সর্বশেষ আপডেট : ১০ মিনিট ৪১ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮, খ্রীষ্টাব্দ | ৯ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নির্দলীয় সরকার ছাড়া কখনোই নিরপেক্ষ ভোট হবে না : খালেদা

নিউজ ডেস্ক::

নির্দলীয় সরকারের অধীনে আগামী জাতীয় নির্বাচনের দাবি পুনর্ব্যক্ত করে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, তাছাড়া বাংলাদেশে কখনোই নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে না। শনিবার রাতে বিএনপির চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে বড়দিন উপলক্ষে খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠান শেষে তিনি এ কথা বলেন।

খালেদা জিয়া বলেন, আমরা দেশে গণতন্ত্র চাই, বহুদলীয় গণতন্ত্র চাই। সকলের অংশগ্রহণে যাতে দেশে একটা অবাধ, সুষ্ঠু নির্বাচন হয় সেটি আমরা চাই। সেই নির্বাচন হতে হবে কার অধীনে? নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে। তা না হলে কিন্তু কখনোই নিরপেক্ষ নির্বাচন হবে না।

এ প্রসঙ্গে ২০১৪ সালে ৫ জানুয়ারির দশম সংসদ নির্বাচনের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ওই নির্বাচনে কজন লোক গিয়েছিল ভোট দিতে? যদি সত্যিকার নির্বাচনই হয় তাহলে কী করে ১৫৪ জন বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হল? এখন তারা চায় আবারও সেই রকমভাবে…।

দেশের সাধারণ মানুষের কেউ ভালো নেই বলে মন্তব্য করে খালেদা জিয়া বলেন, এখন কেউ ভালো নেই, কোনও মানুষ ভালো নেই। একমাত্র ভালো আছে তারা, যারা ক্ষমতায় আছে। তারা মনে করছে, এই দেশটা তাদের। তারা অত্যাচার করছে, নিরীহ জনগণকে মামলা-হামলা দিয়ে নিপীড়ন করছে।

বিএনপিকে দুর্বল করতে সরকার দমননীতির আশ্রয় নিয়েছে অভিযোগ করে দলটির চেয়ারপারসন বলেন, দেশের সবচেয়ে বড় দল বিএনপি। সবচেয়ে বেশি সময় ক্ষমতায় ছিল বিএনপি। এ জন্য বিএনপিকে তারা (সরকার) দুর্বল করতে চায়। তাই তারা বিএনপির ওপর অত্যাচার-নির্যাতন করছে। গাইবান্ধায় তারা (ক্ষমতাসীনরা) হিন্দু সম্প্রদায় লোকদের বাড়ি ঘরে আগুন দিয়েছে। এ রকম বহু ঘটনা ঘটাচ্ছে তারা (আওয়ামী লীগ)। আর মামলা দিয়েছে বিএনপি ও বিরোধী দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে। সরকারের অন্যায় অত্যাচার থেকে দেশের মানুষ মুক্তি চায়।

বিএনপি নেত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ পরিকল্পিত ভাবে যুব সমাজকে ধ্বংস করে দিচ্ছে। মাদক ব্যবসা এটা সরকারি দলের লোকরা করছে। এর মাধ্যমে দেশের মানুষকে বিশেষ করে যুব সমাজকে ধ্বংস করার কাজ করছে তারা। ধরাও পড়ছে, কিন্তু তাদের বিচার হচ্ছে না।

এসময় খালেদা জিয়া তার আদালতে যাওয়া-আসার সময় উপস্থিত নেতাকর্মীদের ওপর নির্যাতনের অভিযোগও করেন। দেশ ‘অনাচারে’ ভরে গেছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, আমরা মনে করি, বাংলাদেশ অন্ধকার একটা সময় অতিক্রম করছে। এ থেকে মুক্তি পেতে হলে অবশ্যই আমাদের সকল ধর্মের মানুষকে, সকল সম্প্রদায়ের মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। দেশের জন্য এক হতে হবে।

খালেদা জিয়া বলেন, আপনারা বড়দিনে প্রার্থনা করবেন, ২০১৮ সালে দেশের মানুষ যেন এই সরকারের নিপীড়ন থেকে মুক্তি পায়।

অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বিনিময় শেষে সবাইকে নিয়ে কেক কাটেন খালেদা জিয়া। বড়দিনের প্রাক্কালে খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের সুখী ও সমৃদ্ধ জীবন কামনা করেন বিএনপি প্রধান।

সভায় সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি ও যুবদলের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যালবার্ট ডি কস্টা। বাংলাদেশ খ্রিস্টান অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি অ্যালবার্ট পি কস্টার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, আবদুল মঈন খান, জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সহ ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট জন গোমেজ, খ্রিস্টান অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব সুব্রত উইলিয়াম রোজারিও প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, খ্রিস্টান অ্যাসোসিয়েশনের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি অধ্যাপক মার্সেল এম চিরান, কেন্দ্রীয় নেতা সঞ্চয় হাওলাদার, অনীল লিও কস্তা উপস্থিত ছিলেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: