সর্বশেষ আপডেট : ৪০ মিনিট ৪৮ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ২ পৌষ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কানাইঘাটে সিঙ্গাইরখালে বেড়িবাঁধ র্নিমাণের জোরদাবী এলাকাবাসীর

কানাইঘাট প্রতিনিধি:: কানাইঘাটে সিঙ্গাইরখালের তীরে বেড়িবাঁধ র্নিমাণের জোর দাবী জানিয়েছেন এলাকাবাসী। জানা যায় উপজেলার বড়চতুল ইউপি ও জৈন্তাপুর উপজেলার চারীকাটা ইউপির সীমানা দিয়ে বয়ে গেছে সিঙ্গাইরখাল। খালটি ভারতের মেঘালয় পাহাড়ের পাদদেশ থেকে শুরু হয়ে চতুল বাজার সংলগ্ন লাইন নদীতে মিলিত হয়েছে। দীর্ঘ দুই যুগের পুর্বে জৈন্তার চারীকাটা ইউপির সিঙ্গাইরখালের তীরে ফসল রক্ষা বাধঁ র্নিমিত হলেও কানাইঘাট চতুল অংশে সিঙ্গাইরখালের তীরে আজও শেষ হয়নি ফসল রক্ষা বাঁধের কাজ। বিশেষ করে কানাইঘাট বড়চতুল ইউপির দুর্গাপুর পুর্ব গ্রাম হতে ত্রিগাঙ্গা ব্রিজ পর্যন্ত প্রায় ২ কিলোমিটার এলাকায় ফসল রক্ষা বাঁধ না থাকায় বর্ষা মৌসুমে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলের পানি দুর্গাপুর, রতনপুর, ভাটিপাড়া, পর্বতপুর, ডুঙ্গাগ্রাম, সরুফৌদ, বেতু, আগফৌদ, দলকিরাই ও মুক্তাপুর সহ বেশ কয়েটি গ্রামের জমির ফসলের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে। আর লাইন নদীর পানি যখন বৃদ্ধি পায় তখন উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলের সমুস্ত পানি এ এলাকায় ঢুকে যায়। যার কারনে শত শত একর ফসলী জমি বছরের অধিকাংশ সময় পানির নিচে থাকে। এ সময় দারুন কষ্টে যায় দরিদ্র কৃষকের দিন। শুধু তাই নয় নিচু এ দুই কিলোমিটার এলাকা দিয়ে বানের পানি মানুষের ঘরবাড়িতে ঢুকে চরম দুর্-ভোগ সৃষ্টি করে।

এ ব্যাপারে বড়চতুল ইউপির ৬নং ওয়ার্ডের সদস্য জাহাঙ্গীর আলম সহ এলাকাবাসী সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের কাছে দ্রুত ফসল রক্ষা বাঁধ র্নিমাণের দাবী জানিয়ে বলেন সিঙ্গাইরখালের পাশদিয়ে জৈন্তাপুর চারীকাটা ইউপিতে মাটির সড়ক রয়েছে। যার কারনে তাদের ফসলী জমি বন্যার পানিতে আক্রান্ত হয় না। তারা জানান চতুল বাজার থেকে শুরু হয়ে দুর্গাপুর পুর্ব গ্রাম পর্যন্ত সিঙ্গাইরখালের তীরে কানাইঘাট অংশে গত বছর বাঁধ নির্মাণ করা হয়েছে। অবশিষ্ট ৬নং ওয়ার্ডের রতনপুর গ্রাম হইতে ত্রিগাঙ্গা ব্রীজ পর্যন্ত প্রায় ২ কিলোমিটার এলাকায় বাঁধ র্নিমাণ করা হলে তাদের এ এলাকার ফসলী জমিগুলো রক্ষা করা সম্ভব।

স্থানীয় এলাকাবাসীর দাবী পানি উন্নয়ন র্বোড সহ সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের উদ্যেগে এ স্থানটি কানাইঘাটের হাওর এলাকার উন্নয়ন ও নদী খননের আওতায় এনে লাইন নদী ও সিঙ্গাইরখালের পানি প্রবাহের হাত থেকে ফসলী জমি রক্ষা করতে এই দুই কিলোমিটার এলাকায় মাটির বাঁধ নির্মাণে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষকে এগিয়ে আসার আহবান জানিয়েছেন। সেই সাথে লাইন নদীর মোহনা চতুল বাজারের পাশদিয়ে বয়ে যাওয়া অংশ এবং ত্রিগাঙ্গা ব্রিজে সরকারী ভাবে সুইচ গেইট নির্মাণ করা হলে এলাকার মানুষ উপকৃত হবেন বলে তারা জানান।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: