সর্বশেষ আপডেট : ৩৬ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ২১ এপ্রিল, ২০১৮, খ্রীষ্টাব্দ | ৮ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বিজয় র‌্যালি করবে আ. লীগ, অনুমতি পায়নি বিএনপি

ডেইলি সিলেট ডেস্ক ::
দশম সংসদ নির্বাচনের চতুর্থ বর্ষপূর্তির দিনে আওয়ামী লীগ রাজধানীতে বিজয় র‌্যালি করবে। দিনটিকে গণতন্ত্র হত্যা দিবস আখ্যায়িত করে বিএনপি কর্মসূচি ঘোষণা করলেও পুলিশের পক্ষ থেকে কর্মসূচি পালনের অনুমতি দেয়া হয়নি। আজ সকালে নয়া পল্টনে দলীয় কার্যালয়ে যৌথসভা শেষে দলটি পরবর্তী ঘোষণা দেবে। এদিকে আওয়ামী লীগ আজ সারা দেশে ‘গণতন্ত্রের বিজয় দিবস’-এর কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। কর্মসূচির অংশ হিসেবে আজ ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ পৃথক বিজয় র‌্যালির আয়োজন করেছে। এছাড়া সারা দেশে আনন্দ র‌্যালি করবে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন।

২০১৪ সালের এই দিনে দশম সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এ নির্বাচন বিএনপি ও তাদের জোট মিত্র ২০ দল বর্জন করে। নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় আওয়ামী লীগ ও মহাজোটের ১৫৪ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় বিজয়ী হন। এ নির্বাচন দেশে-বিদেশে বিতর্কিত হলেও আওয়ামী লীগ বলছে, সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন হওয়ায় বর্তমান সংসদ নিয়ে কোনো প্রশ্নের সুযোগ নেই। এ নির্বাচনের মাধ্যমে দেশের গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত রয়েছে। কোনো অগণতান্ত্রিক শক্তি ক্ষমতায় আসার সুযোগ পায়নি। তাই দিনটি গণতন্ত্রের বিজয় দিবস। ক্ষমতার প্রথম বছর থেকেই ৫ই জানুয়ারি ঘিরে দুই দল পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি পালন করে আসছে।

আওয়ামী লীগের কর্মসূচি : ৫ই জানুয়ারির দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ৪র্থ বর্ষপূর্তির দিনে দেশব্যাপী আওয়ামী লীগ ‘গণতন্ত্রের বিজয় দিবস’ উদযাপন করবে। এ উপলক্ষে সংগঠনের জেলা, মহানগর, উপজেলা ও থানা পর্যায়ে বিজয় র‌্যালি ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বিকাল ৩টায় বনানী পূজা মাঠে ঢাকা মহানগর উত্তর এবং ২৩, বঙ্গবন্ধু এভিনিউ প্রাঙ্গণে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিজয় র‌্যালি ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। কর্মসূচিতে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থাকবেন।

এছাড়াও আওয়ামী লীগের সকল জেলা, মহানগর, উপজেলা ও থানাসমূহে ৫ই জানুয়ারির অনুরূপ কর্মসূচি পালন করবে। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের গতকাল এক বিবৃতিতে কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচি যথাযথভাবে পালনের জন্য দেশের সকল জেলা, মহানগর, উপজেলা ও থানা আওয়ামী লীগসহ সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। একইসঙ্গে দেশের সর্বস্তরের জনগণকে গণতন্ত্রের বিজয়ের এই ঐতিহাসিক দিনটি উৎসবমুখর পরিবেশে উদযাপনের জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের গণতন্ত্রের বিজয় হয়েছে। ওইদিন নির্বাচন না হলে মার্শাল ল হতো বাংলাদেশে। দেশের অর্থনীতি হুমকির মুখে পড়তো। এই দিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকল বাধাকে অতিক্রম করে বাংলাদেশকে গণতন্ত্র ফিরিয়ে দিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার সম্পন্নের পাশাপাশি পদ্মা সেতু, মেট্রোরেল, রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রসহ সরকারের গৃহীত মেগাপ্রকল্পসমূহ বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের স্বপ্ন-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণের সংগ্রামে ৫ জানুয়ারির নির্বাচন এক অনন্য মাইল ফলক।

সমাবেশের অনুমতি পায়নি বিএনপি : ৫ই জানুয়ারি দশম জাতীয় নির্বাচনের চতুর্থ বার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর নয়াপল্টনে সমাবেশের প্রস্তুতি নিয়েছে বিএনপি। তবে পুলিশের পক্ষ থেকে অনুমতি মিলেনি। দিনটিকে গণতন্ত্র হত্যা দিবস হিসেবে পালন করে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০ দল। বিগত বছরগুলোতে এ দিনটিকে কেন্দ্র করে রাজপথে উত্তাপ ছড়িয়েছে সরকার ও বিরোধী দলের পরস্পরবিরোধী কর্মসূচি। এদিকে ৫ই জানুয়ারি বিএনপি প্রথমে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করতে চাইলেও ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) অনুমতি মেলেনি। পরে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের বিকল্প হিসেবে সমাবেশটি নয়াপল্টনে আয়োজনের অনুমতি চেয়ে পুলিশ ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনকে চিঠি দেয় বিএনপি। সোহরাওয়ার্দী না হলে নয়াপল্টনে সমাবেশের অনুমতি দেয়ার জন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানান দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ।

গতকাল সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, সমাবেশের কর্মসূচি উপলক্ষে বিএনপি ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে। সমাবেশের অনুমতি না পেলেও সমাবেশ সফল করতে প্রস্তুতি নিচ্ছে বিএনপি। তবে নয়াপল্টনেও সমাবেশের অনুমতি মেলেনি। গতকাল বিকালে ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বিএনপি প্রতিনিধি দলকে জানিয়ে দিয়েছেন, বিএনপি চাইলে ইনডোরে যে কোনো সময় কর্মসূচি পালন করতে পারবে। তবে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে কর্মসূচি পালন করতে হলে জানুয়ারির শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

গতকাল বিকালে ডিএমপি কমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাৎ শেষে দলটির প্রচার সম্পাদক শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী সাংবাদিকদের এ কথা জানান। তিনি বলেন, ডিএমপি কমিশনারের সঙ্গে আমাদের সব বিষয় নিয়ে বিস্তারিত কথা হয়েছে। আমরা চাইলে যেকোনোদিন সমাবেশ করতে কোনো সমস্যা নেই বলে আশ্বাস দিয়েছেন। তবে সেটা ইনডোরে করতে হবে। এই মুহূর্তে বাইরে কর্মসূচি করা যাবে না। আর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সমাবেশ করতে চাইলে জানুয়ারির শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। এখন আমরা দলীয়ভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে ডিএমপিকে জানানোর কথা বলে এসেছি।

বিকল্প হিসেবে নয়াপল্টনের ব্যাপারে পুলিশের অনুমতি বা নিষেধাজ্ঞা আছে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা নয়াপল্টনে সমাবেশ করার কথা বলেছিলাম। তবে রাস্তায় এই মুহূর্তে সমাবেশ না করতে ডিএমপি কমিশনার আমাদের অনুরোধ করেছেন। ডিএমপি কমিশনারের সঙ্গে সাক্ষাতে প্রতিনিধিদলে অন্যদের মধ্যে ছিলেন-চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবুল খায়ের ভুঁইয়া ও আবদুস সালাম।

পরে সন্ধ্যায় রিজভী আহমেদ জানান, নয়াপল্টনে সমাবেশ সফল করতে আমাদের পূর্ণ প্রস্তুতি রয়েছে। এদিকে আজ শুক্রবার সকালে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে যৌথসভা শেষে ১১টায় সমাবেশ ও পরবর্তী করণীয় নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করবে বিএনপি।

সূত্র : বাংলাদেশ জর্নাল

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: