সর্বশেষ আপডেট : ৫৬ মিনিট ৫৬ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২১ জানুয়ারী, ২০১৮, খ্রীষ্টাব্দ | ৮ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নতুন সাজে ইবি

নিউজ ডেস্ক:: ‘আন্তর্জাতিকীকরণের পথে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়’ স্লােগানকে ধারণ করে দীর্ঘ ১৬ বছর পর অনুষ্ঠিত হচ্ছে চতুর্থ সমাবর্তন। দীর্ঘ সময়ের আকাঙ্ক্ষিত এ সমাবর্তন স্মরণকালের ঐতিহাসিক ও বৃহৎ সমাবর্তন। এ উপলক্ষে পুরো ক্যাম্পাস এখন যেন সেজেছে নববধূর মায়াময় সাজে। সবচেয়ে মনোমুগ্ধকর, আকর্ষণীয় সময় হচ্ছে রাতের ক্যাম্পাস।

বিকেল গড়িয়ে সন্ধ্যা নামার সঙ্গে সঙ্গে পুরো ক্যাম্পাস মিটিমিটি রঙিন আলোয় আলোকিত হয়ে উঠছে। একইসঙ্গে ক্যাম্পাসের সর্বত্র রং তুলির স্পর্শে রঙিন আল্পনা ফুটে উঠেছে। সমাবর্তন সফল করতে এখন চলছে শেষ সময়ের প্রস্তুতি।

ক্যাম্পাসে এখন বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে শিক্ষার্থী ও দর্শনার্থীদের আনাগোনা। সমাবর্তনকে সামনে রেখে পুরো ক্যাম্পাস এখন সরব। চতুর্দিকে শুধু উৎসবের আমেজ। অনেক দিন পর বন্ধুদের কাছে পেয়ে স্মৃতিচারণে ব্যস্ত হয়ে উঠেছেন অনকে। ঘুরে ঘুরে দেখছেন ক্যাম্পাসের প্রতিঠি অঙ্গন।

কথা হয় বাংলা বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী রাশেদুল ইসলাম অনুর সঙ্গে। তিনি বলেন, চাকরির ব্যস্ত জীবনে ভুলতে বসেছিলাম মায়াময় অপরূপ সৌন্দর্যের আঁধার স্মৃতিগাঁথা এ ক্যাম্পাসকে। অনেক দিন পর পরিচিত অঙ্গনে সবার সঙ্গে খুব আনন্দ করছি।

Convocation

ক্যাম্পাসের প্রধান ফটক, প্রশাসনিক ভবন, ডায়না চত্বর, মুক্ত বাংলা, পানির ফোয়ারা, উপাচার্যের বাসভবন, অনুষদ ভবনসমূহ, আবাসিক ছাত্র-ছাত্রীদের মোট ৮টি হলে সারারাত রঙিন আলোর ঝলকানি। রাতে দর্শনার্থীদের নজর কাড়ছে নান্দনিক পানির ফোয়ারার আলোকচ্ছটা।

এছাড়া অনুষদ ভবন ও ফলিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের প্রবেশ পথে বসানো হয়েছে ২টি আলোক বাতির গেট। গেটে শোভা পাচ্ছে স্ট্যাচু অব লিবার্টি, আইফেল টাওয়ার ও ঘোড়ার উপর যুদ্ধরত সেনাপতির সুদর্শন নকশা। যা রাতে অপূর্ব রূপ ফুটিয়ে তুলছে।

ক্যাম্পাসের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে বসানো হয়েছে বিশেষ আলোকবাতি। যা বহুদূর পর্যন্ত আলোর ঝলকানিতে ভরিয়ে তুলছে ১৭৫ একরের প্রতিটি প্রান্তর। লালন শাহ হলের সামনের পুরো এলাকা জুড়ে সোডিয়াম লাইটের ঝলকানি সত্যিই প্রতিটি শিক্ষার্থীর মনকে উদ্বেলিত করছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল বিভাগগুলোও সেজেছে রঙিন আলোর নতুন সাজে।

Convocation

ঘুরতে ঘুরতে দেখা হলো অর্থনীতি বিভাগের সাবেক শিক্ষার্থী ও রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী অধ্যাপক বেলাল উদ্দিনের সাথে। তিনি বলেন, ‘অল্প কিছুদিনের মধ্যেই ক্যাম্পাসের আমূল পরিবর্তন। অনেক ভালো লাগছে এখন। বর্তমান প্রশাসনের সকলকে ধন্যবাদ আমাদেরকে এতো সুন্দর ক্যাম্পাস উপহার দেয়ার জন্য।’

পুরো ক্যাম্পাস সাজানোর পাশাপাশি চলছে নিরাপত্তা মহড়া। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডির পাশাপাশি এসএসএফ, পুলিশ, গোয়োন্দা ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কাজ করে যাচ্ছে।

সমাবর্তনের সার্বিক বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক সেলিম তোহা বলেন, ‘সমাবর্তন সফল করতে সংশ্লিষ্ট সকলেই দিন-রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছি। সকল প্রস্তুতি প্রায় সম্পন্ন। এবারের সমাবর্তনটি বিশ্বের ইতিহাসের অন্যতম একটি বৃহৎ সমাবর্তন হবে। আশা করছি সবকিছু সুষ্ঠু ভাবেই সম্পন্ন হবে।’

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: