ্ট্রপতির এ ভাষণ গত ৭ ডিসেম্বর মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনুমোদন দেয়া হয়। গত বছর জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি এক ঘণ্টায় পাঁচ হাজার ৮০৬ শব্দের সংক্ষিপ্ত ভাষণ দিয়েছিলেন। এবারের ভাষণে ৯টি বিষয় বিস্তারিতভাবে বর্ণনা করা হয়েছে।

এ অধিবেশনে এ পর্যন্ত ১৮টি বিল জমা হয়েছে। এর মধ্যে পাসের অপেক্ষায় আছে পাঁচটি, কমিটিতে পরীক্ষাধীন আছে ১০টি, আর উত্থাপনের জন্য রয়েছে তিনটি। পাসের অপেক্ষায় থাকা বিলগুলো হল- বাংলাদেশ ক্ষুদ্র, কুটির ও মাঝারি শিল্প বিল ২০১৭, রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিল ২০১৭, বাংলাদেশ কলেজ ফিজিশিয়ানস অ্যান্ড সার্জন বিল ২০১৭, মানব দেহে অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ সংযোজন (সংশোধন) বিল ২০১৭ এবং ব্যাংক কোম্পানি (সংশোধন) বিল ২০১৭। কমিটিতে পরীক্ষাধীন বিলগুলো হল- বাংলাদেশ জাহাজ পুনঃপ্রক্রিয়াজাতকরণ বিল ২০১৭, বাংলাদেশ শিল্পপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ বিল ২০১৭, কৃষিকাজে ভূ-গর্ভস্থ পানি ব্যবস্থাপনা বিল ২০১৭, বীজ বিল ২০১৭, ওয়ান স্টপ সার্ভিস বিল ২০১৭, বিদ্যুৎ বিল ২০১৭, বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড বিল ২০১৭, নজরুল ইস্টটিটিউট বিল ২০১৭, সেনানিবাস বিল ২০১৭ ও শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় বিল ২০১৭। আর উত্থাপনের জন্য থাকা বিলগুলো হল- বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদ (সংশোধন) বিল ২০১৭, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিল ২০১৭ ও খুলনা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ বিল ২০১৭।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: